CPA Markeing

CPA Marketing in 2020: The Ultimate Guide for Beginners

GET THE PRINT VERSION

Tired of scrolling? Download a PDF version for easier offline reading and sharing with coworkers.
DOWNLOAD PDFTABLE OF CONTENTS

When it comes to marketing your online business, your return on investment (ROI) is crucial to your success.

Take digital advertising. After pouring hard-earned marketing dollars into Google or Facebook ads, you must earnestly optimize your campaigns – testing, tweaking and hoping that all of your clicks eventually turn into sales.

Once you factor in gross profit margin, shipping costs, and other expenses, it’s difficult to maintain a strong enough return on investment to scale your marketing efforts.

What if instead of focusing your digital ad spend on “awareness-metrics” like impressions and clicks, you could spend your money only on real business results – leads, conversions, and sales?

This is where CPA marketing comes in.

CPA marketing just might be the most scalable and ROI-positive way to monetize your website.

Unlike other marketing tactics where you pay to advertise your brand with no guarantee of sales, CPA marketing allows you to only pay after the sale occurs at a rate you determine.

For example, if you’re selling a $100 pair of sneakers and you pay your CPA partners a 10% commission after the sale, you only pay $10 in marketing spend and enjoy a return on ad spend (ROAS) of 10:1.

That’s a substantial return.

Additionally, these affiliate customers are known to spend 58% more annually than the aggregate of all other advertising channels.

This beginner’s guide is going to walk you through how CPA marketing works and will cover:

  1. What is CPA marketing?
  2. How does CPA work?
  3. CPA marketing payment model.
  4. Benefits of CPA.
  5. Top CPA affiliate networks.
  6. BONUS Tips to better your CPA strategy.

What is CPA Marketing?

CPA marketing, also known as cost per action marketing, is a style of the affiliate marketing model that offers a commission to the affiliate when a specific action is completed.

The lead action can be anything from making a purchase to getting a quote, watching a video, or filling out a form.

Ecommerce sites around the globe can leverage CPA marketing to create different offers and online marketing campaigns.

CPA networks then promote these campaigns through affiliates.

The CPA affiliates are paid a set fee each time a referred visitor completes the action or offer.

cpa marketing how cpa works

Image Source

How Does CPA Marketing Work?

The CPA model is a simple concept once you break down into how it works and who’s involved.

  • Affiliate or PublisherThe influencer (blogger, brand, business) that promotes a business or product in order to drive traffic to the ecommerce site and make a specific conversion.
  • Business or AdvertiserThe brand that desires a partnership with an affiliate to drive quality traffic to the business’ website and increase sales, generate leads, or boost conversions.
  • CPA Network: The platform that brings together the affiliate who wants to make money by promoting products and the businesses that want their products promoted.

Let’s say a popular cooking blogger named Lisa (our affiliate in this story) has a healthy following of YouTube subscribers and blog readers.

She learned how to start a blog to make a living in her kitchen—trying new recipes and recommending specific brands and products to her audience.

After developing a guest blogging strategy, increasing web traffic, and building a cult following, her cooking crowd is eager to buy the next kitchen gadget she recommends.

Then we have our example business, EasyCooking.

EasyCooking manufactures high-quality kitchen gadgets – from cutting boards and measuring cups, to professional mixers and food processors. They’re looking to expand their marketing reach and would love to take advantage of Lisa’s audience of budding chefs.

A CPA marketing network brings Lisa and EasyCooking together.

Ecommerce businesses like EasyCooking utilize CPA networks to find and partner with influencers like Lisa.

Influencers like Lisa, who want to make money doing what they love and engaging their audience, can turn to CPA networks to find companies that want to pay her to use and promote their products.

Lisa sends her audience to the business’ website and makes a commission on each sale or lead conversion.

In turn, EasyCooking makes money from Lisa’s referral traffic.

The network brings them together and the audience gets to try new products and learn about emerging brands. It’s a win-win.

cpa marketing how affiliate marketing works

Image Source

CPA Network Terminology

CPA network terminology isn’t complicated, but there are a few key terms you should know as you launch.

  • Affiliate Manager: A person who manages an affiliate program for a merchant. They are responsible for recruiting, engaging with affiliates, and generating revenue for the merchant.
  • Category: The niche for which the CPA offer applies (sports, fashion, beauty, health, etc).
  • Chargeback: When a sale “falls through” for an action an affiliate has already paid for. Since the sale was never finalized or an item was returned, the previously given commission is deducted back into the advertiser’s account.
  • Commission: The payment an affiliate receives—either a flat rate or percentage—once a successful conversion is tracked.
  • Contextual link: A text link placed within an affiliate website that links to the advertiser’s website.
  • Conversion rate: The percentage rate at which a particular action is performed. In other words, the number of successful conversions divided by the total traffic.
  • Cookies: In affiliate marketing, cookies are used to assign a unique ID to a user who has clicked the affiliate link to an advertiser’s site for a specific duration. The affiliate will receive credit for the conversion in this predefined window, typically 30-90 days.
  • Cost per action (CPA): An online advertising strategy that allows an advertiser to pay for a specified action from a target customer.
  • Earnings per click (EPC): The average amount an affiliate earns every time a user clicks an affiliate link.
  • Offer page: The webpage where the conversion occurs after a visitor takes the required action.
  • Return on investment (ROI): Refers to the amount of money made with a campaign. It is the revenue divided by the ad spend, multiplied by 100.

CPA Marketing Payment Model

The CPA affiliate marketing method is advantageous for businesses because they don’t pay unless a successful conversion is made.

The payouts differ based on competition and average commission rates in each vertical.

For example, headphone manufacturer Skullcandy’s successful affiliate program offers a 5% commission on sales based on a competitive electronics category.

Kelty, the outdoor camping gear company, provides affiliates up to 10% on a tiered commission structure. It’s all based on the competition within your vertical.

The cost per action formula is a very low-risk method for advertisers, as they only pay for the desired actions after they occur; unlike paid traffic, for example, where you just pay to get people on your site through ads.

The cost per action for an advertiser can be determined by dividing the total cost of the marketing campaign by the number of successful actions taken.

Let’s look at our pretend company, EasyCooking, as an example.

If EasyCooking spends $1,000 on a marketing campaign and gains 25 successful conversions on a signup form for a recipe ebook, the cost per action is $40.

While the cost per action varies by industry, Google AdWords reports the average cost per action across all industries is $48.96.

  • The automotive industry has the lowest CPA at $33.52.
  • Technology has the highest CPA at $133.52.

The top 10 percent of advertisers boast CPAs up to five times better than the average.

Want more insights like this?

We’re on a mission to provide businesses like yours marketing and sales tips, tricks and industry leading knowledge to build the next house-hold name brand. Don’t miss a post. Sign up for our weekly newsletter.SUBSCRIBE

What are the Benefits of CPA Marketing?

CPA marketing is very profitable when you target the right audience (as an affiliate) and connect with quality influencers (as a business).

Compared to other ecommerce marketing channels, the cost per action formula offers a number of benefits, including:

1. Easy to set up.

CPA marketing is easy to launch: you only need a website and a CPA network.

It takes very little capital upfront to use this marketing technique.

When you partner with a trusted CPA affiliate network, there’s no guesswork as to how to get started.

By using your own website and choosing a CPA offer, you can begin getting traffic from affiliate sites almost immediately.

2. Pay After the Sale.

You’re not paying for traffic that doesn’t convert.

If an affiliate’s referrals continuously offer low-rate conversions, diversify your affiliates and shift your focus to a more successful influencer.

3. Low Risk.

Because no payment is made to the publisher unless a referred visitor converts to a customer or completes a specific task, the risk is low for ecommerce businesses.

There are tools like Mentionlytics that help you monitor how the affiliate is marketing your brand or product, but cost per acquisition marketing doesn’t call for an immense investment of time or capital.

4. High ROI.

Affiliate marketing generates 16 percent of all online marketing.

CJ by Conversant’s Affiliate Customer Insights reveals that customers spend more money when making a purchase off an affiliate’s recommendation.

This means these types of marketing campaigns drive a better quality of traffic and offers a better value than most traffic sources.

Affiliate marketing produces:

  • 58% higher average customer revenue.
  • 31% higher per customer order average.
  • 21% higher average order value (AOV).

Plus, the more sales you drive, the higher your commissions can be. For instance, the BigCommerce affiliate program starts at a 200% bounty payment and goes higher based on sales volume.

5. Expand Marketing Reach.

CPA marketing gives you scale and distribution.

You get to scale your brand message faster and more consistently to the largest possible audience.

Whether your brand is in fashion, electronics, home and garden, pet supplies, beauty, or almost anything else, most business verticals use CPA marketing.

Take Bliss, a skincare and beauty product line, for example.

Their affiliate program provides a 10% CPA payout on all sales.

Now beauty influencers, bloggers, and media sites have the tools to easily promote them, receive a 10% commission on all sales, and expand their affiliate marketing reach.

In every vertical, there’s almost always an affiliate website available for partnerships through a CPA affiliate network.

Spread your brand awareness by reaching the affiliate’s audience—a group you may have never otherwise reached.

CPA Marketing Tips & Best Practices

CPA affiliate marketing is not a “set it and forget it” method.

You must invest the time to cultivate a relationship with your CPA affiliates to create a strong conversion funnel to keep improving your conversion rates.

To drive success through your CPA marketing strategy, try these tips:

1. Consider hiring an Affiliate Manager.

To get the most out of your CPA marketing efforts, you need a dedicated in-house resource – a person who can recruit new CPA affiliates, engage with website owners, send them new promotions, and drive consistent revenue for your site.

Affiliate Managers can provide help for affiliates by taking the following actions:

  • Review affiliate offers and provides insight into strategic changes.
  • Offer insight on what types of affiliate links or ads to use to optimize conversion.
  • Provide tips on content that will effectively promote the merchant’s products.
  • Send product updates and new creative to CPA affiliates.
  • Provide commission bonuses and incentives for high-performing CPA affiliates.

Affiliate Managers can provide help for advertisers by taking the following actions:

  • Connect you with and recruit the top-performing affiliates in your niche.
  • Brainstorm new promotional ideas for particular products.
  • Send consistent brand messages and product updates to the CPA network.
  • Negotiate contracts with affiliates, oversee ROI, and compare your affiliate program to others to stay competitive.
  • Guide you with creatives that partner well with the best affiliate programs and websites.
  • Deal with taxes and set up your accounting services.

2. Avoid CPA networks with bad reviews.

The downside to CPA marketing (as with any online money-making opportunity) is the questionable networks that have shady practices.

Before you jump on board with any CPA affiliate marketing network, read the reviews.

Odigger offers network reviews so you know which are worth your time and which to avoid.

Click on the Network Reviews tab and search for the one you’re interested in to see what others have to say.

cpa marketing odigger

Image Source

Keep in mind that no network will have a 100 percent satisfaction rating, so one or two complaints shouldn’t scare you off.

The most popular negative reviews topics include:

  • Lack of payment (please note that even highly reputable CPA marketing networks may withhold payment for specific reasons, so review the network’s policies before signing on).
  • Unhelpful affiliate managers.
  • Difficulty signing up for network or using the platform.

3. Utilize Native Advertising.

The days of embedding ugly, in-your-face banners across the header of your website are over.

It doesn’t take blaring advertisements to convert customers.

In fact, native ads, or those that resemble your website’s color, layout, and theme, are among the marketing trends to watch in 2020.

  • Nonsocial native spending will grow more than 80 percent this year to $8.71 billion.
  • Seventy-seven percent of all mobile display ad dollars will be spent on native placements.
  • eMarketer predicts native advertising will make up nearly 60 percent of display spending in 2018 in the US.

Integrating your advertising into a high-quality web design will offer more conversions, as native ads result in two times more visual focus than banner ads.

cpa marketing cnn

Image Source

The Top CPA Affiliate Networks

As we discussed earlier, CPA affiliate networks with bad reviews should be avoided, but there are some bright spots when it comes to reputable networks.

Platforms that provide knowledgeable affiliate managers, numerous offers, and competitive payouts are the ones to try.

Reputable CPA affiliate networks include:

1. MaxBounty.

Max Bounty offers trained affiliate managers who focus on a merchant’s marketing needs.

There are nearly 20,000 affiliates on the platform, and the affiliate managers are knowledgeable of which partners will be the best fit for businesses and affiliate marketers.

The affiliates are vetted and offer high-quality traffic to the merchant’s site.

Newbies to MaxBounty have access to a plethora of training material and the program offers weekly payouts.

2. Clickbooth.

Clickbooth has been around since 2002 and places a strong focus on making its program easy and innovative for merchants.

Clickbooth claims its artificial intelligence technology can provide up to 25 percent increased earnings per click (EPC) for affiliate partners.

There are no costs to join Clickbooth as an advertiser.

Advertisers can view traffic performance from each individual affiliate, and if they desire, can manage budgets, payouts, schedules, and campaigns themselves or allow the Clickbooth team to handle the work.

3. Peerfly.

Launched in 2009, Peerfly is a small affiliate marketing company.

It was ranked as the second best CPA network in 2016 and made the top five for 2018.

PeerFly offers to match or pay even more than any other affiliate network.

The network offers free training for affiliates and payouts weekly, bi-weekly, or monthly through PayPal, Amazon gift cards, checks, bank wire, Payoneer, and Bitcoin.

4. Admitad.

Admitad has more than 520,000 publishers and more than 1,200 advertisers.

This network was launched in 2009 in Germany and hosts international offers, giving it a large footprint across ecommerce businesses.

Admitad boasts a client-oriented approach with personalized training and other learning options.

Affiliates only need a $10 minimum for payouts and can be paid via PayPal, epayments, and wire transfer.

The network offers anti-fraud technologies, cross-device tracking, and deep linking options.

5. W4.

W4 reviews publisher applications before approving their accounts.

The publishers can boost their revenue by referring others to this network.

W4 has a dedicated support team to help affiliates and merchants and offers a rewards program for the highest-earning affiliates.

CPA Marketing Trends

Following the hottest CPA marketing trends in 2020 will increase your revenue and help create a strategic approach for next year’s digital marketing plan.

  • CPA marketing is expected to expand to developing countries in 2020 and beyond.
  • CPA marketing should have a focus on copy rather than pop-ups and headlines.
  • Influencer marketing will begin to overlap into CPA marketing, giving many new ecommerce businesses even more reason to join CPA affiliate networks.
  • Ecommerce businesses will shift a portion of their budget from traditional marketing (PPC, social media, and banner ads) to affiliate and performance marketing.

Reliable CPA affiliate marketing networks will continue to increase transparency and offer the data-driven information that clients demand.

Executive Summary

CPA marketing is the next step in digital marketing that ROI-minded marketers are looking for.

It’s a fast-paced and optimization-friendly cooperative tactic that puts real business results at the forefront.

It’s a way to scale and distribute your brand message while building strong relationships with partner websites.

This customizable, easy-to-launch strategy is also a win for the affiliates, as they can choose offers that mirror their own brand and website, allowing them to monetize content on their site with banners and contextual links.

If you want to expand your website’s reach, maintain a strong return on investment, and feel a real business impact, incorporate CPA marketing into your strategic plans.

Want more insights like this?

We’re on a mission to provide businesses like yours marketing and sales tips, tricks and industry leading knowledge to build the next house-hold name brand. Don’t miss a post. Sign up for our weekly newsletter.SUBSCRIBE

Facebook Group List and US

1*https://m.facebook.com/groups/Halifax.BSTGA.NS/permalink/2935287189897749/


2*https://www.facebook.com/groups/vancouverbuysellfast/permalink/3045063375614647/CPA Markeing


3*https://www.facebook.com/groups/1617426645011853/


4*https://www.facebook.com/groups/davaobuyandsell/permalink/3150038465076370/


5*https://www.facebook.com/groups/1644316275808641/


6*https://www.facebook.com/groups/657111714360795/


7*https://www.facebook.com/groups/vancouverbuysellfast/permalink/3045063375614647/

Copy

মানুষের অতীত ঘটনা ও কার্যাবলীর অধ্যয়নই ইতিহাসঃ ইতিহাসের কিছু কুখ্যাত স্বৈরশাসক

কোন রাষ্ট্রে যখন এক ব্যক্তির ক্ষমতার মাধ্যমে সকল কাজ সম্পন্ন হয় তাই স্বৈরশাসন। আর যিনি তা সম্পনন্ন করেন তিনি স্বৈরশাসক। স্বৈরশাসক দেশের জনগণ, সংবিধান, আইনের রীতিনীতি অগ্রহ্য করে অগণতান্ত্রিক বা জোর করে ক্ষমতা গ্রহণ করেন,এবং তার একক নির্দেশনায় দেশকে এবং দেশের সকল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে তার অধীনস্থ্ করে রাখে। এই স্বৈরশাসকদের কিছু সামরিক শক্তি দিয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকেন, কেউ আবার টিকে থাকেন তথাকথিত গণতন্ত্রের আবরণে। বর্তমান বিশ্বের অধিকাংশ দেশ গণতন্ত্র এবং সমাজতন্ত্রের নামে একপ্রকার স্বৈরতন্ত্রিক মনোভাব পোষণ করে শাসনকার্য পরিচালনা করছে। যেটাকে Democracy (গণতন্ত্র) ও Communism (সমাজতন্ত্র) এর খোলস ব্যাবহার করে এক প্রকার Absolutism তথা পরোক্ষ স্বৈরতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা চালু আছে । যেখানে রাষ্ট্রের বড় বড় সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নাগরিকদের মতামতের গ্রহণযোগ্যতা খুবই নগন্য। স্বৈরাচারী শাসকরা ধরার বুকে অসাম্য ও অন্যায়ের দাবানলে দ্বগ্ধ করে বণী আদমকে পদপিষ্ট করে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে চরম নিষ্ঠুরতম পথ বাছাই করে নেয়। ফেরাউন ছিলেন প্রাচীন দুনিয়ার নিষ্ঠুরতম স্বৈরশাসক। তিনি নিজেকে পুরো দুনিয়ার মালিক বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন-আনা রাব্বুকুমুল আলা। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেছে নমরুদসহ অনেকে। ক্ষমতার উত্তাপ সবাই সহ্য করতে পারে না। তাই ক্ষমতার উত্তাপে সবাইকে জ্বালিয়ে ছারখার করে ফেলতে চায়। তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে খুব কম মানুষ। আধুনিক বিশ্বব্যবস্থায় নতুন করে অ্যাডলফ হিটলার স্বৈরতন্ত্রের সূচনা করেন। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করে নানা দেশ নানা ভাবে স্বৈরতন্ত্রের শিকলে আবদ্ধ করে দুনিয়াকে বসবাসের অযোগ্য করে তুলছে নব্য স্বৈরশাসকরা। কেউ ঘোষিত স্বৈরশাসক আবার কেউ বা গণতন্ত্রের ছদ্মাবরণে স্বৈরশাসক। স্বৈরশাসকদের শাসনে মানবতার অপমৃত্যু ঘটে। মুক্তিকামী মানুষ ফুঁসে উঠে। শুরু হয় শাসক ও শোষিতের লড়াই। কোথাও সমাজতান্ত্রিক স্বৈরশাসক কোথাও বা তথাকথিত নির্বাচিত স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে। যার শেষ পরিণতি হয় ভয়াবহ। ইতিহাস শুধু বিখ্যাত মানুষদেরই মনে রাখে না, সেই সাথে কুখ্যাত মানুষদেরও মনে রাখে। আজ আমি সামুর পাঠকদের জন্য ইতিহাসের কয়েকজন স্বৈরশাসকের কথা তুলে ধরছি।

হিটলার
নিষ্ঠুরতার তালিকায় নিঃসন্দেহে সবার আগে থাকবে জার্মানির আডল্ফ হিটলারের নাম৷ অ্যাডলফ হিটলার ছিলেন জার্মানির সর্বকালের সেরা স্বৈরশাসক। ফ্যাসিবাদের জনক হিটলারের রাজ্য জয় ও বর্ণবাদী আগ্রাসনের কারণে লাখ লাখ মানুষকে প্রাণ হারাতে হয়। ৬০ লাখ ইহুদিকে পরিকল্পনা মাফিক হত্যা করা হয়। ইহুদি নিধনের এই ঘটনা ইতিহাসে হলোকস্ট নামে সবাই জানে। ১৯৪৫ সালে যুদ্ধের শেষ দিনগুলোতে হিটলার বার্লিনেই ছিলেন। রেড আর্মি যখন বার্লিন প্রায় দখল করে নিচ্ছিল সেরকম একটা সময়ে তিনি ইভা ব্রাউনকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর ২৪ ঘণ্টা পার হওয়ার আগেই তিনি ফিউরার বাংকারে সস্ত্রীক আত্মহত্যা করেন। তার ক্ষমতা আর দাম্ভিকতা তাকে শেষ রক্ষা করতে পারেনি।

মেঙ্গিস্তু হাইলে মারিয়াম
ইথিওপিয়ার এই সমাজতান্ত্রিক স্বৈরশাসক বিরোধীদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ নির্যাতন চালান৷ ১৯৭৭ থেকে ১৯৭৮— এই বছরেই পাঁচ লাখ মানুষ হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে৷ ক্ষমতা থেকে উৎখাতের পর গণহত্যার অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ তবে মারিয়াম পালিয়ে যান জিম্বাবোয়েতে৷ 

তৈমুর লং
তৈমুর ছিলেন ১৪শ শতকের একজন তুর্কী-মোঙ্গল সেনাধ্যক্ষ। তিনি পশ্চিম ও মধ্য এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চল নিজ দখলে এনে তিমুরীয় সম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার কারণেই তিমুরীয় রাজবংশ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। তার সাম্রাজ্যের বিস্তৃতি ছিল আধুনিক তুরস্ক, সিরিয়া, ইরাক, কুয়েত, ইরান থেকে মধ্য এশিয়ার অধিকাংশ অংশ যার মধ্যে রয়েছে কাজাখস্তান, আফগানিস্তান, রাশিয়া, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, কিরগিজিস্তান, পাকিস্তান, ভারত এমনকি চীনের কাশগর পর্যন্ত। তৈমুরের সৈন্যবাহিনী ছিল বিশ্বের ত্রাস। রাজ্য জয়ের যুদ্ধে সব জায়গাতেই ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালাতেন তৈমুর ও অনেক জনপদ বিরান করে ফেলা হতো। সাবজাওয়ার রাজ্যে, যা বর্তমানে আফগানিস্তান, সেখানে তৈমুরের নির্দেশে টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছিল জীবিত একজন পুরুষের ওপর আরেকজনকে রেখে সিমেন্ট, বালি এবং পানি ‍মিশ্রিত করে। ইরানের ইসপাহানে বিদ্রোহের শাস্তি দিতে জনসাধারণকে গণহত্যার আদেশ দিয়েছিলেন এবং ৭০ হাজার মাথার সমন্বয়ে মিনার তৈরি করেছিলেন।

চেঙ্গিস খান
বিশ্বের ইতিহাসে মোঙ্গল সম্রাট চেঙ্গিস খান একজন ভয়ংকর যোদ্ধা হিসেবে পরিচিত। ত্রয়োদশ শতাব্দীতে বিশ্বের প্রায় এক-চতুর্থাংশ জায়গা দখল করে নিয়েছিলেন চেঙ্গিস খান। এক সাধারণ গোত্রপতি থেকে নিজ নেতৃত্বগুণে বিশাল সেনাবাহিনী তৈরি করেছিলেন। ইতিহাসে তিনি অন্যতম বিখ্যাত সেনাধ্যক্ষ ও সেনাপতি। তাকে মঙ্গোল জাতির পিতা বলা হয়ে থাকে। তবে বিশ্বের কিছু অঞ্চলে চেঙ্গিস খান অতি নির্মম ও রক্তপিপাসু বিজেতা হিসেবে চিহ্নিত। বীভৎস ধ্বংসলীলা ও নিষ্ঠুরতার মধ্য দিয়ে তার প্রতিটি আক্রমণ ও বিজয় পরিচালিত হয়েছিল। একের পর এক রাজ্য দখল করতে তার নির্দেশে সেনারা যে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল, এতে ঝরে যায় কয়েক কোটি প্রাণ। কোনো দেশ দখল করার পর তিনি পরাজিত সম্রাটের কাউকেই বাঁচিয়ে রাখতেন না। এমনকি শিশুদেরও না।

জোসেফ স্টালিন
নির্মমতার দিক থেকে যে সব শাসক ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিয়েছেন তাদের মধ্যো জোসেফ স্টালিন অন্যতম। রুশ ভাষায় ‘স্টালিন’ মানে হচ্ছে ‘লৌহ মানব’। স্টালিন একজন রুশ সাম্যবাদী রাজনীতিবিদ পশ্চিমারা যাকে প্রচন্ড একগুয়ে, দাম্ভিক, চতুর স্বৈরশাসক উপাধি দিয়েছে সেই তিনি এক নাগারে ৩১ বছর (১৯৪১ সালের ৬ মে থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত) শাসন করেছেন পুরো সোভিয়েত সাম্রাজ্য। যে সব শাসক ঐতিহাসিকভাবে খ্যাতি পেয়েছেন তাদের মধ্যেই স্টালিন রাজনৈতিক ক্ষমতা অপব্যবহারে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন। তার আদেশ পালনে লাখ লাখ কৃষককে অভুক্ত রেখে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছিল। নিজের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে কমিউনিস্ট পার্টির শত্রু সন্দেহে অন্তত ২০ লাখ মানুষকে হত্যা করেন।

মাও সে তুং
মাও-কে বলা যেতে পারে আধুনিক চীনের রূপকার৷ তার বিরুদ্ধেও রয়েছে বহু মানুষকে হত্যার অভিযোগ৷ ১৯৫৮ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের অনুসরণে অর্থনৈতিক মডেল দিয়ে উন্নয়নের কথা বলেন৷ হত্যা করা হয় সাড়ে চার কোটি মানুষকে৷ ১০ বছর পর সাংস্কৃতিক বিপ্লবের নামে আরো প্রায় তিন কোটি মানুষকে হত্যার অভিযোগও রয়েছে মাও-এর বিরুদ্ধে৷। ১৯৪৯ সালে সমাজতন্ত্রী চীনের প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৯৭৬ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি চীন শাসন করেন। ১৯৭৬ সালের৯ সেপ্টেম্বর (বয়স ৮২ বছর বয়সে চীনের বেইজিংয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। 

বেনিতো মুসোলিনি
বেনিতো মুসোলিনি ছিলেন দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ কালে ইতালির সর্বাধিনায়ক। ইতালির এই একনায়ক ১৯২২ সাল থেকে ১৯৪৩ সালে তার ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পুর্ব পর্যন্ত সমগ্র রাষ্ট্রের ক্ষমতাধর ছিলেন। ১৯২২ সালে তিনি রোম অভিযান করে দখলের মাধ্যমে ইতালির ৪০তম প্রধানমন্ত্রী হন। ইটালির রাজা ভিক্টর তৃতীয় ইমানুয়েল বিনা প্রতিবাদে তার হাতে ক্ষমতা তুলে দেন। মুসোলিনি ৭০০০-এর বেশি ইহুদিকে ইতালি থেকে বহিষ্কার করেছিলেন। এদের মধ্যে প্রায় ৬০০০ ইহুদিকে পরে হত্যা করা হয়েছিল। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধকালে জার্মান একনায়ক অ্যাডলফ হিটলারের একান্ত বন্ধুতে পরিনত হন মুসোলিনি। ১৯৪৩ সালে সিসিলিতে ক্ষমতাচ্যুত হলে তাকে বন্দী করা হয়। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে হিটলারের নির্দেশে জার্মান সেনাদের একটি চৌকশ দল মুক্ত করে মুসোলিনিকে। ১৯৪৫ সালের ২৭ এপ্রিল সুইজারল্যান্ডে পালানোর সময় ইতালির একটি ছোট্ট গ্রামে কমিউনিস্ট প্রতিরোধ বাহিনীর বাহিনীর হাতে ধরা পরে এবং পরে তাকে হত্যা করা হয়।

ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কো
১৯৩৬ থেকে ১৯৭৫ সময়কাল পর্যন্ত স্পেনের স্বৈরশাসক ছিলেন। এছাড়াও, ১৯৪৭ থেকে ১৯৭৫ মেয়াদকালে স্পেনীয় রাজতন্ত্রের প্রতিনিধি ছিলেন তিনি। স্পেনের গৃহযুদ্ধের সময় জেনারেল ফ্রাঙ্কো ফ্যাসিবাদী ইতালি ও নাজি জার্মানির মদদপুষ্ট জাতীয়তাবাদী বাহিনীর প্রধান হিসেবে স্পেনের নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করেন। ফলে জাতীয়তাবাদীরা ১৯৩৯ সালে বিজয়ী হয় ও ফ্রাঙ্কো এল কদিলো বা স্পেনের নেতা নির্বাচিত হয়ে আমৃত্যু দেশ শাসন করে ইউরোপের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী স্বৈরশাসকের মর্যাদা পান। তবে ইতিহাসে তিনি সর্বাপেক্ষা বিতর্কিত মতবাদের জন্য চিহ্নিত হয়ে আছেন।স্পেনের গৃহযুদ্ধে জয়ী হয়ে ১৯৩৯ সালে ক্ষমতায় আসেন জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কো৷ গৃহযুদ্ধ ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে অন্তত দেড় লাখ বেসামরিক মানুষকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে৷ যুদ্ধের পরও কমপক্ষে ২০ হাজার বেসামরিক মানুষকে হত্যার অভিযোগও রয়েছে৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অক্ষশক্তির অন্যসব শাসকের পতন ঘটলেও ফ্রাঙ্কো ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৭৫ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত৷ ১৯৭৫ সালের ২০ নভেম্বর স্পেনের মাদ্রিদে মৃত্যুবরণ করেন।

নেপোলিয়ান
ফ্রান্সের নেপোলিয়ান, তার বিশাল সাম্রাজ্যের বিস্তার ছিলো মাদ্রিদ থেকে মস্কো পর্যন্ত, সম্রাট হন তিনি ফ্রান্স এবং অর্ধ পৃথিবীর। পৃথিবীর মানুষ তাকে মনে রাখবে একজন রাষ্ট্রনায়ক হিসাবে। কিন্তু কিছু মানুষ তাকে বেশিদিন রাজত্ব করতে দেয়নি এবং তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। একটু ইতিহাসের পাতা থেকে ঘুরে আসলে দেখা যাবে, ফরাসী জাতি সারা বিশ্বে একটি সম্মানিত জাতি, ইউরোপের কেন্দ্রবিন্দু। আর ফ্রান্সের এই সফলতার একমাত্র নায়ক নেপোলিয়ান। নিজের দেশে সম্রাট ছিলেন মর্যাদাবান। কিন্তু বাইরের দেশে তার রূপ ছিলো ভিন্ন। সম্রাটের সাম্রাজ্যবাদী শক্তি অন্য দেশের জন্য হুমকি বলে মনে করা হত। তাই তারা তাকে ভাল দৃষ্টিতে দেখতে পারেনি। তাই সম্রাটের বিরোধী দলগুলো জোট বাঁধে নেপোলিয়ানের বিরুদ্ধে। নিজ দেশের জনমতকে উপেক্ষা করে তার সম্রাজ্য সাম্প্রসারণের প্রধান শত্রু ব্রিটেন, ক্রোয়েশিয়া ও রাশিয়াকে ধ্বংস করে দেশ দখলের নিমিত্তে নেপোলিয়ান ৫ লাখ সৈন্য নিয়ে রাশিয়া আক্রমণ করেন। কিছু দেশ তার আয়ত্বে চলে আসে। রাশিয়া, ব্রিটেন ও ক্রোয়েশিয়া নেপোলিয়নের বেপরোয়া সম্রাজ্য সম্প্রসারণ ঠেকাতে চুক্তিবদ্ধ হয়। শক্র বাহিনীর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আক্রমণে নেপোলিয়ান পরাজিত হয়ে পড়েন এবং এক সময় তিনি রাজত্ব হারান। ক্ষমতাধর নেপোলিয়নের একনায়কতন্ত্রের মসনদ তাকে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে অপদস্থ ও অপমানিত করে স্বৈরশাসকদের তালিকায় যুক্ত করেছে। ক্ষমতান্ধতা তার অভূতপূর্ব জনকল্যাণকর কাজসমূহকে ম্লান করে দেয়।

পল পট
খেমাররুজদের সংগঠক এবং নেতা ছিলেন পল পট। তার নেতৃত্বে খেমাররুজরা ১৯৭৫-৭৯ সাল পর্যন্ত কম্বোডিয়ার শাসন ক্ষমতায় ছিল। তাদের শাসনামলের মাত্র চার বছরে তারা কম্বোডিয়ায় যে পরিমাণ গণহত্যা চালায়, তা পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে ঘৃণ্য এবং নৃশংসতম গণহত্যার একটি বলে পরিচিত। সেই কারণে খেমাররুজদের কুখ্যাত নেতা পল পটকে ইতিহাসের অন্যতম ভয়ঙ্কর, নৃশংস হত্যাকারী এক স্বৈরশাসক বললে খুব একটা বাড়িয়ে বলা হয় না। খেমার রুজ আন্দোলনের নেতা ছিলেন পল পট৷ ক্ষমতায় আরোহণের পরবর্তী ১০ বছরে ৪০ লাখ মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয় তাকে৷ বেশিরভাগের মৃত্যু হয় শ্রম ক্যাম্পে অনাহারে অথবা কারাগারে নির্যাতনের ফলে৷ ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত কম্বোডিয়ার বনে পল পট গেরিলাদের উপস্থিতি ছিল৷নব্বইযের দশকের মাঝামাঝি সময়ে কম্বোডিয়ার নবগঠিত সরকার খেমাররুজদের নিশ্চিহ্ন করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করে। ধীরে ধীরে খেমাররুজদের সংখ্যা আরও কমতে থাকে এবং পল পটের কাছের বন্ধুদের অনেকেই মারা যায় অথবা আত্মসমর্পণ করে। ১৯৯৬ সালে পল পট খেমাররুজদের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন এবং নিজের সৈন্যদের দ্বারাই অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। কম্বোডিয়ার আদালত তার অনুপস্থিতিতেই তার মৃত্যুদন্ডাদেশ দেয়। খেমাররুজরাও তার লোকদেখানো বিচার করে এবং তাকে যাবজ্জীবন গৃহবন্দীত্বের সাজা প্রদান করে।১৯৯৮ সালে খেমাররুজরা পল পটকে কম্বোডিয়ান সরকারের কাছে হস্তান্তর করতে সম্মত হয়। সম্ভবত এ কারণেই ৭২ বছর বয়সী খেমাররুজদের পরাজিত, বন্দী নেতা পল পট আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। মৃত্যুর পর কম্বোডিয়ার সরকার তার মৃতদেহের ময়নাতদন্ত করতে চাইলে খেমাররুজরা তাতে বাধা দেয়। তারা পল পটের মৃতদেহ পুড়িয়ে সে ছাই ছড়িয়ে দেয় উত্তর কম্বোডিয়ার বনাঞ্চলে, যেখানে প্রায় ২০ বছর ধরে পল পট তার বাহিনীকে টিকিয়ে রেখেছিলেন। তার মৃত্যুর মধ্য দিয়েই শেষ হয় কুখ্যাত এক স্বৈরশাসকের জীবনের আখ্যান।

বাশার আল আসাদ
সিরিয়ার বাশার আল আসাদ গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচিত হয়ে বিরোধী সকল মতকে উপেক্ষা করে স্বীয় মতকে চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে আসাদ বিরোধীরা প্রতিবাদ করে। শুরু হয় তার দমন-পীড়ন। এমন সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সাম্রাজ্যবাদীরা তাদের স্বার্থ হাসিল করার জন্য বিরোধীদের উস্কাতে থাকে এবং আসাদ সরকারকে পরাস্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় অস্ত্র ও অর্থ যোগান দিয়ে যাচ্ছে। এর ফলশ্রুতিতে সিরিয়াতে আসাদ সরকার ও বিরোধী জোট এক ভয়াবহ সংঘাতে লিপ্ত হয়েছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন যদি আসাদ ও তার বিরোধী জোট সমস্যা সমাধানে না পৌঁছে তাহলে দেশটিতে এক ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় ঘটবে এবং সিরিয়ার অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে পশ্চিমা বিশ্ব যে ভাবে মাথা ঘামাচ্ছে তাতে এর অবস্থা ইরাকের চাইতেও ভয়াবহ হবে। প্রতিনিয়ত সরকার ও বিরোধীদের সংঘর্ষে বেসামরিক বহু হতাহতের ঘটনা ঘটছে। এর সমাধানে আসাদের লক্ষ্যণীয় ভূমিকা না থাকায় দেশাভ্যন্তরে আসাদের বিরুদ্ধে জনগণ ফুঁসে উঠছে আবার অন্যদিকে বহির্বিশ্বও মাতব্বরি করছে। এতে স্পষ্ট যে আসাদের স্বৈরনীতিই তাকে অপদস্ত করে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ক্ষমতাচ্চ্যুত করবে।

ইয়াহিয়া খান
১৯৬৬ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দায়িত্ব পান ইয়াহিয়া খান৷ সে বছরই স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের কাছ থেকে পাকিস্তানের শাসনভার গ্রহণ করেন তিনি৷ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তার আদেশেই পাকিস্তান সেনাবাহিনী তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তানে হত্যাযজ্ঞ চালায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ হত্যা ও দুই লাখ নারীকে ধর্ষণ করে পাকিস্তানি বাহিনী৷ পরবর্তীতে বাংলাদেশ গণহত্যা নামে পরিচিত এই নৃশংস ঘটনার জন্য দায়ী করা হয় তাকে। এই যুদ্ধে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর ইয়াহিয়া খান জুলফিকার আলী ভুট্টোর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। ইয়াহিয়া খান ১০ই আগস্ট, ১৯৮০ পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে মৃত্যুবরণ করেন।

ফ্রাঁসোয়া দুভেলিয়ে
১৯৫৭ সালে হাইতির ক্ষমতায় বসেন দুভেলিয়ে৷ হাজার হাজার বিরোধী নেতা-কর্মীদের হত্যার নির্দেশ দেন তিনি৷ কালো জাদু দিয়ে মানুষকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখেন, এমন দাবিও করতেন তিনি৷ হাইতিয়ানদের কাছে ‘পাপা ডক’ নামে খ্যাত ছিলেন এই স্বৈরশাসক। ১৯৭১ সালে মৃত্যুর পর তার ১৯ বছর বয়সি ছেলে জ্যঁ ক্লদ দুভেলিয়ে স্বৈরশাসক হন৷

অগাস্তো পিনোশে
চিলির সামরিক বাহিনীর প্রধান অগাস্তো পিনোশে দেশটির সমাজতান্ত্রিক সরকারকে উচ্ছেদ করে ক্ষমতা দখল করেন ১৯৭৩ সালে৷ ক্ষমতায় আসার পর দেশ থেকে বামপন্থা নির্মূলের লক্ষ্যে হাজার হাজার বিরোধী কর্মীকে হত্যা নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে পিনোশের বিরুদ্ধে৷চিলির সাবেক সামরিক শাসক জেনারেল অগাস্তো। পিনোশের শাসনামলে যেসব মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছিল বলে তালিকাভুক্ত হয়েছে, তাদের চেয়ে অনেক বেশি লোক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা তদন্তে গঠিত একটি কমিশন এ তথ্য পাওয়ার কথা দাবি করেছে। কমিশনের পরিচালক মারিয়া লুইসা সেপুলভেদা বলেন, তাঁরা আরও নয় হাজার ৮০০ ব্যক্তিকে শনাক্ত করেছেন, যাঁদের রাজনৈতিক বন্দী হিসেবে আটক করে নির্যাতন করা হয়েছিল। এ নিয়ে নির্যাতনের শিকার মানুষের সংখ্যা দাঁড়াল ৪০ হাজার ৮০ জনে।

রবার্ট মুগাবে
জিম্বাবুয়ের রবার্ট মুগাবে, ১৯৮০ সালে দেশটি ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে মুগাবে শাসন ভার নিয়েছেন। ৩৩ বছর ধরে তার শাসনই চলে আসছে। নতুন সংবিধানের অধীনে প্রথম নির্বাচনে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট মুগাবে ৬১ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়লাভ করে। যদিও বিরোধীরা এ নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন বলে দাবি করেছেন। দেশটিতে আবার সরকারবিরোধী আন্দোলন ও সহিংসতার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা। ১৯৯৬ সালের দিকে জিম্বাবুয়ের সাধারণ মানুষের মধ্যে মুগাবের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ব্যাপক অসন্তোষ দেখা দেয়। উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি, শ্বেতাঙ্গদের জমি কোনো ক্ষতিপূরণ ছাড়াই বাজেয়াপ্ত করা, জিম্বাবুয়েকে সাংবিধানিকভাবে একদলীয় রাষ্ট্রে পরিণত করা ইত্যাদি কারণ তাকে স্বাধীন জিম্বাবুয়ের নায়ক থেকে ধীরে ধীরে খলনায়কে পরিণত করে।একদা শক্ত হাতে দেশ চালানো এ নেতা ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সালে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মুগাবের শুরুটা ছিল জনপ্রিয় নেতা হিসেবে, কিন্তু ক্ষমতার অন্ধ প্রকোষ্ঠে কোথায় যেন সেই জনপ্রিয়তা হারিয়ে তিনি পরিণত হয়েছিলেন একনায়কে। যে জনগণের স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছিলেন যৌবনে, তারাই তার বার্ধক্যে স্বৈরাচারীর তকমা এঁটে বিদায় জানায়।

হোসনী মোবারক 
মিসরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলীর পর হোসনী মোবারক সে দেশের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী শাসক। আরব বিশ্বে লম্বা সময় দেশ শাসন করছেন অনেকে। হোসনী মোবারক তাদের অন্যতম। ১৯৮১ সালের ৬ অক্টোবর সেনাবাহিনী এক সদস্য কর্তৃক তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সা’দাত নিহত হওয়ার পর হোসনী মোবারক ক্ষমতায় আসেন। জাতীয় নির্বাচনে পার্লামেন্ট অনুমোদিত মাত্র একজন প্রার্থী অংশ নিয়েছিলেন সেই প্রার্থী ছিলেন হোসনী মোবারক। ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার দায়ে বিশ্বজুড়ে তিনি নিন্দিত। মিসরে গণজাগরণের মাধ্যমে তাকে লাঞ্ছিত হয়ে ক্ষমতাচ্যুত হতে হয়। আর বর্তমান মিসরের রাজনৈতিক উত্তপ্ততার জন্য তাকেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা দায়ী করছেন।

সাদ্দাম হোসেন
ইরাকের স্বৈরাচারী একনায়ক সাদ্দাম হোসেনের পতন হয় ২০০৩ সালে। সে সময় ইরাকে বহু অস্থিরতা, অনিশ্চয়তা ও রক্তক্ষয় দেখা গেছে। সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর তার হত্যাকা- নিয়ে মূল্যায়নের শেষ নেই। বলা হয়ে থাকে একনায়তান্ত্রিক শাসন ও অন্যান্য দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ককে গুরুত্ব না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে ক্ষেপে ওঠে পশ্চিমা বিশ্ব। আর তাই তাকে জনমত নিয়ে জনসম্মুখে মৃত্যুদ- দেয়া হয়। বিদেশী প্রভুদের যতই হস্তক্ষেপ থাকুক না কেন জনগণ যদি তার সাথে থাকত তাহলে হয়তবা এই পরিণতি হত না। সাদ্দামের জনবিচ্ছিন্ন বেপরোয়া শাসননীতিতে মার্কিনীরা যেমন তাকে ক্ষমতাচ্যুৎ করতে সচেষ্ট হয় একি ভাবে ইরাকী জনগণও তার বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করে। তার স্বৈরনীতির শেষ ফল হিসেবে ২০০৬ সালে মার্কিন সেনারা তাকে টেনেহিঁচড়ে গর্ত থেকে বের করে এবং ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলায়। এ ধরনের শাসকরা তাদের স্বৈরনীতির কারণেই লাঞ্ছিত হয় বা মৃত্যুমুখে পতিত হয় শুধু তাই নয় বরং একটি জাতিকেও মেরুদ-হীন করে অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে ঠেলে দেয়। 

ইদি আমিন
উগান্ডার স্বৈরাচারী কসাই ইদি আমি।আফ্রিকার দেশ উগান্ডার ক্ষমতায় সাত বছর ছিলেন ইদি আমিন৷ ‘দ্য বুচার অব উগান্ডা’ নামে সমধিক পরিচিত ইদি আমিন দাদা আফ্রিকার ইতিহাসে অন্যতম বর্বর ও স্বৈরাচারী একনায়ক। ১৯৭০ এর দশকে উগান্ডায় সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় আরোহণ করেন এবং আট বছরের শাসনামলে ১ লক্ষের অধিক মানুষকে হত্যা, গুম, নির্যাতন, নির্বাসন কিংবা ফাঁসি দেন এই উগান্ডান কসাই। লিবিয়ায় দশ বছর কাটানোর পর ১৯৮৯ সালে সৌদি আরবে চলে যান ইদি আমিন। এতে আরো একবার প্রমাণ হয়ে যায় যে, স্বৈরাচারী শাসক যত শক্তিশালীই হোক, তার পতন অনিবার্য, তার শেষটা হয় করুণভাবে। বরং নিজের কর্মকাণ্ডের জন্য তারা চিরকাল মানুষের ঘৃণার পাত্র হয়ে থাকেন। তবে এই সংখ্যাটি অনেক হিসেবে ৫ লক্ষও ছাড়িয়েছে!উৎখাত হওয়ার পর সৌদি আরবে পালিয়ে গিয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বিলাসী জীবনযাপন করেছেন এই একনায়ক৷সেখানেই নির্বাসন জীবনে ২০০৩ সালের ১৬ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন ‘বুচার অব উগান্ডা’ নামে কুখ্যাত এই একনায়ক। 

কিম ইল সুং
কিম ইল সুং উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে তার অধিকার প্রয়োগ অনেক সময়-ই স্বৈরাচার হিসেবে বর্ণিত হয়, তিনি সর্বব্যাপী নিজেকে আর্চনীয় ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। তার দায়িত্ব পালনের সময়, ৬ জন দক্ষিণ কোরীয় রাষ্ট্রপতি, ৭ জন সোভিয়েত রাষ্ট্রনায়ক, ১০ জন মার্কিন রাষ্ট্রপতি, ১০ জন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, ২১ জন জাপানী প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রক্ষমতায় পালাবদল করে দায়িত্ব পালন করেছে। উত্তর কোরিয়ার এই নেতাই দেশটিতে কিম বংশের শাসন চালু করেন৷ ১৯৫০ সালে উত্তর কোরিয়া দখল করে দক্ষিণ কোরিয়ায় অভিযান চালালে শুরু হয় কোরিয়ান যুদ্ধ৷ এই যুদ্ধে মার্কিন সেনা এবং জাতিসংঘের সেনারাও জড়িয়ে পড়ে৷ এ যুদ্ধে উভয় পক্ষে মারা যান ১০ লাখেরও বেশি মানুষ৷১৯৯৪ সালের ৮ জুলাই কোরিয়ার পিয়ং ইয়াংয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

মুয়াম্মার গাদ্দাফি
৪২ বছর ধরে লিবিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন মুয়াম্মার গাদ্দাফি৷ হাজার হাজার মানুষকে, বিশেষ করে গণতন্ত্রকামীদের নির্বিচারে হত্যা ও নারীদের ধর্ষন, যৌন নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে তার শাসনামলে৷লিবিয়ার মুয়াম্মার গাদ্দাফি জনপ্রিয় ‘ব্রাদারলি লিডার হলেও তিনি মূলত একনায়ক, স্বৈরশাসক হিসেবেই পরিচিত। দীর্ঘ ৪২ বছর তিনি এক হাতে শাসন করেছেন উত্তর আফ্রিকার দেশ লিবিয়া। দেশ-বিদেশে সুনামের পাশাপাশি তাকে নিয়ে বিতর্কেরও শেষ নেই। গাদ্দাফি ফিলিস্তিনের ‘প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন’র একজন ভক্ত হলেও পশ্চিমাবিরোধী নীতির কারণে গাদ্দাফিকে পশ্চিমারা সব সময়ই নেতিবাচক চোখে দেখেছে। কূটনৈতিক অঙ্গনেও তার প্রতি দৃষ্টি তেমনই। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান নিজেই গাদ্দাফিকে ‘মধ্যপ্রাচ্যের পাগলা কুকুর’ বলে অভিহিত করেন। তারা একাধিকবার গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চেষ্টা চালায়। সর্বশেষ বিদ্রোহীরা তার বাব আল আজিজিয়া প্রাসাদ দখল করে নেয়। সেখান থেকে তার আগেই পালিয়ে যান মুয়াম্মার গাদ্দাফি ও তার পরিবারের সদস্যরা। এর মধ্য দিয়েই মূলত গাদ্দাফির পতন ঘটে। তারপরও তার অনুগতরা লড়াই চালিয়ে যেতে থাকে। সর্বশেষ তারা তার জন্মশহর সির্তে অভিযান চালায়। সেই অভিযানেই গুলিবিদ্ধ হন গাদ্দাফি। দীর্ঘদিন ক্ষমতাসীন থাকার সুবাদে তার মাঝে স্বৈরতান্ত্রিকতা জেঁকে বসে। এমন সুযোগেই জেনারেল গাদ্দাফির পতনের জন্য তার কাছের লোকরাই শত্রুদের সাথে হাত মিলায়। ২০১১ সালে এক অভ্যুত্থানে তাকে উৎখাত ও হত্যা করা হয়৷ তারপর থেকে গৃহযুদ্ধ চলছে দেশটিতে৷

জিয়াউর রহমান
পৃথিবীর ইতিহাসে নিষ্ঠুর স্বৈরশাসক অবৈধভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করে দীর্ঘদিন যাবত দেশ পরিচালনা করেন। যাদের মধ্যে বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নামও রয়েছে। জার্মানির বিখ্যাত গণমাধ্যম ডয়চে ভেলে তার নাম প্রকাশ করেছে। জিয়াউর রহমান ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি আবু সাদাত সায়েম এঁর উত্তরসূরি হিসেবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮১ সালের ৩০ মে পর্যন্ত রাষ্ট্র পরিচালনা করেন। জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তিনি সেনাবাহিনীতে তার বিরোধিতাকারীদের নিপীড়ন করতেন। অনেক উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তা জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন। বিপদের সমূহ সম্ভবনা জেনেও জিয়া চট্টগ্রামের স্থানীয় সেনাকর্মকর্তাদের মধ্যে ঘঠিত কলহ থামানোর জন্য ১৯৮১ সালের ২৯শে মে চট্টগ্রামে আসেন এবং সেখানে চট্টগ্রামের সার্কিট হাউসে থাকেন। তারপর ৩০শে মে গভীর রাতে সার্কিট হাউসে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে জিয়া নিহত হন। 

হু,মো এরশাদ 
এরশাদ সুনিশ্চিতভাবে স্বৈরশাসক ছিলেন। একনাগাড়ে সবচেয়ে বেশিদিন দেশ পরিচালনা করে অবশেষে আন্দোলনের মুখেই পদত্যাগে বাধ্য হন তিনি। সাবেক সেনা শাসক হিসাবে সামরিক শাসন জারি করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের কারণেই এইচ এম এরশাদের পতন হয়েছিল। যার বিচার বাংলাদেশের আদালতে হয়নি। বরং তিনি সংসদ সদস্য হিসাবে এদেশে গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে দুই যুগ দাপিয়ে বেড়িয়েছেন। আন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতা হারানোর পর এরশাদ গ্রেফতার হলে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না-আসা পর্যন্ত কারারূদ্ধ থাকেন। বিএনপি সরকার তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে। তার মধ্যে কয়েকটিতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হন এবং সাজাপ্রাপ্ত হন। । ছয় বছর অবরুদ্ধ থাকার পর ৯ জানুয়ারি ১৯৯৭ সালে তিনি জামিনে মুক্তি পান। শারীরিক অসুস্থতার দরুন ২০১৯ সালের ২৬ জুন তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ৪ জুলাই তাকে নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। তিনি ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী

মা

১.জগতের যতো সুখটুকু আছে
এনে দিয়েছ আমারই কাছে
অতঃপর তুমি লুকায়ে কত
দুঃখ করেছ বরণ;
তোমার সকল আমার জন্য
বিলিয়ে দিয়ে হয়েছ ধন্য
বিশ্বমাঝে অমূল্য তাই
তোমার দুটি চরণ।

২.সুঁইয়ের টানে সম্মুখে যায় মা
পেছন দিকে আঁচল টানে ছেলে
স্বপ্ন বোনে কাঁথার ভাঁজে ভাঁজে
সূর্য ওঠে আঁধার ঠেলে ঠেলে।

৩.গামছায় বেঁধে খাবার এনে দিয়েছে বাবার হাতে
সবটুকু খাও একটি ভাতও থাকে না যেন পাতে;
কতোটা খেয়াল বাবার জন্য কতোটা আদর যত্ন
বাবার বুকে গোপন আবাসে মেয়েরা আজব রত্ন!

আহলান সাহলান

আহলান সাহলান মাহে রামাদানঃ রোযা প্রত্যেক ঈমানদার নর-নারীদের জন্য ফরয

২৪ শে এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৪১এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে : 

আহলান সাহলামন মাহে রামাদান।বাংলাদেশের আকাশে পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামীকাল শনিবার (২৫ এপ্রিল) থেকে শুরু হলো সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। আজ দিবাগত রাতে এশার নামাজের পরে তারাবি নামাজের মধ্যদিয়ে শুরু হবে সিয়াম সাধনা ও তাকওয়া অর্জনের মাস রামাদান। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এবারে এক ভিন্ন আমেজে শুরু হচ্ছে পবিত্র কোরআন শরিফ নাজিলের এই মাসটি। পবিত্র রমজান মাসের এই উৎসবেও পড়েছে করোনার করাল ছায়া। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যেই দোরগোড়ায় পবিত্র রমজান। শত শত বছর ধরে চর্চা করে আসা এই দেশের মুসলিমরা রোযার রাখার পূর্বে তারাবি নামাজ পড়তে অভ্যস্ত। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারা বিশ্বেই মসজিদে নামাজ পড়া বন্ধ রয়েছে। শুধু নিজেকে রক্ষা নয়, সেই সঙ্গে নিজের পাশে থাকা মুসলিম ভাইকে রক্ষার জন্যই এই ব্যবস্থাপনা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন। আগামীকাল শনিবার থেকে বাংলাদেশে শুরু হবে মুসলিমদের জন্য সবচাইতে পবিত্র মাস রমযান। আর এই মাসকে ঘিরে আবারো বিতর্ক শুরু হয়েছে মসজিদে নামাজ পড়ার বিষয়ে। করোনা সংক্রমণ থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ১০ জন মুসল্লি ও দু’জন হাফেজসহ মোট ১২ জন রমজান মাসে মসজিদগুলোতে এশা ও তারাবির নামাজ আদায়ের সুযোগ পাবেন বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ। ইসলামিক ফাউন্ডেশনও বলছে, স্টাফ ছাড়া অর্থাৎ খতিব, ইমাম, মোয়াজ্জিন, খাদেমরা ছাড়া কেউ মসজিদে তারাবি নামাজ আদায় করতে পারবেন না। ঘরেই নামাজ আদায় করতে হবে। নভেল করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় পবিত্র রমজান মাসে তারাবির নামাজ মসজিদের পরিবর্তে ঘরে পড়ার জন মুসল্লিদের আহ্বান জানিয়েছে সরকার। অন্যথায় স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর ব্যবস্থা নেবে।শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) সকালে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (প্রশাসন) দেলোয়ারা বেগম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা বলা হয়েছে।করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি মোকাবেলায় দুই পবিত্র মসজিদ মসজিদুল হারাম ও হারামাইন শরিফাইনে সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে তারাবির নামাজ। মক্কার মসজিদুল হারাম ও মদিনার মসজিদে নববীতে ১০ রাকাত তারাবির নামাজ আদায়ের অনুমতি দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ। বিশ রাকাতের স্থলে তারাবি হবে পাঁচ সালামে মোট দশ রাকাত। দুই পবিত্র মসজিদে ইতিকাফও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর আগে মুসল্লিদের তারাবি, ইফতার ও ঈদের নামাজও ঘরে আদায়ের পরামর্শ দিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। বেতরের নামাজে কুনুতের দোয়া সংক্ষেপ তবে অর্থবহ করে উপস্থাপন করা হবে

রামাদান, কল্যাণ ও বরকতের মাস; রহমত, মাগফিরাত এবং জাহান্নামের অগ্নি থেকে মুক্তি লাভের মাস রোযা রাখার মাস। মহান আল্লাহ এ মাসটিকে বহু ফযীলত ও মর্যাদা দিয়ে অভিষিক্ত করেছেন। তবে এই রোযা কবে থেকে চালু হয়েছিল তার বিশদ বিবরণ পাওয়া খুবই মুশকিল। আল্লাহ তা’আলা পবিত্র কোরআনে বলেন,
” হে ঈমানদারগণ! তোমদের উপর রোযা ফরয করে দেয়া হয়েছে, যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর ফরয করা হয়েছিল, যাতে তোমরা মুত্তাকী হতে পার ।’’ (সূরা আল-বাকারাহঃ ১৮৩)
এ আয়াত দ্বারা বোঝা যায় যে, মুহাম্মদ (স.)-এর পূর্ববর্তী উম্মতগণের ওপরও রোজা ফরজ ছিল।
(ফাতহুল বারী ৪র্থ খণ্ড ১০২-১০৩ পৃষ্ঠা) বর্ণিতঃ হযরত আদম (আঃ) যখন নিষিদ্ধ ফল খেয়েছিলেন এবং তারপর তাওবাহ করেছিলেন তখন ৩০ দিন পর্যন্ত তাঁর তাওবাহ কবুল হয়নি। ৩০ দিন পর তার তাওবাহ কবুল হয়। তারপর তাঁর সন্তানদের উপরে ৩০টি রোজা ফরজ করে দেয়া হয়।
মুসলমানদের জন্য সিয়াম পালন তথা রোযা রাখা ফরয এবং ইসলামের একটি অন্যতম রুকন। পবিত্র রামাদান মাসে যেসব দায়িত্ব ও কাজ শরীয়ত কর্তৃক অর্পিত হয়েছে কিংবা যা পালনে শরীয়ত আমাদের উদ্বুদ্ধ করেছে ও যা বর্জন করতে নির্দেশ দিয়েছে। তা নিষ্ঠার সাথে পালন করতে হবে। রামাদান মাসে শরীয়ত যে নির্দেশ দিয়েছে সেগুলো হলোঃ রমাদান মাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজই হল সিয়াম। সিয়াম হল ফজরের উদয়লগ্ন থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিয়্যাতসহ পানাহার ও যৌন মিলন থেকে বিরত থাকা।
১) রামাদান আল-কুরআনের মাসঃ আল্লাহ এই মাসকে কুরআন নাযিলের মর্যাদাপূর্ণ মাস হিসেবে চয়ন করেছেন। তিনি বলেন-রামাদান মাস – এতে কুরআন নাযিল হয়েছে।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ১৮৫)
২) পবিত্র এ মাসে জান্নাতের দ্বারসমূহ উন্মুক্ত রাখা হয়, জাহান্নামের দ্বারসমূহ রুদ্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তান ও দুষ্ট জিনদের শৃংখলিত করে রাখা হয়।
৩) এ মাসে রয়েছে লাইলাতুল ক্বদেরর ন্যায় বরকতময় রজনী, শান্তিময় এ রজনী, ঊষার আবির্ভাব পর্যন্ত। (সূরা আল-ক্বদরঃ ৩-৫) মহান আল্লাহ বলেন-লাইলাতুল ক্বদর হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।এ রাত্রে ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হন প্রত্যেক কাজে, তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে।
৪) এ মাস দো‘আ কবুলের মাসঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘‘(রামাদানের) প্রতি দিন ও রাতে আল্লাহর কাছে বান্দার দো‘আ কবুল হয়ে থাকে এবং বহু বান্দা জাহান্নাম থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। সহীহ সনদে ইমাম আহমদ কতৃক বর্ণিত, হাদীস নং ৭৪৫০)। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে, তারা যেন এ মাসে রোযা পালন করে।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ১৮৫)। রোযার গুরুত্ব আরো প্রকটিত হয় সে সব ফযীলতের দ্বারা, যাদ্বারা একে বিশেষত্ব দান করা হয়েছে। সে সবের মধ্যে রয়েছেঃ
১. রোযার পুরস্কার আল্লাহ স্বয়ং নিজে প্রদান করবেনঃ
একটি হাদীসে কুদসীতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-আল্লাহ বলেন, ‘‘বনী আদমের সকল আমল তার জন্য, অবশ্য রোযার কথা আলাদা, কেননা রোযা আমার জন্য এবং আমিই এর পুরস্কার দিব।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫, ৫৫৮৩ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬০)
২. রোযা রাখা গোনাহের কাফফারা স্বরূপ এবং ক্ষমালাভের উপায়ঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সাওয়াবের আশায় রামাদান মাসে রোযা রাখবে, তার পূর্বের সকল গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯১০ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৮১৭)
৩. রোযা জান্নাত লাভের পথঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-জান্নাতে একটি দরজা রয়েছে যাকে বলা হয় ‘রাইয়ান’ – কিয়ামতের দিন এ দরজা দিয়ে রোযাদারগণ প্রবেশ করবে। অন্য কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না….. রোযাদারগণ প্রবেশ করলে এ দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে আর কেউ সেখান দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৭৯৭ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬৬ )
৪. রোযাদারের জন্য রোযা শাফায়াত করবেঃ
উত্তম সনদে ইমাম আহমাদ ও হাকেম বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-‘‘রোযা এবং কুরআন কিয়ামতের দিন বান্দার জন্য শাফায়াত করবে। রোযা বলবে, হে রব! আমি তাকে দিবসে পানাহার ও কামনা চারিতার্থ করা থেকে নিবৃত্ত রেখেছি।
অতএব, তার ব্যাপারে আমাকে শাফায়াত করার অনুমতি দিন…..।’’ (মুসনাদ, হাদীস নং ৬৬২৬, আল-মুস্তাদরাক, হাদীস নং ২০৩৬)
৫. রোযাদারের মুখের দুর্গন্ধ আল্লাহর কাছে মিসকের সুগন্ধির চেয়েও উত্তমঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যার হাতে মুহাম্মাদের প্রাণ তার শপথ! রোযাদারের মুখের গন্ধ কিয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে মিসকের চেয়েও সুগন্ধিময়।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮৯৪ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬২)
৬. রোযা ইহ-পরকালে সুখ-শান্তি লাভের উপায়ঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-রোযাদারের জন্য দু’টো খুশীর সময় রয়েছে।
একটি হলো ইফতারের সময় এবং অন্যটি স্বীয় প্রভু আল্লাহর সাথে মিলিত হওয়ার সময়।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫ ও সহীহ মুসলিম, হদীস নং ২৭৬৩)
৭. রোযা জাহান্নামের অগ্নি থেকে মুক্তিলাভের ঢাল স্বরূপঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় একদিন রোযা রাখে, আল্লাহ তাকে জাহান্নাম থেকে সত্তর বৎসরের দূরত্বে নিয়ে যান।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ২৬৮৫ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬৭ )
ইমাম আহমাদ বিশুদ্ধ সনদে বর্ণনা করেন – রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘রোযা ঢাল স্বরূপ-যদ্বারা বান্দা নিজেকে আল্লাহর আযাব থেকে রক্ষা করতে পারে, যেভাবে তোমাদের কেউ একজন যুদ্ধে নিজেকে রক্ষা করে।’’ (মুসনাদ, হাদীস নং ১৭৯০৯)
সিয়ামের সাথে সংশ্লিষ্ট আমল সমূহঃ
১. রোযার নিয়্যাতঃ
রাতেই রোযার নিয়্যাত করতে হবে। সুনান আন-নাসাঈ গ্রন্থে বিশুদ্ধ সনদে বর্ণিত হয়েছে যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘যে ব্যক্তি ফজর উদয়ের পূর্বে, রাতেই রোযার নিয়্যাত করেনা, তার রোযা হবে না।’’ (সুনান আন-নাসাঈ, হাদীস নং ২৩৩২)
২. দেরী করে সেহেরী খাওয়াঃ
সেহেরী খাওয়া একটি বরকতময় বৈশিষ্ট্য যা আল্লাহ এ উম্মাতকে দান করেছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘আমাদের রোযা ও আহলে কিতাবের রোযার মধ্যে পার্থক্য হলো সেহেরী খাওয়া।’’ (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৪)। সেহেরী বরকতময় হওয়ার প্রমাণ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বাণী-‘‘তোমরা সেহেরী খাও, কেননা সেহেরীতে রয়েছে বরকত।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮২৩ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৩ )। দেরী করে সেহেরী খাওয়ার দলীল হল, আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু যায়েদ বিন সাবেত রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণনা করেন,‘আমরা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সেহেরী খেয়েছি। অত:পর তিনি নামাযে দাঁড়ালেন।’’ আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু তখন জিজ্ঞাসা করলেন, আযান ও সেহেরীর মধ্যে কতটুকু সময়ের পার্থক্য ছিল? যায়েদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বললেন, ‘‘পঞ্চাশটি আয়াত পরিমাণ।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮২১ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৬ )
৩. তাড়াতাড়ি ইফতার করাঃ
সূর্য অস্ত যাওয়া নিশ্চিত হলে তাড়াতাড়ি ইফতার করা রোযাদারের জন্য মুস্তাহাব। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘মানুষ ততক্ষণ পর্যন্ত কল্যাণের উপর থাকবে, যতক্ষণ পর্যন্ত তারা অনতিবিলম্বে ইফতার করবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮৫৬ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৮)
৪. কি দিয়ে ইফতার করতে হবেঃ
আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন-নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ‘রুতাব’ (শুকনা নয় এমন) খেজুর দিয়ে নামাযের আগে ইফতার করতেন, রুতাব পাওয়া না গেলে শুকনা খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। তাও পাওয়া না গেলে তিনি কয়েক ঢোক পানি পানে ইফতার করতেন।’’ (উত্তম সনদে ইমাম আহমাদ, হাদীস নং ১২৬৭৬ ও আবু দাউদ, হাদীস নং ২৩৫৬)
৫. রোযাদারকে ইফতার করানোঃ
সহীহ সনদে তিরমিযী ও আহমাদ বর্ণনা করেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি কোন রোযাদারকে ইফতার করায়, সে উক্ত রোযাদারের সাওয়াবের কোনরূপ ঘাটিত না করেই তার সমপরিমাণ সওয়াব লাভ করবে।’’ (সুনান তিরমিযী, হাদীস নং ৮০৭ ও মুসনাদ আহমাদ, হাদীস নং ১৭০৩৩)
যে সকল আমলের মাধ্যমে মু’মিন ব্যক্তি রামাদান মাসে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারে, তন্মধ্যে কিয়ামুল লাইল সবচেয়ে উত্তম। কিয়ামুল লাইল তারাবীহ, তাহজ্জুদ এবং রাতের যে কোন নফল নামায এর অন্তর্ভূক্ত। কিয়ামুল লাইল ছিল নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও তার সাহাবীদের নিয়মিত আমল। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন-‘‘কিয়ামুল লাইল ত্যাগ করো না। কেননা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা ত্যাগ করতেন না। অসুস্থ হলে কিংবা অলসতা বোধ করলে তিনি বসে নামায পড়তেন।’’ (মুসনাদ আহমাদ, হাদীস নং ২৬১১৪ ও সুনান আবি দাঊদ, হাদীস নং ১৩০৭)। রামাদানে কিয়ামুল লাইলের আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। তাই নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি রামাদান মাসে ঈমানের সাথে এবং সওয়াবের আশায় (রাতের নামাযে) দাঁড়ায় তার পূর্ববর্তী সকল গোনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯০৫ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৮১৫)।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘ফরয নামাযের পর সর্বোত্তম নামায হচ্ছে রাতের নামায”। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং: ২৮১২)। রাতের নামাযের প্রশংসায় আল্লাহ বলেন-‘‘রহমানের বান্দাহ তারাই, যারা পৃথিবীতে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং মূর্খ ব্যক্তিরা যখন তাদেরকে সম্বোধন করে কথা বলে, তখন তারা বলে, ‘সালাম’ এবং যারা রাত্রিযাপন করে তাদের পানলকর্তার উদ্দেশ্যে সেজদাবনত হয়ে ও দন্ডায়মান হয়ে’’। (সূরা আল-ফুরকান: ৬৩-৬৪) আল্লাহ অন্যত্র বলেন-‘‘রাতের কিয়দংশে তারা নিদ্রা যেত এবং রাতের শেষ প্রহরে তারা ক্ষমা প্রার্থনা করত।’’ (সূরা আয-যারিয়াত: ১৭-১৮)
রামাদান মাসে কুরআন তেলাওয়াতে ফজিলতঃ
রামাদান মাস কুরআন নাযিলের মাস। এমাসে কুরআন তেলাওয়াত করা এবং এর মর্ম উপলব্ধি করায় অন্যান্য মাসের চেয়ে বেশী নেকী পাওয়া যায়। অর্থ না বুঝে, চিন্তাভাবনা না করে অন্তরে আল্লাহ ভীতি ও বিনম্রভাব সৃষ্টি না করে কবিতার মত কুরআন আবৃত্তি করে যাওয়া আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া ঠিক নয়। কেননা আল্লাহ নিজেই বলেন-‘‘এটি একটি বরকতময় কিতাব, যা আমি আপনার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, যাতে মানুষ এর আয়াতসমূহ অনুধাবন করে এবং বোধশক্তি সম্পন্ন ব্যক্তিগণ গ্রহণ করে উপদেশ।’’ (সূরা সোয়াদ: ২৯) আল্লাহ তালা আরো বলেন-“সুতরাং যে আমার দেয়া হিদায়াতের পথ অনুসরণ করবে, সে পথভ্রষ্ট হবে না এবং দু:খ কষ্টে পতিত হবে না।’’ (সূরা ত্বা-হা: ১২৩)।
এ মাসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিবরীলের সাথে কুরআন পাঠ করতেন। তাঁর সীরাত অনুসরণ করে প্রত্যেক মু’মিনের উচিত এ মাসে বেশী বেশী কুরআন তেলাওয়াত করা, বুঝা এবং আমল করা। ইবনু আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন-“জিবরীল রামাদানের প্রতি রাতে এসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সাক্ষাৎ করতেন এবং তাকে নিয়ে কুরআন পাঠ করতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩০৪৮)
যে ব্যক্তি কুরআন পাঠ করে এবং সে অনুযায়ী আমল করে, তার ব্যাপারে আল্লাহ এ নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, সে দুনিয়ায় ভ্রষ্ট হবে না এবং আখিরাতে দুর্ভাগা – হতভাগাদের অন্তর্ভুক্ত হবে না।
উসমান রাদিয়াল্লাহু আনহু রামাদানে প্রতিদিন একবার কুরআন খতম করতেন। সালাফে সালেহীন নামাযে ও নামাযের বাইরে কুরআন খতম করতেন। রামাদানের কিয়ামুল লাইলে তাদের কেউ তিনদিনে, কেউ সাতদিনে এবং কেউ দশদিনে কুরআন খতম করতেন।
রামাদান মাসে দান খয়রাত ও সদকা প্রদানঃ
পবিত্র রামাদান মাসে আল্লাহর রাস্তায় বেশী বেশী দান ও সদকা করা আল্লাহর রাস্তায় দান-সদকা ও ব্যয় করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। এ মাসে সামর্থবান ব্যক্তিবর্গ এ ইবাদাত পালন করে সে ব্যাপারে ইসলাম ব্যাপক উৎসাহ প্রদান করেছে। কেননা রামাদান মাসে এ ইবাদাতের তাৎপর্য ও গুরুত্ব আরো বহুলাংশে বৃদ্ধি পায়। ইমাম বুখারী ইবনে আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করেন যে, “রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সকল মানুষের চেয়ে বেশী দানশীল ছিলেন।
আর রামাদান মাসে যখন জিবরীল তার সাথে সাক্ষাতে মিলিত হতেন তখন তিনি আরো দানশীল হয়ে উঠতেন”। জিবরীলের সাক্ষাতে তিনি বেগবান বায়ুর চেয়েও বেশী দানশীল হয়ে উঠতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩০৪৮)
রামাদান মাসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দানশীলতা বহুগুণে বৃদ্ধি পাওয়ার কারণ মূলত তিনটিঃ
১। রামাদান মাসে দান-সদকাসহ সকল উত্তম আমলের সাওয়াব বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। কুরআনের বহু আয়াতে আল্লাহর রাস্তায় ব্যয়ের প্রতি উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে।
আল্লাহ বলেন-‘‘কে সে, যে আল্লাহকে করযে হাসানা প্রদান করবে? অত:পর তিনি তার জন্য তা বহুগুণে বৃদ্ধি করবেন।’’ (সূরা আল-বাকারাহ : ২৪৫)
২। “যারা নিজেদের ধনসম্পদ আল্লাহর পথে ব্যয় করে, তাদের উপমা একটি শস্যবীজ, যা সাতটি শীস উৎপাদন করে, প্রত্যেক শীষে একশত শস্যদানা । আর আল্লাহ যাকে ইচ্ছা বহুগুণে বৃদ্ধি করে দেন।আর আল্লাহ দানশীল সর্বজ্ঞ।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ২৬১)
‘‘দেখ, তোমরাই তো তারা, যাদেরকে আল্লাহর পথে ব্যয় করার আহবান জানানো হচ্ছে। অথচ তোমাদের কেউ কেউ কৃপণতা করছে। যারা কৃপণতা করছে, তারা নিজেদের প্রতিই কৃপণতা করছে। আল্লাহ অভাবমুক্ত এবং তোমরা অভাবগ্রস্ত।’’(সূরা মুহাম্মাদ: ৩৮)
৩। রামাদানের প্রতি রাতে জিবরীলের সাক্ষাতে তিনি ভীষণভাবে দান করতে অনুপ্রাণিত হতেন। যেমন সহীহ বুখারীর বর্ণিত হাদীসে বলা হয়েছে।
রামাদান মাসে উমরা পালনের ফজিলতঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘রামাদান মাসে উমরা করা হজ্জের সমতুল্য’’ অথবা ‘‘আমার সাথে হজ্জ করার সমতুল্য’’। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং১৬৯০ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১২৫৬)
ইতেকাফঃ রামাদান মাসের শেষ দশদিন ইতেকাফে বসা অতি উত্তম ইবাদাত। শুরুতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের প্রথম দশদিন ইতেকাফে বসেন। এরপর লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে মাঝের দশদিন ইতেকাফে বসেন। এরপর যখন লাইলাতুল ক্বদর শেষ দশদিনে হওয়া স্পষ্ট হয়ে গেল, তখন থেকে তিনি শেষ দশদিন ইতেকাফে বসতে লাগলেন। অত:পর তার মৃত্যুর পর তার স্ত্রীগণ ইতেকাফে বসেন। হাদীসে এসেছে, “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের প্রথম দশদিন ইতেকাফ করেন। (সাহাবারা বলেন) আর আমরাও তার সাথে ইতেকাফ করলাম। এরপর জিবরীল আসলেন এবং বললেন, যা আপনি অনুসন্ধান করছেন তা আপনার সামনে রয়েছে। এরপর তিনি মাঝের দশদিন ইতেকাফ করলেন। (সাহাবারা বলেন)আমরাও তার সাথে ইতেকাফ করলাম। এরপর জিবরীল আসলেন এবং বললেন, যা আপনি অনুসন্ধান করছেন তা আপনার সামনে রয়েছে। তারপর বিশ রামাদান নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খুতবা দিলেন এবং বললেন, যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে ইতেকাফ করেছে সে যেন ফিরে আসে…..”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৭৮০)
রামাদানের শেষ দশদিনে লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে ব্যাপৃত থাকাঃ এ সম্পর্কে আরো বহু হাদীস রয়েছে যার সারকথা হলো – লাইলাতুল ক্বদর রামাদানের শেষ দশদিনের যে কোন রাত্রে হতে পারে। তবে বেজোড় রাত্রিসমুহের যে কোন একটিতে হুওয়ার সম্ভাবনা বেশী। অনেক উলামার মতে – সবচেয়ে বেশী সম্ভাবনাময় হল ২৭ তম রাত্রি। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘‘যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং সওয়াবের আশায় ক্বদরের রাত্রিতে (নামাযে) দাঁড়ায়, তার পূর্ববর্তী সকল গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হল”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০২)
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের শেষ দশ রাতে নিজে লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে ব্যাপৃত থাকতেন এবং পরিবার পরিজনকে জাগিয়ে দিতেন। ইমাম মুসলিম আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণনা করেন-‘‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের শেষ দশদিনে আল্লাহর ইবাদাতে এতটা পরিশ্রম করতেন যা তিনি অন্য সময় করতেন না”। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৮৪৫) সহীহ বুখারী ও মুসলিমের বর্ণনায় আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন-‘‘যখন রামাদানের শেষ দশদিন এসে যেত, তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পরনের কাপড় মজবুত করে বাঁধতেন। (অর্থাৎ দৃঢ়তার সাথে প্রস্তুতি নিতেন) এবং নিজে রাত্রে জাগতেন এবং পরিবার পরিজনকেও জাগাতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯২০ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৮৪৪) তিনি সাহাবাদেরকেও লাইতুল ক্বদর অনুসন্ধান এ ব্যাপৃত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন-“তোমরা শেষ দশদিনের বেজোড় রাতে এ রাত্রি তালাশ করো”। (সুনান আত-তিরমিযী, হাদীস নং ৭৯২)
রামাদান মাসে বেশী বেশী দো‘আ, যিকর এবং ইস্তেগফার করার ফজিলতঃ
রামাদান মাস দো‘আ কবুল হওয়ার খুবই উপযোগী সময়, যেমন প্রবন্ধের শুরুতে একটি হাদীসের বর্ণনায় বলা হয়েছে। রামাদানের দিনগুলোতে পুরো সময়টাই ফযীলতময়। তাই সকলের উচিত এ বরকতময় সময়ের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করা- দো‘আ, যিকর ও ইসস্তেগফারের মাধ্যমে। তাই পবিত্র রামাদান মাসে সকল প্রকার ইবাদতে নিজেকে ব্যাপৃত রাখা উত্তম। সালাফে সালেহীনও নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অনুকরণে এ মাসকে অধিক গুরুত্ব দিতেন এবং সকল ইবাদাতের জন্য অবসর হয়ে যেতেন। এমন কি ইমাম মলেক রাহেমাহুল্লাহ ও ইমাম যুহরী রাহেমাহুল্লার ন্যায় ব্যক্তিবর্গও শিক্ষাদান ও ফাতওয়ার মত গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছেড়ে বিশেষ ইবাদাত যা ইতিপূর্বে বর্ণিত হয়েছে – তার জন্য নিজেদের নিয়োজিত রাখতেন।
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদান মাসে অন্য মাসের চেয়েও বেশী বেশী ইবাদাত করতেন। আল্লামা ইবনুল কাইয়েম রহ. বলেন, ‘‘রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ ছিল রামাদান মাসে সকল ধরনের ইবাদাত বেশী বেশী করা। তিনি ছিলেন সবচেয়ে দানশীল এবং রামাদানে আরো বেশী দানশীল হয়ে যেতেন, কেননা এ সময়ে তিনি সদকা, ইহসান ও কুরআন তেলাওয়াত, নামায, যিকর ও ইতেকাফ ইত্যাদি সকল প্রকার ইবাদাত অধিক পরিমাণে করতেন। তিনি রামাদানে এমন বিশেষ ইবাদাত সমূহ পালন করতেন যা অন্য মাসগুলোতে করতেন না। (যাদুল মাআ‘দ ১/৩২১)
এমাসের বিশেষ সতর্কতাঃ
রামাদান মাস ফযীলতের মাস এবং আল্লাহর ইবাদাতের প্রশিক্ষণ লাভের মাস হওয়ায় এ মাসে সর্বপ্রকার গোনাহের কাজ পরিত্যাগ করা অধিক বাঞ্ছনীয়। কেননা রামাদান মাসে সৎকাজের সওয়াব ও নেকী বহুগুণে বৃদ্ধি পায়, তাই রামাদানের সম্মান ও ফযীলতের কারণে এ মাসে সংঘটিত যে কোন পাপের শাস্তি অন্য সময়ের তুলনায় ভয়াবহ হবে এটাই স্বাভাবিক। তাই পবিত্র এ মাসে শরীয়ত সকল প্রকার পাপ কাজ বর্জন করতে নির্দেশ দিয়েছে। শরীয়তের পক্ষ থেকে মূলত: ছোট-বড় সকল গোনাহ ও পাপ সর্বদা বর্জন করার নির্দেশ এসেছে। এজন্যেই রোযাদারদের উচিত তাকওয়া বিরোধী সকল প্রকার মিথ্যা কথা ও কাজ পরিপূর্ণভাবে বর্জন করা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি (রোযা রেখে) মিথ্যা কথা ও সে অনুযায়ী কাজ করা বর্জন করে না তবে তার শুধু খাদ্য ও পানীয় বর্জন করায় আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৪) ‘‘মিথ্যা কথা ও তদনুযায়ী কাজ’’ কথাটি দ্বারা মূলত: রোযা অবস্থায় উম্মতের সকলকে পাপাচারে লিপ্ত হওয়ার ব্যাপারে সাবধান করা হয়েছে। আর ‘‘আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই’’ কথাটি দ্বারা রোযা অসম্পূর্ণ হওয়ার, কিংবা কবুল না হওয়ার অথবা রোযার সওয়াব না হওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করা হয়েছে।
অন্য আরেকটি হাদীসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘তোমাদের কেউ রোযার দিনে অশ্লীল কথা যেন না বলে এবং শোরগোল ও চেঁচামেচি না করে। কেউ তাকে গালমন্দ করলে বা তার সাথে ঝগড়া করলে শুধু বলবে, আমি রোযাদার ।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫)
উপরোক্ত হাদীস দু’টোর আলোকে সারকথায় আমরা বলতে পারি যে, আমাদের ঈমান, আমল ঠিক রেখে ইসলামী বিরোধী সকল কাজ বিশেষভাবে রামাদানে এবং আমভাবে সর্বদাই বর্জন করতে হবে। তাহলে আমাদের সিয়াম সাধনা হবে অর্থবহ এবং এ সাধনার মূল লক্ষ্য তাকওয়া অর্জন করা হবে সহজসাধ্য।
উপসংহারে বলা যায় ত্বাকওয়া অর্জনের এ মুবারক মাসে মুমিনদের উপর অর্পিত হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব, সৃষ্টি হয়েছে পূণ্য অর্জনের বিশাল সুযোগ এবং প্রবৃত্তিকে নিয়ন্ত্রণ করে মহান চরিত্র অর্জনের সুন্দর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা। মুমিনদের উপর এ মাসের অর্পিত দায়িত্ব পালন এবং সুবর্ণ সুযোগের সদ্ব্যবহার করে আজ সারা বিশ্বের মুসলিমদের উচিত চারিত্রিক অধ:পতন থেকে নিজেদের রক্ষা করা, নেতিয়ে পড়া চেতনাকে জাগ্রত করা এবং সকল প্রকার অনাহুত শক্তির বলয় থেকে মুক্ত হয়ে হক প্রতিষ্ঠার প্রতিজ্ঞাকে সুদৃঢ় করা, যাতে তারা রিসালাতের পবিত্র দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারে এবং কুরআন নাযিলের এ মাসে কুরআনের মর্ম অনুধাবন করতে পারে, তা থেকে হিদায়াত লাভ করতে পারে এবং জীবেনের সর্বক্ষেত্রে একেই অনুসরণের একমাত্র মত ও পথ রূপে গ্রহণ করতে পারে।

মহান আল্লাহ আমাদেরকে পবিত্র রামাদান মাসের সকল ফজিলত ও বরকত দান করুন এবং তার সকল আদেশ নির্দেশ মেনে তাকওয়া অর্জন নসিব করুন। আমিন-

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী

আজ মালয়িশিয়াতে কেউ করোনা ভাইরাসে মারা যায়নি।

আজ মালয়েশিয়াতে কেউ করোনা ভাইরাসে মারা যায়নি

২০ শে এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৩৩এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে : 

ব্রিফিং করছেন মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মহাপরিচালক Datuk Dr Noor Hisham Abdullah

১৮ মার্চ ২০২০ তারিখে লকডাউন ঘোষণা করার পর থেকে আজ এই প্রথম মালয়েশিয়াতে COVID 19 এর সব চেয়ে ভালো খবর এসেছে। নতুন রোগী রেকর্ডভুক্ত হয়েছে মাত্র হয়েছে মাত্র ৩৬ জন । 

আর সব চেয়ে ভালো খবর হলো আজকে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত কেউ মারা যায়নি। তার মানে এপ্রিল মাসে এই প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কেউ মারা যায়নি। 

রাজধানী পুত্রাজায়াকে মালয়েশিয়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয় এ তথ্য প্রকাশ করেন। মহাপরিচালক মহোদয়ের ইতোমধ্যেই মালয়েশিয়াতে হিরো অফ দা আওয়ার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে ফেলেছেন। চীনের একটি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক তাঁকে পৃথিবীর তিন জন আদর্শ ডাক্তারের এক জন হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। 

আজকে চতুর্থ দিন যাতে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ২ ডিজিটে সীমাবদ্ধ থাকল এবং আজকের সংখ্যাটি বিগত দিনগুলোর (লক ডাউন এর তারিখ থেকে শুরু করলে ) মধ্যে সর্বনিম্ন। 

ভাইরাস মালয়েশিয়াতে আসার পর থেকে এ পর্যন্ত সর্বমোট রোগী রেকর্ডভুক্ত হয়েছে ৫,৪২৫ জন। এদের মধ্য থেকে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন ৩, ২৯৫ জন। 

এর মানে এই যে, বর্তমানে ২,০৪১ জন রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে মাত্র ৪৫ জন রোগী ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট বা আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৮ জনের ভেন্টিলেশন লাগছে। 

এ পর্যন্ত সর্বমোট ৮৯ জন রোগী মারা গেছেন। 

মোট পজিটিভ কেসকে বিবেচনায় নিলে মালয়েশিয়াতে রিকভারি রেট হচ্ছে ৬০.৭৪%। 

আজ মালয়েশিয়াতে লক ডাউন এর ৩৪ তম দিন অতিবাহিত হচ্ছে। জনসাধারণকে ঘরে অবস্থান করার জন্য সরকার থেকে কঠোরভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তৃতীয় দফায় ঘোষিত লকডাউন আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। 

নোবেল বিজয়ী।

নোবেল বিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী আইনস্টাইনের ৬৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ১০:০৪এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে : 

ঊনবিংশ শতাব্দীর সর্ব শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন। তিনি একজন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী। ১৯৯৯ সালে টাইম সাময়িকী আইনস্টাইনকে শতাব্দীর সেরা ব্যক্তি হিসেবে ঘোষণা করে। এছাড়া বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানীদের এক ভোটগ্রহণের মাধ্যমে তাকে প্রায় সবাই সর্বকালের সেরা পদার্থবিজ্ঞানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ‘ধর্ম ছাড়া যে বিজ্ঞান সেটা হল পঙ্গু আর বিজ্ঞান ছাড়া যে ধর্ম সেটা হল অন্ধ’ – বিখ্যাত উতক্তিটি আলবার্ট আইনস্টাইনের। আইনস্টাইন বিজ্ঞান জগতে এক মহাবিপ্লব রচনা করেন। বিশ্ব ও জগৎ সম্পর্কে নিউটনের ধারণা যা প্রচারিত হয়ে আসছিল তা ভেঙে দেন। আবিষ্কার করেন ‘থিওরি অব রিলেটিভিটি’ বা ‘আপেক্ষিক তত্ত্ব’। তিনি বলেন, এই যে চোখের সামনে আমরা বস্তুর গতি ও শক্তি, ‘টাইম’ ও ‘স্পেস’ অর্থাৎ সময় এবং স্থানকে দেখছি, কোনোটাই ‘অ্যাবসলিউট’ বা অপরিবর্তনীয় নয়, অর্থাৎ কোনোটাই ধ্রুব নয়, সবই আপেক্ষিক। বিষয়টা তখনকার বিজ্ঞানীদের জন্য কিছুটা অস্বস্তিকর। কারণ দৃশ্যমান জগতের দিকে সরাসরি আঙ্গুল তুলে আইনস্টাইন বলছেন, যা দেখছ তা সত্যি নয়। যা দেখছ না তাও সত্যি নয়। আবার কোনো কিছুই অসত্য নয়। বিষয়টা অনেকটা এমনই। বস্তুর গতি আর তার সঙ্গে পর্যবেক্ষকের অবস্থানের পরিবর্তনে বদলে যায় সবকিছু। শুধু বদলায় না আলোর গতিবেগ। মহাবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন তো তত্ত্ব দিয়েই শেষ। কিন্তু তার প্রমাণ করে যাচ্ছেন সেই সময় থেকে এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা। তার তত্ত্ব প্রমাণ করে নোবেল পাচ্ছেন বর্তমান সময়ের বিজ্ঞানীরা। তার বুদ্ধির প্রখরতার কারণে বুদ্ধিসম্পন্ন কাউকে বা কোনো কিছুকে বুঝাতে মানুষ ‘আইনস্টাইন’ শব্দটি ব্যবহৃত করে। আজ পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের ৬৫তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৫৫ সালের আজকের দিনে নোবেলজয়ী এ মহাবিজ্ঞানী যুক্তরাষ্ট্রর নিউ জার্সিতে মৃত্যুবরণ করেন। সর্বকালের সেরা পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

আইনস্টাইন ১৮৭৯ সালের ১৪ মার্চ জার্মানির এক মফস্বল শহরে ইহুদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা হেরম্যান আইনস্টাইন ছিলেন ব্যবসায়ী এবং মা পলিন আইনস্টাইন গৃহিণী। আলবার্টের ছেলেবেলা কেটেছিল মিউনিখেই। খুব ছোট থেকেই ভাবুক প্রকৃতির ছিলেন আইনস্টাইন। আইনস্টাইনকে প্রথম স্কুলে পাঠানো হয় পাঁচ বছর বয়সে। কিন্তু স্কুলের ধরা-বাধা পড়াশোনা তার কখনোই ভালো লাগেনি। স্কুলের পড়াশোনায় খুব একটা ভালো ছিলেন না। ক্যাথলিক স্কুলের অতিরিক্ত কড়াকড়িও তার ভীষণ অপছন্দ ছিল। আইনস্টাইন আসলে স্বাধীনচেতা ছিলেন। স্কুল জীবনে আইনস্টাইনের প্রতিভার কোনো প্রতিফলনই দেখা যায়নি। আইনস্টাইনের পাঁচ বছর বয়সে তার বাবা একটি ছোট কম্পাস এনে দেন। শিশু আইনস্টাইন সেটি ঘুরিয়ে ফিরিয়ে যত দেখে ততই মুগ্ধ হয়। যন্ত্রটি যে দিকেই ঘোরানো হোক না কেন কম্পাসের কাঁটা উত্তরমুখী হয়ে যায়। শিশু আইনস্টাইন এতে বিস্ময়াভূত হয়ে পড়ে। এর মাধ্যমেই প্রথম সৃষ্টি জগতের রহস্য নিয়ে চিন্তার বীজ বপন হয়ে যায় তার মধ্যে। ভাবিয়ে তোলে আইনস্টাইনকে। তাই ছোট বয়স থেকেই তাকে বলা হয় ভাবুক প্রকৃতির। আর বড়বেলায় এসেও আইনস্টাইন তার বড় আবিষ্কারগুলোর নেপথ্যে হাতে-কলমে গবেষণার চেয়ে চিন্তা করতেন বেশি। পদার্থবিজ্ঞানের ভাষায় এ চিন্তা-গবেষণার একটা সুন্দর নাম রয়েছে। আর তা হলো ‘চিন্তা-পরীক্ষা’। ছয় বছর বয়সে একরকম জোর করেই মা তাকে বেহালা শেখানোর ব্যবস্থা করেন। নেহাত অনিচ্ছার সঙ্গে শুরু করলেও একসময় এই বাজনাটার প্রতি আইনস্টাইন আকৃষ্ট হন। বেহালা হয়ে ওঠে তার আজীবনের সঙ্গী।

শৈশবের আরেকটি ছোট ঘটনা আইনস্টাইনের জীবনে গভীর ছাপ ফেলেছিল। কৈশোর থেকেই গণিতের প্রতি প্রবল আগ্রহী ছিলেন আইনস্টাইন। বীজগণিতে তার আগ্রহ জাগিয়ে তোলেন কাকা জ্যাকব। মজা করে জ্যাকব বলতেন, আমরা এমন একটি ছোট্ট জন্তু শিকারে বেরিয়েছি, যার নাম জানা নেই। তাই তার নাম দেওয়া হলো ‘ক’। চলো এবার তাকে ধরি, তারপর ঠিক নামটি বের করি। কাকা জ্যাকবের আনন্দদায়ক পাঠদানে আইনস্টাইনকে বীজগণিতের প্রতি আকৃষ্ট করে। যুবক বয়সে সুইজারল্যান্ডের বার্নে পেটেন্ট অফিসে আইনস্টাইন একটি চাকরি পান । তার কাজ ছিল পেটেন্ট সংক্রান্ত আবেদনগুলো পরীক্ষা করা। আইনস্টাইন সুইস পেটেন্ট অফিসে ছিলেন ১৯০২ থেকে ১৯০৯ সাল পর্যন্ত। ১৯০৯ সালে আরও দুটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন। প্রথমটিতে তিনি বলেন, ম্যাক্স প্লাংকের শক্তি-কোয়ান্টার অবশ্যই সুনির্দিষ্ট ভরবেগ থাকতে হবে এবং তা একটি স্বাধীন বিন্দুবৎ কণার মত আচরণ করবে। এই গবেষণাপত্রেই ফোটন ধারণাটির জন্ম হয়। অবশ্য ফোটন শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেছিলেন গিলবার্ট এন লুইস ১৯২৬ সালে। তবে আইনস্টাইনের গবেষণায়ই ফোটনের প্রকৃত অর্থ বোঝা যায় এবং এর ফলে কোয়ান্টাম বলবিজ্ঞানে তরঙ্গ-কণা দ্বৈততা বিষয়ক ধারণার উৎপত্তি ঘটে। তার অন্য গবেষণাপত্রের নাম ছিল “Über die Entwicklung unserer Anschauungen über das Wesen und die Konstitution der Strahlung” (বিকিরণের গাঠনিক রূপ এবং আবশ্যকীয়তা সম্বন্ধে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির উন্নয়ন) যা আলোর কোয়ান্টায়ন বিষয়ে রচিত হয়।

১৯১১ সালে জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন আইনস্টাইন। অবশ্য এর পরপরই চার্লস ইউনিভার্সিটি অফ প্রাগে পূর্ণ অধ্যাপকের পদ গ্রহণ করেন। প্রাগে অবস্থানকালে আলোর উপর মহাকর্ষের প্রভাব বিশেষত মহাকর্ষীয় লাল সরণ এবং আলোর মহাকর্ষীয় ডিফ্লেকশন বিষয়ে একটি গবেষণাপত্র লিখেন। এর মাধ্যমে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা সূর্যগ্রহনের (Solar eclipse) সময় আলোর ডিফ্লেকশনের কারণ খুঁজে পান। এ সময় জার্মান জ্যোতির্বিজ্ঞানী Erwin Freundlich বিজ্ঞানীদের প্রতি আইনস্টাইনের চ্যালেঞ্জগুলো প্রচার করতে শুরু করেন। ১৯৩৩ সালে এডলফ হিটলার জার্মানিতে ক্ষমতার সময় আইন্সটাইন বার্লিন একাডেমি অব সায়েন্সের অধ্যাপক ছিলেন। ইহুদী হওয়ার কারণে আইনস্টাইন সে সময় দেশত্যাগ করে আমিরেকায় চলে আসেন এবং আর জার্মানিতে ফিরে যান নি। আইনস্টাইন পারমাণবিক বোমা ব্যবহারের বিরুদ্ধে ছিলেন। তিনি ব্রিটিশ দার্শনিক বার্টান্ড রাসেলের সঙ্গে মিলে আণবিক বোমার বিপদের কথা তুলে ধরে রাসেল-আইনস্টাইন ইশতেহার রচনা করেন। ১৯৫৫ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব এডভান্সড স্টাডির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ল্যাবরেটরিতে প্রথাগত গবেষণা আইনস্টাইন কখনই করেননি। মস্তিষ্কই ছিল তার ল্যাবরেটরি। আর যন্ত্রপাতি ছিল পেন্সিল আর খাতা। তার পরীক্ষা সবই চলত চিন্তার অসীম জগতে। একে বলা হয়, ‘চিন্তা-পরীক্ষা’ বা ‘থট এক্সপেরিমেন্ট’। জার্মান ভাষায় পর পর আইনস্টাইনের কয়েকটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়। এর মধ্যে ছিল ডক্টরেট ডিগ্রির জন্য থিসিস, ‘ফটো ইলেকট্রিক ইফেক্ট’ অর্থাৎ আলোক তড়িৎ প্রক্রিয়া নিয়ে কাজ। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার ‘স্পেশাল থিওরি অব রিলেটিভিটি’ বা ‘আপেক্ষিক তত্ত্ব’। জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনস্টাইনকে ডক্টরেট ডিগ্রি দেওয়া হয়। ১৯২১ সালে ফটো ইলেকট্রিক ইফেক্টের কাজের জন্যই নোবেল পুরস্কার পান। তবে ১৯০৫ সালে তার প্রকাশিত বিশেষ আপেক্ষিকবাদ বিজ্ঞানী মহলে আইনস্টাইনকে রাজার আসনে বসায়। খ্যাতি এনে দেয় বিশ্বজুড়ে। এসব গবেষণাপত্র অতি উচ্চগণিতের ভাষায় লেখা, গণিতের বিশেষ জ্ঞান ছাড়া যা বোঝা সম্ভব নয়। তবে বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের মূল কথাটি হলো- আলোর গতিবেগই চরম এবং ধ্রুব। আলোর উৎস বা পর্যবেক্ষকের অবস্থান ও গতিবেগ বদলালেও আলোর বেগ একই থাকে। ১৯২১ সালে ফটো ইলেকট্রিক ইফেক্টের কাজের জন্য আইনস্টাইন নোবেল পুরস্কার পান। 

(স্ত্রী মিলেভা মেরিক এবং আইনস্টাইন)
ব্যক্তিগত জীবনে ১৯০৩ সালে টেকনিক্যাল স্কুলের সহপাঠিনী মিলেভা ম্যারিকে বিয়ে করেন আইনস্টাইন। বার্নেতে সংসার শুরু করেন তারা। আইনস্টাইনের দুই সন্তান হ্যান্স আলবার্ট আইনস্টাইন ও এডওয়ার্ড আইনস্টাইন। বিয়ের পাঁচ বছরের মাথায় তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। অথচ স্ত্রী মিলেভা সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, ‘মিলেনা এমন এক সৃষ্টি যে আমার সমান এবং আমার মতই শক্তিশালী ও স্বাধীন।’ ১৯১৯ সালে আইনস্টাইন আবার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তার চাচাতো বোন এলসা আইনস্টাইনের সঙ্গে। কথিত আছে আাইনস্টাইন কথা বলতে শুরু করেন চার বছর বয়সে। আর পড়তে শেখেন আরও পরে; সাত বছর বয়সে। চার বছর পর্যন্ত যখন তিনি কথা বলছিলেন না তখন বিষয়টি নিয়ে পরিবারের সবাই চিন্তিত তখন হঠাৎ একদিন খাবার টেবিলে আইনস্টাইন বলে ওঠেন, ‘স্যুপটা খুবই গরম’! তাকে জিজ্ঞেস করা হলো, ‘এতদিন কেন কথা বলোনি? আইনস্টাইন উত্তর দেন, ‘এতদিন তো সব কিছুই ঠিকঠাক চলছিল।’ এটি ছিল তার জীবনের দ্বিতীয় বাক্য! বিশ্বখ্যাত এ বিজ্ঞানী ছিলেন একটু ভোলাভালা ! একবার আইনস্টাইন ট্রেনে চড়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। চেকার টিকিট দেখতে চাইলে আইনস্টাইন কিছুতেই টিকিট খুঁজে পাচ্ছিলেন না। শুধু বিড়বিড় করছিলেন, ‘কোথায় যে রাখলাম টিকিটটা!’ চেকার বললেন, ‘স্যার, আমি আপনাকে চিনতে পেরেছি। আপনি নিশ্চয়ই টিকিট কেটেই উঠেছেন। আপনাকে টিকিট দেখাতে হবে না।’ আইনস্টাইন তখন চিন্তিত মুখে বলেন, ‘না না! ওটা তো খুঁজে পেতেই হবে! না পেলে জানব কী করে, আমি কোথায় যাচ্ছিলাম!’ এই হলো আইনস্টাইন! ভোলাভালা নোবেলজয়ীএই মহাবিজ্ঞানী ১৯৫৫ সালের ১৮ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রর নিউ জার্সিতে মৃত্যুবরণ করেন। আজ পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের ৬৫তম মৃত্যুবার্ষিকী। সর্বকালের সেরা পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি।

নূর মোহাম্মদ নূরু

India Muslims killer.

The mosque of Allah’s house is not only a house of worship. Because the mosque is the most beloved house of God.

The Prophet Muhammad (peace be upon him) said, “The most exalted place to Allah is the mosque and the worst place is the market” (Sahih Muslim Hadith no. 1).

Oh Allah, give this Taufiq to the believing Muslims so that they can stay longer in the mosque and more likely to meet you.

Finally, I say, ‘O Allah, if there is guidance on the forehead of those who have insulted your house, then give guidance, and if there is no guidance, then destroy them.

Create your website at WordPress.com
Get started