Featured

GET SERIOUS ABOUT YOUR VITAMINS

GET SERIOUS ABOUT YOUR VITAMINS

Today’s nutrient-poor foods only supply 27% of an adult’s
Energy intake. *

beautiful girl sleeps in the bedroom

AM Essentials

GET UP AND GO

Innovative daytime formula +

70 vitamins, minerals, and botanicals

ARE ESSENTIALS INGREDIENTS

Jeunesse Global AMPM Essentials for Daily Use

VITAMINS

  • Vitamin A (as retinyl palmitate and 85% as natural beta-carotene)
  • Vitamin C (as ascorbic acid and ascorbyl palmitate)

          Vitamin D (as cholecalciferol

  • Vitamin E (as d-alpha tocopheryl succinate and from mixed natural tocopherols)
  • Vitamin K (as phytonadione)
  • Thiamin (as thiamin Hal)
  • Riboflavin (as riboflavin and riboflavin-5-phosphate)
  • Niacin (as niacinamide and niacin)
  • Vitamin B6 (as pyridoxine HCl and pyridoxal-5 phosphate)
  • Folate (as Quatrefolic™ (6S)-5-methyltetrahydrofolic acid glucosamine salt [vegan, shellfish-free])
  • Vitamin B12 (as cyanocobalamin)

Biotin, Pantothenic acid (as D-calcium pantothenate)

MINERALS

  • Iodine (as potassium iodide and from kelp)
  • Magnesium (as magnesium oxide and glycinate)

          Zinc (as zinc glycinate)

  • Selenium (as selenomethionine)
  • Copper (as copper lysinate)
  • Manganese (as manganese gluconate)
  • Chromium (as chromium polynicotinate)

Molybdenum (as sodium molybdate)

ROPRIETARY BLENDS

  • A proprietary blend of Soybean lecithin [linoleic acid (10.6%), alpha-linolenic acid (1.3%), oleic acid (1.6%)], Borage seed oil (10% gamma-linolenic acid), Evening primrose oil (4.8% GLA), Fish body oil (4.5% eicosapentaenoic acid, 3.0% docosahexaenoic acid), Fenugreek seed, Turmeric root extract (95% curcuminoids), Quercetin dehydrate, Astragalus root extract, Cayenne pepper fruit, Purslane extract (aerial parts), Vanadium (as vanadyl sulfate)
  • A proprietary blend of Alpha lipoic acid, L-Carnitine tartrate, Coenzyme Q10, L-Carnitine HCl, Betaine HCl, Fisetin [Buxus microphylla Sieb (stem and leaf), Pterostilbene, Resveratrol (from Polygonum cuspidatum root extract), Sulfur (from MSM – methylsulfonylmethane)
  • A proprietary blend of Ginkgo biloba leaf extract (24% ginkgo flavonglycosides, 6% sesquiterpene lactones), Green tea leaf extract (40% catechin and polyphenols), Green barley grass (aerial parts), Anthocyanins (from bilberry fruit and grape skin extracts)
  • A proprietary blend of Klamath blue-green algae, Spirulina algae, Chlorella algae, Fucoxanthin seaweed (whole plant), Nori seaweed extract

A proprietary blend of L-Glutamine, Guarana seed extract (20% caffeine), DMAE bitartrate, Phosphatidylcholine (from soy lecithin), L-Phenylalanine, L-Tyrosine, Cordyceps sinensis mushroom extract (1% cordycepic acid), Gotu kola

leaf, Royal jelly 3X (5% 10-HDA)

OTHER INGREDIENTS

  • Amylase, Neutral protease, Cellulase, Lactase, Lipase
  • N-Acetyl-cysteine, Inositol hexaphosphate
  • Microcrystalline cellulose, stearic acid, croscarmellose sodium, calcium silicate, magnesium stearate, silica and film coat (polyvinyl alcohol, titanium dioxide, polyethylene glycol, and talc).
  • Contains soy and fish (anchovy and sardine).
  • Quatrefolic™ is a trademark of Gnosis S.p.A., Milan, Italy for its advanced 4th generation folate.

Dr. Giampapa’s personal tips for cell health

We all want our cells to age well. It’s easy math: Healthy cells = longer life.

Dr. Vincent Giampapa, a board-certified physician, Nobel Prize nominee, and member of the Jeunesse Scientific Advisory Board, has dedicated his career to the study and practice of preventative medicine. Passionate about empowering people to look, live, and feel young, Dr. Giampapa partnered with Jeunesse to create AM & PM Essentials, two supplements formulated for cell health.*

Through his research, Dr. Giampapa has pinpointed four things that can have a BIG impact on how our cells age now and in the future.

DR. G’S FOUR SIMPLE TIPS TO A MORE VIBRANT, HEALTHIER LIFE

Tip 1: Food – quantity and quality
The first tip for optimum cell health is about proper food quantity and quality. You are what you eat, right? First, let’s talk quantity. In the modern age, most of us always have a smartphone with us. Essentially, it’s a palm computer that can determine how much food we should eat at each meal. Don’t have your phone with you? Good thing your hands are always “handy.” Put your hands together. Dr. Giampapa notes the amount of food that fits in our two palms is a great measure of how much food we should eat at each meal.

Now, let’s move on to quality. Dr. Giampapa recommends that our food at each meal be divided into three equal parts: protein, carbohydrates and fats.

Protein is our primary source of fuel and the most important thing we should be eating. Next is carbohydrates, which should come mainly from fruits and vegetables. And finally, fats. Most of the fats we ingest should come from cold-water fish, seeds, nuts, and EVOO (extra virgin olive oil). According to Dr. Giampapa, when we eat the right quantity of the right foods, we keep our hormones and blood sugar at optimal levels. Fewer cravings mean less snacking!

Tip 2: Exercise – timing, type & duration
The second tip for optimum cell health is: Be sure to exercise. While it’s probably not a surprise exercise is important, keep in mind the timing, type, and duration of exercise make a big difference.

Timing really matters, and the best time to start exercising is first thing in the morning. A quick 10- to 15-minute walk sets our calorie burn rate higher for the whole day. According to Dr. Giampapa, no matter what we’re eating, exercise helps us more quickly metabolize food. In the evening, doing some push-ups or very lightweight work helps reset our cell cycles.

Type of exercise is another key thing we need to focus on, especially as we age. Here are the three types of exercise Dr. Giampapa advises we implement in our daily routine:

  • Aerobic exercise can help keep the heart in good shape and the vascular system clean and responsive to blood pressure.
  • Resistive exercise (weightlifting or yoga) helps keep the cardiovascular system in optimal shape, our muscles toned and bone density strong.
  • Flexibility exercises help with our balance, our movement throughout the day and our ability to avoid injuries as we grow older.

Duration of exercise is a whole new thing once you’re older than 40. Dr. Giampapa says working out for a minute and then resting for two minutes trains both the heart’s ability to pump more blood and its ability to recover. This new approach to exercise has shown to be more beneficial than constantly running on a treadmill. (Translation: Take a breather here and there.)

Tip 3: Manage stress
The third tip for optimum cell health is managing stress. To help us when we don’t manage stress and our bodies produce elevated cortisol, the age-accelerating hormone, Dr. Giampapa suggests: “The best advice I can give anybody, especially in today’s fast-paced world, is to slow down, be in the moment and break the constant sense of time urgency.” He proposes three steps for instant destressing:

  1. Take 4-5 deep breaths (Break the constant flow of thoughts)
  2. Mediate (Clear your mind)
  3. Smile (Change your hormone and stress levels immediately)

Power of belief can also have an impact on our outlook, and a healthy outlook can be regarded as pretty important. Regarding improved cell health, Dr. Giampapa recommends a phrase that, repeated over time, could help retrain our thoughts.

Tip 4: Good Supplements
Dr. Giampapa’s fourth tip for optimum cell health is taking good supplements that help you look and feel better from the inside out. Exclusive to Jeunesse, he developed AM & PM Essentials to target your body’s morning and nighttime needs with two exclusive formulas:

AM Essentials has essential vitamins and key minerals to help you get up and go each morning.
PM Essentials contains key nutrients and exclusive blends to help you have a more restful sleep.*

Wherever you are in your healthful journey, it’s never too late to make small daily changes that will help impact how your cells age – now and in the future.*

*These statements have not been evaluated by the Food and Drug Administration. This product is not intended to diagnose, treat, cure or prevent any disease.

Jeunesse Global MLM Review

Jeunesse Global MLM Review

আরে সমুদ্র পরিবর্তনকারী, এবং আমার এমএলএম পর্যালোচনার ধারাবাহিকটিতে স্বাগতম। আজ আমরা আমার জিউনেস গ্লোবাল এমএলএম রিভিউ সহ একটি ওয়েলনেস এবং বিউটি কোম্পানির দিকে নজর দেব। এটি অন্যতম সুপরিচিত এমএলএম কোম্পানি যারা সরাসরি বিক্রয় শিল্পে সবচেয়ে ফলপ্রসূ ক্ষতিপূরণ পরিকল্পনা তৈরি করতে শুরু করেছে।

দেখা যাক এটি তাদের মতই ফলপ্রসূ কিনা……….

What is MLM?

MLM কি?

মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) প্রোগ্রামগুলি হল ‘পার্টি প্ল্যান’ পণ্যের জগতের প্রধান ভিত্তি যেমন টপারওয়্যার, মেরি কে, এবং অ্যামওয়ে ইত্যাদি, এবং, সম্প্রতি, বিউটি এবং সাপ্লিমেন্ট মার্কেটের মধ্যে আরও বেশি প্রচলিত হচ্ছে। এর একটি কারণ হল যে MLM- এর জন্য অনেক বিক্রয় এবং বিপণন এখন অনলাইনে পরিচালিত হচ্ছে – পার্টি

এমএলএমের ‘মাল্টি লেভেল’ দিকগুলি তার শ্রেণিবিন্যাসগত প্রকৃতি থেকে আসে যেখানে আপনি কমিশন তৈরি করেন যা আপনি বিক্রি করেন তার উপর ভিত্তি করে নয়, যাদের আপনি সদস্যপদ ব্যবস্থায় ‘স্বাক্ষর’ করেন তাদের বিক্রয়ও।

সংক্ষেপে, প্রক্রিয়াটি নিম্নরূপ কাজ করে:

আপনি অন্য ব্যক্তির (আপনার আপ লাইন হিসাবে পরিচিত) রেফারেলের মাধ্যমে অথবা সরাসরি তাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রোগ্রামে যোগদান করুন।
আপনি পার্টি, কর্মশালা বা অনলাইনের মাধ্যমে কোম্পানির পণ্য প্রচার করেন।
আপনি যখন বিক্রয় করেন, আপনি আপনার গ্রাহকদের প্রোগ্রামের সদস্য হিসাবে সাইন আপ করার জন্য প্রণোদনা প্রদান করেন (এর জন্য বিভিন্ন নাম রয়েছে কিন্তু তাদের সকলের অর্থ একই জিনিস)।
সেই নতুন সদস্যকে তারপর আপনার অধীনে একটি অনুক্রমিক ব্যবস্থায় (আপনার ডাউন লাইন নামে পরিচিত) রাখা হয়।
আপনি, এবং আপনার আপ লাইনের বেশ কয়েকটি স্তর, তারপরে তারা যা বিক্রি করে তার জন্য অতিরিক্ত কমিশন পান।
যদি তারা তাদের গ্রাহকদের মেম্বারশিপে রেফার করতে পরিচালিত করে, তাহলে তারা আপনার ডাউন লাইনের সদস্যও হয়ে উঠবে যাতে আপনি লাইন কমিশনও করতে পারবেন।
আপনি যে প্রোগ্রামে যোগ দিয়েছেন তার উপর নির্ভর করে আপনার আপ এবং ডাউন লাইনের স্তরের সংখ্যা পরিবর্তিত হবে। আপনার ডাউন লাইন বৃদ্ধি বা চুক্তির সাথে সাথে কমিশনের হারও পরিবর্তিত হবে এবং আপনার নিজস্ব ব্যবসা বাড়ার সাথে সাথে কোম্পানির মোট বিক্রয় শতাংশ এবং/অথবা সদস্যপদ পুরস্কারে অ্যাক্সেসের মতো অন্যান্য প্রণোদনাও দেবে।

Who are Juenesse?

Jeunesse কারা?

Jeunesse 2009 সালে Randy Ray এবং Wendy Lewis দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কোম্পানিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় অবস্থিত এবং বিশ্বের 60 টিরও বেশি দেশে যোগাযোগের অফিস রয়েছে। তারা তাদের পণ্যগুলিকে “বিজ্ঞান এবং অত্যাধুনিক প্রযুক্তি দ্বারা সমর্থিত হিসাবে প্রচার করে, একচেটিয়া লাইনের এই পরিবারটি আপনাকে তরুণ দেখতে, তরুণ বোধ করতে এবং তরুণ থাকতে সাহায্য করার জন্য তৈরি করা হয়েছে।”

THE JEUNESSE FAMILY

CREATES POSITIVE

IMPACT ON THE WORLD

BY HELPING PEOPLE

LOOK & FEEL YOUNG,

WHILE EMPOWERING

EACH OTHER TO

UNLEASH OUR

POTENTIAL

এই ধরণের অন্যান্য অনেক কোম্পানির মতো, সাইটটি তার এমএলএম প্রোগ্রামের আশেপাশে তৈরি করা হয়েছে যার বেশিরভাগ পণ্য নয় নির্দিষ্ট তথ্য যার লক্ষ্য তার প্রোগ্রাম এবং পরিবেশক হিসাবে উপার্জনের সুযোগ।

What do they Sell?

তারা কি বিক্রি করে?
আমি সবসময় জুয়েনসিকে এমন একটি কোম্পানি হিসেবে ভাবতাম যা সাপ্লিমেন্ট সরবরাহ করে – যা তারা, কিন্তু তারা প্রসাধনী এবং সৌন্দর্য পণ্যগুলির একটি খুব বড় এবং শালীন পরিসরও সরবরাহ করে। তারা তাদের চেহারা, অনুভূতি এবং তরুণ মন্ত্রকে বাঁচাতে সহায়তা করার জন্য তাদের ইয়ুথ এনহান্সমেন্ট সিস্টেম (Y.E.S) এর মাধ্যমে একটি টেন্ডেম পদ্ধতি হিসাবে দেখেন। তাদের পণ্যের প্রধান তালিকার মধ্যে রয়েছে:

সুস্থতা
ভিটামিন
অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট
খাদ্য সম্পূরক
‘জেন’ ফিটনেস সাপ্লিমেন্ট
সৌন্দর্যের জন্য তৈরীকৃত বস্তু
আর্দ্রতা
ক্লিনজার
মাস্ক
সিরাম
মেকআপ
চুলের যত্ন

জেন ফিটনেস প্রোগ্রামে প্রবেশের পাশাপাশি অপরিহার্য তেলের একটি ছোট পরিসীমা রয়েছে। এটি এমন একটি প্রোগ্রাম যা তাদের ফিটনেস সাপ্লিমেন্টের ব্যবহারকে-সপ্তাহের ওজন কমানো এবং ফিটনেস প্রোগ্রামের সাথে একত্রিত করে easy টি সহজে অনুসরণযোগ্য পর্যায় বিশেষজ্ঞ কোচিং এবং চলমান সহায়তার সাথে।

সবমিলিয়ে, শুধুমাত্র পণ্যের উপর ভিত্তি করে, এখানে একটি “আসুন আপনার ভিতরে এবং বাইরে নজর রাখি” পদ্ধতির সাহায্যে এই প্রোগ্রামটিকে আক্রমণ করার একটি দুর্দান্ত সুযোগ রয়েছে।

MLM Program outline

এমএলএম প্রোগ্রামের রূপরেখা
জিউনসেস এমএলএম প্রোগ্রামকে তাদের আর্থিক পুরস্কার প্রোগ্রাম বলা হয় যা তাদের সদস্যদের ডিস্ট্রিবিউটর বলে। প্রথম দেখায়, এটি একটি মোটামুটি স্টক স্ট্যান্ডার্ড প্রোগ্রাম এবং কমিশন কাঠামো বলে মনে হচ্ছে। আগেই উল্লেখ করা হয়েছে, যেমন অনেক কোম্পানি এমএলএম -এর সুযোগ দেয় তাদের ওয়েবসাইট এবং প্রসেসগুলি প্রথমে এটি একটি নেটওয়ার্ক মার্কেটিং কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং দ্বিতীয়টি একটি মার্কেটপ্লেস (তারা আসলে তাদের কোম্পানীর ব্লার্ব -এ এই বিষয়ে মন্তব্য করে)। এই প্রোগ্রামের জন্য ক্ষতিপূরণ পরিকল্পনা, একটু বিভ্রান্তিকর, তাদের সাইটে উপলব্ধ তাই আসুন মূল বিষয়গুলি পরীক্ষা করে দেখি।

ছাড়: 15-40% সহযোগীদের জন্য (নিচে দেখুন)

বেস কমিশনের হার: পরিবেশকদের জন্য 15-40%

ডাউন লাইন কমিশন হার: 5 – 20% থেকে 5 স্তর (প্রথম প্রজন্ম (ডাউন লাইন লেভেল 1) হার 20% – জেড এক্সিকিউটিভ পদ এবং শুধুমাত্র উপরে)।

কমিশনের যোগ্যতা অর্জনের জন্য ন্যূনতম মাসিক ব্যয়

বিতরণকারীদের তাদের ব্যক্তিগতকৃত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতি মাসে 100 পিভি বজায় রাখতে হবে – এটি ব্যক্তিগত বা গ্রাহকের ক্রয় হতে পারে।
পেমেন্ট শর্তাবলী: সাপ্তাহিক এবং মাসিক।

আবেদনের প্রয়োজন ?: হ্যাঁ, প্রথম ক্রয়ের সময় ব্যক্তিগত এবং অর্থ প্রদানের তথ্য

যোগদানের জন্য ক্রয়ের প্রয়োজনীয়তা: হ্যাঁ

সদস্যপদ যোগদান খরচ $ 19.95 বার্ষিক
নতুন সদস্যরা অ্যাসোসিয়েট হিসাবে পরিচিত যারা ডিসকাউন্ট এবং খুচরা মুনাফার জন্য যোগ্যতা অর্জন করে কিন্তু ডিস্ট্রিবিউটরের স্তরে না পৌঁছানো পর্যন্ত কোন কমিশন নেই।
পরিবেশক হিসাবে যোগ্যতা অর্জনের জন্য, সহযোগীদের প্রয়োজন:

একটি স্টার্টার কিট কিনুন – এই দামের দাম USD $ 49.95 থেকে $ 2299.95 পর্যন্ত
স্টার্টার কিট কেনার এক বছরের মধ্যে স্মার্ট ডেলিভারি মাসের মধ্যে 100 পিভি সংগ্রহ করুন
প্রদত্ত বিপণন সামগ্রী: ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট, বিপণন সামগ্রী, ব্যাক অফিস

বৃহত্তর কর্মসূচির মত, ডাইনলাইন কমিশন এবং র rank্যাংকিং মোট ব্যক্তিগত ভলিউম (PV) এবং গ্রুপ ভলিউম (নিচে বৃত্ত দেখুন) দ্বারা নির্ধারিত হয় পরিবেশক এবং তাদের ডাউন লাইন একটি ক্যালেন্ডার মাসের মধ্যে। বেশিরভাগ এমএলএম প্রোগ্রামগুলি এইভাবে পরিচালনা করে যে পুরো বিক্রয় মোটের পরিবর্তে একটি পণ্যের জন্য নির্ধারিত পয়েন্টগুলিতে কমিশন প্রদান করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, যদি একটি পণ্য 100 ডলারে বিক্রয় করে এবং তার 50PV রেটিং থাকে (এগুলি সাধারণত পণ্য থেকে পণ্যের মধ্যে পরিবর্তিত হয়) তাহলে কমিশন শুধুমাত্র $ 50 কেনার উপর গণনা করা হয়। সুতরাং যদি কোনও পণ্যের জন্য কমিশনের হার 20% হয় তবে এটি স্পনসরকে 10 ডলার প্রদান করবে (অর্থাত্ $ 50 কমিশনযোগ্য পরিমাণের 20%)।

Jeunesse সাইটের মধ্যে আমি তাদের পয়েন্ট সিস্টেম কিভাবে গণনা করা হয় সে বিষয়ে কোন তথ্য সনাক্ত করতে অক্ষম ছিলাম। PV গণনা যাইহোক 1 পয়েন্ট প্রতি $ 1 থেকে $ 1 পর্যন্ত $ 1.50 বা এমনকি $ 2 পর্যন্ত হতে পারে। স্পষ্টতই ডলারের যত কাছাকাছি হিসাব তত ভালো। উপরন্তু, কমিশনের জন্য যোগ্যতা অর্জনের জন্য বেশিরভাগ প্রোগ্রাম প্রতি মাসে ন্যূনতম PV বিক্রয় বরাদ্দ করে – ব্যক্তিগতভাবে বা গ্রাহকের বিক্রয়ের মাধ্যমে (উপরের হিসাবে, এই প্রোগ্রামের জন্য ট্যালি 100PV)। পেমেন্ট এবং র rank্যাঙ্কিং এর পরে সদস্যের মোট পিভি এবং তাদের ডাউনলাইনের উপর ভিত্তি করে গণনা করা হয়।

How can I get paid?

আমি কিভাবে বেতন পেতে পারি?
ক্ষতিপূরণ পরিকল্পনা 6 টি উপায়ে প্রচার করে যার মাধ্যমে পরিবেশকরা যখন পণ্য প্রচার এবং বিক্রয় করে তখন অর্থ উপার্জন করতে পারে। এগুলি এমএলএম প্রোগ্রামের জন্য বেশ মানসম্মত, কমিশনগুলির সাথে আমার দেখা অন্যদের তুলনায় কিছুটা ভাল ত্রুটি রয়েছে। আসুন তাদের পরীক্ষা করে দেখি …

Retail Profits

খুচরা মুনাফা হল প্রতিদিনের খুচরা বিক্রয় দ্বারা অর্জিত মূল মুনাফা যা সহযোগী এবং পরিবেশক উভয়ই ব্যক্তিগতভাবে বা তাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে করতে পারে। এখানে দুটি প্রধান উপায় আছে:

যদি খুচরা মূল্যে করা হয় তবে ক্রয় মূল্যের 40% পর্যন্ত কমিশন উপার্জন করুন (মূলত পরিবেশক ছাড় এবং খুচরা মূল্যের মধ্যে পার্থক্য)।
ছাড়ের হারে পণ্য কিনুন এবং দোকানের সামনে, মার্কেট স্টল বা কিয়স্কের মধ্যে খুচরা মূল্যে বিক্রি করুন – এমনকি পার্টিশনাল পার্টি প্ল্যান পদ্ধতিতেও।

Retail Sales Bonus

খুচরা বিক্রয় বোনাস নতুন স্পন্সর সহযোগীদের যখন তারা প্রোগ্রামে যোগ দেয় তখন একটি স্টার্টার প্যাক কেনার জন্য ‘উৎসাহিত’ করার উৎসাহ। কেনা প্যাকেজের উপর নির্ভর করে পেমেন্টের পরিমাণ $ 25- $ 250 থেকে শুরু করে।

অর্থ প্রদানের পরিমাণ নিম্নরূপ গণনা করা হয়:

  • 100 – 199 CV = 10%
  • 200 – 299 CV = 12%
  • 300 CV+ = 15%

Team Commissions

বেশিরভাগ প্রোগ্রামের সাথে, একজন ডিস্ট্রিবিউটরের ডাউন লাইনের সদস্যদের দলে সংগঠিত করা হয় (প্রায়শই ‘পা’ বলা হয়)। $ 35 এর টিম কমিশন প্রতিবার স্পনসরিং ডিস্ট্রিবিউটরকে প্রদান করা হয় যখন তাদের একটি পা (বা দল) 600 জিভিতে পৌঁছায় এবং অন্যটি 300 জিভিতে পৌঁছায় (কমিশন চক্র নামে পরিচিত)। একবার প্রথম পেমেন্ট করা হলে, ট্যালি ‘রিসেট’ মানে 600 এবং 300 GV লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হলে, আপ লাইন স্পনসরকে আরও 35 ডলার প্রদান করা হয়।

ডিস্ট্রিবিউটরদের টিম কমিশনের যোগ্যতা অর্জনের জন্য নির্বাহী পদ হতে হবে

Matching Bonus

ম্যাচিং বোনাস হল বেশিরভাগ এমএলএম প্রোগ্রামের জন্য সাধারণ স্টক স্ট্যান্ডার্ড ইউনিলিভেল কমিশন ব্যবস্থার জিউনেসির সংস্করণ। ডিস্ট্রিবিউটরের ডাউনলাইনের মধ্যে সমস্ত উত্পাদিত ভলিউমে কমিশনগুলি 7 স্তরের নিচে দেওয়া হয়। হার নিম্নরূপ:

ম্যাচিং বোনাস ট্রিগার হওয়ার আগে পরিবেশকদের অবশ্যই জেড এক্সিকিউটিভের পদে পৌঁছাতে হবে।

Distributor Retention Incentive

ডিস্ট্রিবিউটর রিটেনশন ইনসেনটিভ উপরের ম্যাচিং বোনাসের সাথে কাজ করে এবং যাদের ব্যক্তিগতভাবে স্পনসর করা ডাউনলাইনে বেশি সংখ্যক ডিস্ট্রিবিউটর আছে তাদের পুরস্কৃত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। যখন একটি স্পনসর ক্যালেন্ডার মাসে স্মার্ট ডেলিভারিতে থাকা ব্যক্তিগতভাবে তালিকাভুক্ত পাঁচজন বিতরণকারীদের কাছে পণ্য বিক্রি করতে সক্ষম হয়, তখন তাদের প্রথম স্তরের ম্যাচিং বোনাস 20% থেকে 25% পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়।

যদি তারা 10 তে বিক্রি করতে পারে, তাহলে প্রথম স্তরের মিল বোনাস 30% বৃদ্ধি পায়

ম্যাচিং বোনাস চালু হওয়ার আগে জেড এক্সিকিউটিভ হলে ডিস্ট্রিবিউটরদের অবশ্যই পদে পৌঁছাতে হবে।

Diamond Bonus Pool

ডায়মন্ড বোনাস পুল আরেকটি সাধারণ এমএলএম পেমেন্ট ব্যবস্থা যেখানে উচ্চতর র্যাঙ্কিং বিতরণকারীরা প্রতি কোম্পানিতে মোট কোম্পানির বিক্রিত সিভির শতাংশ অর্জন করতে পারে। ডায়মন্ড বোনাস পুলে অংশগ্রহণের জন্য, ডিস্ট্রিবিউটরদের অবশ্যই ডায়মন্ড ডিরেক্টর র rank্যাঙ্ক বা তার উপরে হতে হবে এবং:

প্রতি দশম মাসে স্মার্টডেলিভারিতে থাকা ব্যক্তিগতভাবে তালিকাভুক্ত দশজন (10) জনকে পণ্য বিক্রি করুন।
পূর্ববর্তী ক্যালেন্ডার বছরে তাদের অঞ্চলে দুটি প্রধান ইভেন্ট এবং অন্য অঞ্চলে একটি ইভেন্টে অংশ নিয়েছিল।
শেয়ার আহরণ নিম্নরূপ:

প্রথম ভাগে বা তার আগে প্রথমবারের মতো ডায়মন্ড ডিরেক্টর হিসাবে অর্থ প্রদানের জন্য একটি শেয়ার প্রদান করা হয়।
প্রতি মাসে ত্রৈমাসিকে একটি শেয়ার প্রদান করা হয় যা পরিবেশককে ডায়মন্ড ডিরেক্টর হিসাবে প্রদান করা হয়।
ত্রৈমাসিকে অর্জিত প্রতি 1,000 টিম কমিশন চক্রের জন্য একটি শেয়ার প্রদান করা হয়।
প্রতিটি ব্যক্তিগতভাবে তালিকাভুক্ত বিতরণকারীর জন্য প্রতি ত্রৈমাসিক পর্যন্ত একটি শেয়ার প্রদান করা হয় যাদেরকে ত্রৈমাসিকের যে কোন মাসে ডায়মন্ড ডিরেক্টর বা তার উপরে বেতন দেওয়া হয়।
প্রতি মাসে একটি শেয়ার প্রদান করা হয় যে একজন ডিস্ট্রিবিউটরকে ডাবল ডায়মন্ড ডিরেক্টর বা উচ্চতর হিসাবে প্রদান করা হয়।

Ranking structure

আপনি সম্ভবত লক্ষ্য করেছেন, উপরে প্রদত্ত কমিশন এবং বোনাসগুলি ‘র‍্যাঙ্ক’ এর উপর নির্ভরশীল যা জিউনেসি এমএলএম প্রোগ্রামের মধ্যে পরিবেশকদের নিয়োগ করা হয়। এই প্রোগ্রামের মধ্যে, র rank্যাঙ্কিংগুলি নিম্নরূপ প্রদান করা হয়:

পদের নাম এবং শর্ত সমূহঃ-

1) Associate (এসোসিয়েট) ৩০ ডলারের স্ট্রাটার কিট ক্রয় করে এসোসিয়েট হতে হবে। বিঃদ্রঃ বাংলাদেশের জন্য ৩০ ডলার লাগবে না,জয়েনিং ফ্রী (সীমিত সময়ের জন্য)।

2)Distributor (ডিস্ট্রিবিউটর) ১০০ পয়েন্টের পণ্য ক্রয় করতে হবে। 3)

Executive (এক্সিকিউটিভ) দুই জনকে ডিস্ট্রিবিউটর বানাতে হবে। ডান পাশে একজন, বাম পাশে একজন।

4) Jade Executive ( জেড এক্সিকিউটিভ) নিজের স্পন্সর কৃত চার জনকে এক্সিকিউটিভ বানাতে হবে, যে কোন একপাশে একজন থাকতে হবে, 1st জেনারেশনের 20% ইনকাম শুরু হবে।

5) Pearl Executive (পার্ল এক্সিকিউটিভ) নিজের স্পন্সর কৃত আট জনকে এক্সিকিউটিভ বানাতে হবে। যেকোন একপাশে কমপক্ষে দুই জন এক্সিকিউটিভ থাকতে হবে। 2nd জেনারেশনের 15% ইনকাম শুরু হবে।

6) Sapphire Executive (সাফায়ার এক্সিকিউটিভ) নিজের স্পন্সর কৃত বার জনকে এক্সিকিউটিভ বানাতে হবে। তবে যেকোন একপাশে কমপক্ষে তিনজন এক্সিকিউটিভ থাকতে হবে, 3rd জেনারেশনের 10% ইনকাম শুরু হবে।

7) Sapphire 25 (সাফায়ার 25) যেকোন একমাসে পঁচিশ সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে। 8)Sapphire 50 (সাফায়ার 50) যেকোন একমাসে পঞ্চাশ সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে।

9) Sapphire Elite (সাফায়ার এলিট) যেকোন একমাসে একশ সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে। 10) Rubby Director (রুবি ডিরেক্টর) যেকোন একমাসে দুইশ সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে, 4th জেনারেশন ইনকাম শুরু হবে।

11) Emerald Director (এমারাল ডিরেক্টর) যেকোন একমাসে পাঁচশ সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে, 5th জেনারেশন ইনকাম শুরু হবে।

12) Diamond Director (ডায়মন্ড ডিরেক্টর) যেকোন একমাসে একহাজার সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে, পরবর্তী মাসেও একহাজার সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে তবে পাঁচশত সাইকেল হলেও ডায়মন্ড ডিরেক্টর হিসেবে সৃকৃতি দেওয়া হবে কিন্তু গ্লোবাল সেলের 3% এর আওতায় অর্থাৎ ডায়মন্ড বোনাস পুলের ইনকামের আওতায় আসবে না। 6th জেনারেশন ইনকাম শুরু হবে। এবং নিজের স্পন্সর কৃত দুই পাশ থেকে ছয়জন সাফায়ার এক্সিকিউটিভ থাকতে হবে।

13) Double Diamond Director (ডাবল ডায়মন্ড ডিরেক্টর) যে কোন এক মাসে 1500 সাইকেল কমপ্লিট করতে হবে, দুই লাইন থেকে দুইজন ডায়মন্ড ডিরেক্টর থাকতে হবে।

14) Triple Diamond Director (ট্রিপল ডায়মন্ড ডিরেক্টর) চার লাইন থেকে চারজন ডায়মন্ড ডিরেক্টর থাকতে হবে। ট্রিপল ডায়মন্ড ডিরেক্টর হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে এককালীন (100,000$) এক লক্ষ ডলার ইনসেন্টিভ দেওয়া হবে।

15) Presidential Diamond Director (প্রেসিডেন্সিয়াল ডায়মন্ড ডিরেক্টর) ছয় লাইন থেকে ছয়জন ডায়মন্ড ডিরেক্টর থাকতে হবে, প্রেসিডেন্সিয়াল ডায়মন্ড ডিরেক্টর হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে এককালীন (250,000$) দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার ডলার ইনসেন্টিভ দেওয়া হবে।

16) Imperial Diamond Director (ইম্পেরিয়াল ডায়মন্ড ডিরেক্টর) আট লাইন থেকে আটজন ডায়মন্ড ডিরেক্টর থাকতে হবে, ইম্পেরিয়াল ডায়মন্ড ডিরেক্টর হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে এককালীন (500,000$) পাঁচ লক্ষ ডলার ইনসেন্টিভ দেওয়া হবে।

17) Crowne Diamond Director (ক্রাউন ডায়মন্ড ডিরেক্টর) দশ লাইন থেকে দশজন ডায়মন্ড ডিরেক্টর থাকতে হবে, ক্রাউন ডায়মন্ড ডিরেক্টর হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে এককালীন (10,00,000$) দশ লক্ষ ডলার ইনসেন্টিভ দেওয়া হবে।

আবার, প্রায় সব এমএলএম প্রোগ্রামের মতোই, র down্যাঙ্ক অগ্রগতি আপনার ডাউন লাইন পায়ে সদস্য সংখ্যা এবং প্রতিমাসে এই পা দ্বারা করা মোট বিক্রয় উভয় দ্বারা নির্ধারিত হয়। প্রয়োজনীয় সদস্য এবং বিক্রয় লক্ষ্যে পৌঁছানোর ক্ষমতা (বা অক্ষমতা) এর উপর ভিত্তি করে পদমর্যাদা বৃদ্ধি এবং পতন হতে পারে।

এটা কি ভাল?


সুতরাং, সাইটের চারপাশে ভালভাবে দেখার পরে এবং আমি যে সমস্ত বিকল্প খুঁজে পেতে পারি তা দেখার পরে, আমি নিম্নলিখিতগুলি পছন্দ করি:

এন্ট্রি লেভেল বিক্রয়ের জন্য কমিশন/ডিসকাউন্ট রেট খুবই ভালো।
ফোকাস করার জন্য দুটি কঠিন পণ্যের ধারা রয়েছে।
তাদের এমএলএম প্রোগ্রামের তথ্য পাওয়া সহজ।
এতে এত ভালো কি নেই?
এছাড়াও কিছু বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে যার মধ্যে রয়েছে:

প্রবেশ স্তরের পরিবেশকদের জন্য উপার্জনের বিকল্প সীমিত।
প্রবেশ স্তরের খরচ বেশি।
আপনি কত করতে পারেন?
এটি কি শিল্পের সবচেয়ে ফলপ্রসূ ক্ষতিপূরণ পরিকল্পনাগুলির মধ্যে একটি? সত্যি কথা বলতে, এই আয় প্রকাশের বিবৃতিতে জিউনিসির দেওয়া পরিসংখ্যানগুলি এই কুলুঙ্গির মধ্যে অন্যদের উপর সুবিধা দেওয়ার জন্য কিছু প্রকাশ করে না।

Jeunesse Global MLM পর্যালোচনা – আয়
বেশিরভাগ এমএলএম প্রোগ্রামের মতো, সদস্যদের শতকরা হার উপরের স্তরের স্তর তৈরি করে – এবং তাই জীবিকা অর্জন – খুব কম। যে বলেন, এই পরিসংখ্যান অন্য কোন সম্পূরক বা সৌন্দর্য ভিত্তিক MLM প্রোগ্রামের চেয়ে খারাপ নয়।

আমার চূড়ান্ত চিন্তা
দেখুন, এমএলএম অর্থ উপার্জনের জন্য একটি সহজ প্লাটফর্ম নয়। এবং এই প্রোগ্রামের সাথে আমার প্রধান উদ্বেগ হল যে এখানে অন্যান্য নতুন প্রোগ্রামের তুলনায় নতুন প্রবেশকারীর (দ্রুত শুরুতে প্রণোদনা ইত্যাদির মাধ্যমে) উপার্জনের জন্য অনেকগুলি বিকল্প নেই। দেখা যায়. প্রকৃতপক্ষে, বিতরণকারীদের কমপক্ষে 2 র rise্যাঙ্ক বাড়ানোর প্রয়োজন হয় তারা বেস এমিলিভ কমিশন অর্জন করার আগে যা বেশিরভাগ এমএলএম প্রোগ্রাম চালায় – যদিও এই কমিশনগুলি 20-30%এ বেশ ভাল।

এটি, এই সত্যের সাথে যোগ করা হয়েছে যে এন্ট্রি লেভেলের খরচগুলি অনেক বেশি হতে পারে যা তাদের জন্য শুরুতে কঠিন গ্রাহক ভিত্তি ছাড়াই ‘একটু’ উপার্জন ‘করতে চাওয়ার জন্য এটিকে একটু কঠিন করে তুলতে পারে। এটি এই কারণেও অতিরঞ্জিত যে আমি পণ্য বিক্রয়ের জন্য পিভি পয়েন্টের গণনার বিষয়ে কোন তথ্য খুঁজে পাইনি যার অর্থ কমিশনের প্রত্যাশাগুলি সামনে পরিমাপ করা কঠিন।

যোগদানের প্রক্রিয়াটি বেশ সহজ তবে যেমনটি বলা হয়েছে যে সদস্যপদ যোগদান ফি এবং প্যাকের প্রয়োজনীয়তা শুরু করার মাধ্যমে কিছু তাত্ক্ষণিক আর্থিক প্রয়োজনীয়তা রয়েছে যা আপনার ব্যবসা শুরু করার সময় অবশ্যই অর্থের উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে – বিশেষত যদি নিয়োগ ধীর হয়। দিনের শেষে, যদি আপনার একটি ভাল গ্রাহক ভিত্তি না থাকে যা আপনি উচ্চতর পদে পাওয়া ভাল কমিশন উপলব্ধি করার জন্য তাড়াতাড়ি আঘাত করতে পারেন, তাহলে আমি সম্ভবত এই ক্ষেত্রে অন্য কোথাও খুঁজব।

আমি পেমেন্ট না করার ক্ষেত্রে কোন নেতিবাচক রিভিউ সনাক্ত করতে পারিনি। তবে পণ্যের গুণমান এবং এমএলএম প্রোগ্রাম সম্পর্কে কিছু নেতিবাচক মন্তব্য ছিল-যদিও এটি সত্যিই এমন কিছু ছিল না যা এমএলএম প্রোগ্রাম বা পণ্যগুলির ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক। এই কুলুঙ্গি

উপসংহার
সুতরাং আপনার কাছে এটি আছে, আমার সৎ পর্যালোচনা এবং জিউনেসি এমএলএম প্রোগ্রামের মূল্যায়ন। আমি আশা করি এটি সহায়ক হয়েছে কিন্তু যথারীতি, যদি এই প্রোগ্রামের সাথে আপনার কোন প্রশ্ন বা অভিজ্ঞতা থাকে তবে দয়া করে নীচে মন্তব্য করে দ্বিধা করবেন না – বিশেষ করে যদি আমার কোন তথ্য ভুল হয়।

আপনি কি অন্য কোন প্রোগ্রাম দেখছেন কিন্তু সে সম্পর্কে আরো জানতে চান? যদি তা হয় তবে দয়া করে নীচে মন্তব্য করুন এবং আমি আপনার জন্য কিছু বিবরণ পেতে যথাসাধ্য চেষ্টা করব।

আপনি কি উপরের কোনটির সাথে আরও সহায়তা চান বা আপনার নিজের পরিপূরক, প্রসাধনী বা এমএলএম ভিত্তিক ওয়েবসাইট তৈরি করতে সাহায্যের প্রয়োজন?

আপনি কি একটি বিস্তৃত প্রশিক্ষণ প্ল্যাটফর্ম খুঁজছেন যা আপনাকে ধাপে ধাপে প্রশিক্ষণ, 24/7 সহায়তা, আপনার নিজের ওয়েবসাইট বিকাশ এবং হোস্ট করার সরঞ্জাম, এসইও এবং সোশ্যাল মিডিয়াতে চলমান সহায়তা এবং কিছু সেরা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং মনের অ্যাক্সেস দিতে পারে গ্রহ, তারপর ধনী অ্যাফিলিয়েট সম্পর্কে আরও পড়তে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন।

পরবর্তী সময় পর্যন্ত

দ্রষ্টব্য: আপনি যদি এই পৃষ্ঠা থেকে কেনাকাটা করেন, তবে আমি এটি থেকে কমিশন করার খুব ভাল সুযোগ – এই কমিশনগুলি আপনার বিক্রয় মূল্য বাড়ায় না।

ব্যবসার ক্ষেত্রে আমার নির্ধারিত মুহূর্তটি ছিল যখন আমি এই বৈশ্বিক ই-কমার্স ব্যবসায় প্ল্যাটফর্মটি আবিষ্কার করেছি।

আমি সঙ্কটের একটি চ্যালেঞ্জিং পর্ব থেকে বেরিয়ে এসেছিলাম যা আমি নেভিগেট করেছি কিন্তু আমি মন্দা-প্রমাণের জন্য নিজেকে প্রস্তুত ছিলাম।

কিভাবে আপনি নিজেকে মন্দা-প্রমাণ করবেন?

মন্দা প্রমাণের আমার সংজ্ঞা নিজেকে বিশ্বজুড়ে বিক্রয় করছে।
কেন? আপনি দেখতে পাচ্ছেন, আপনার ব্যবসার মালিক আপনার গ্রাহক ভিত্তি আপনার সম্প্রদায়, যা পুরোপুরি ঠিক আছে।

অতএব, আমি একটি বিশ্বব্যাপী প্ল্যাটফর্ম উপভোগ করার এবং বিশ্বব্যাপী ব্যবসা গড়ে তোলার একটি উপায় খুঁজে পেয়েছি

@mdeyasinali31

Farmed and hand harvested fresh, this prized gel from Latin America makes up 95% of ready-to-drink Alōmūn. #aloe #dietary #dietarysupplement

♬ original sound – mdeyasinali31 – mdeyasinali31

যুব উন্নতি প্রযুক্তিতে বিশ্বনেতা।

পণ্যগুলি বাজারে প্রথম, অনন্য এবং সবার একটি খুব আকর্ষণীয় গল্প রয়েছে।

ব্যবসার ষষ্ঠ বছরে তার ১ ম বিলিয়ন ডলার বছর অর্জন করতে সক্ষম।

পণ্য উদ্ভাবনের পিছনের গল্প অবশ্যই সাফল্যের মূল স্তম্ভগুলির মধ্যে একটি।

সহজ প্লাগ অ্যান্ড প্লে বিজনেস মডেল।

https://fb.me/jeunessell

09/09/09 তারিখে চালু হওয়ার পর থেকে 7 বিলিয়নেরও বেশি বিক্রয় অর্জন করেছে।

প্রবেশের একেবারে কম খরচ, দারুণ লিভারেজ এবং বিপুল আয়ের সম্ভাবনা!

যদি আপনি পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত হন তবে নির্দ্বিধায় সংযোগ করুন এবং আমি আপনাকে 2021 এবং তার পরেও আপনার জীবনকে প্রশস্ত করতে সহায়তা করব।

আমি আপনাকে এই চ্যালেঞ্জিং সময়ে অবিশ্বাস্য কিছু শুরু করার জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছি

আরও তথ্যের জন্য একটি DM পাঠান।

কৃতজ্ঞতার সাথে,

মো ইয়াসিন আলী
Phone Number:::01303156702

https://chat.whatsapp.com/Cjcf8noCo2uGsXOUWjWP1x

CPA Markeing

CPA Marketing in 2020: The Ultimate Guide for Beginners

GET THE PRINT VERSION

Tired of scrolling? Download a PDF version for easier offline reading and sharing with coworkers.
DOWNLOAD PDFTABLE OF CONTENTS

When it comes to marketing your online business, your return on investment (ROI) is crucial to your success.

Take digital advertising. After pouring hard-earned marketing dollars into Google or Facebook ads, you must earnestly optimize your campaigns – testing, tweaking and hoping that all of your clicks eventually turn into sales.

Once you factor in gross profit margin, shipping costs, and other expenses, it’s difficult to maintain a strong enough return on investment to scale your marketing efforts.

What if instead of focusing your digital ad spend on “awareness-metrics” like impressions and clicks, you could spend your money only on real business results – leads, conversions, and sales?

This is where CPA marketing comes in.

CPA marketing just might be the most scalable and ROI-positive way to monetize your website.

Unlike other marketing tactics where you pay to advertise your brand with no guarantee of sales, CPA marketing allows you to only pay after the sale occurs at a rate you determine.

For example, if you’re selling a $100 pair of sneakers and you pay your CPA partners a 10% commission after the sale, you only pay $10 in marketing spend and enjoy a return on ad spend (ROAS) of 10:1.

That’s a substantial return.

Additionally, these affiliate customers are known to spend 58% more annually than the aggregate of all other advertising channels.

This beginner’s guide is going to walk you through how CPA marketing works and will cover:

  1. What is CPA marketing?
  2. How does CPA work?
  3. CPA marketing payment model.
  4. Benefits of CPA.
  5. Top CPA affiliate networks.
  6. BONUS Tips to better your CPA strategy.

What is CPA Marketing?

CPA marketing, also known as cost per action marketing, is a style of the affiliate marketing model that offers a commission to the affiliate when a specific action is completed.

The lead action can be anything from making a purchase to getting a quote, watching a video, or filling out a form.

Ecommerce sites around the globe can leverage CPA marketing to create different offers and online marketing campaigns.

CPA networks then promote these campaigns through affiliates.

The CPA affiliates are paid a set fee each time a referred visitor completes the action or offer.

cpa marketing how cpa works

Image Source

How Does CPA Marketing Work?

The CPA model is a simple concept once you break down into how it works and who’s involved.

  • Affiliate or PublisherThe influencer (blogger, brand, business) that promotes a business or product in order to drive traffic to the ecommerce site and make a specific conversion.
  • Business or AdvertiserThe brand that desires a partnership with an affiliate to drive quality traffic to the business’ website and increase sales, generate leads, or boost conversions.
  • CPA Network: The platform that brings together the affiliate who wants to make money by promoting products and the businesses that want their products promoted.

Let’s say a popular cooking blogger named Lisa (our affiliate in this story) has a healthy following of YouTube subscribers and blog readers.

She learned how to start a blog to make a living in her kitchen—trying new recipes and recommending specific brands and products to her audience.

After developing a guest blogging strategy, increasing web traffic, and building a cult following, her cooking crowd is eager to buy the next kitchen gadget she recommends.

Then we have our example business, EasyCooking.

EasyCooking manufactures high-quality kitchen gadgets – from cutting boards and measuring cups, to professional mixers and food processors. They’re looking to expand their marketing reach and would love to take advantage of Lisa’s audience of budding chefs.

A CPA marketing network brings Lisa and EasyCooking together.

Ecommerce businesses like EasyCooking utilize CPA networks to find and partner with influencers like Lisa.

Influencers like Lisa, who want to make money doing what they love and engaging their audience, can turn to CPA networks to find companies that want to pay her to use and promote their products.

Lisa sends her audience to the business’ website and makes a commission on each sale or lead conversion.

In turn, EasyCooking makes money from Lisa’s referral traffic.

The network brings them together and the audience gets to try new products and learn about emerging brands. It’s a win-win.

cpa marketing how affiliate marketing works

Image Source

CPA Network Terminology

CPA network terminology isn’t complicated, but there are a few key terms you should know as you launch.

  • Affiliate Manager: A person who manages an affiliate program for a merchant. They are responsible for recruiting, engaging with affiliates, and generating revenue for the merchant.
  • Category: The niche for which the CPA offer applies (sports, fashion, beauty, health, etc).
  • Chargeback: When a sale “falls through” for an action an affiliate has already paid for. Since the sale was never finalized or an item was returned, the previously given commission is deducted back into the advertiser’s account.
  • Commission: The payment an affiliate receives—either a flat rate or percentage—once a successful conversion is tracked.
  • Contextual link: A text link placed within an affiliate website that links to the advertiser’s website.
  • Conversion rate: The percentage rate at which a particular action is performed. In other words, the number of successful conversions divided by the total traffic.
  • Cookies: In affiliate marketing, cookies are used to assign a unique ID to a user who has clicked the affiliate link to an advertiser’s site for a specific duration. The affiliate will receive credit for the conversion in this predefined window, typically 30-90 days.
  • Cost per action (CPA): An online advertising strategy that allows an advertiser to pay for a specified action from a target customer.
  • Earnings per click (EPC): The average amount an affiliate earns every time a user clicks an affiliate link.
  • Offer page: The webpage where the conversion occurs after a visitor takes the required action.
  • Return on investment (ROI): Refers to the amount of money made with a campaign. It is the revenue divided by the ad spend, multiplied by 100.

CPA Marketing Payment Model

The CPA affiliate marketing method is advantageous for businesses because they don’t pay unless a successful conversion is made.

The payouts differ based on competition and average commission rates in each vertical.

For example, headphone manufacturer Skullcandy’s successful affiliate program offers a 5% commission on sales based on a competitive electronics category.

Kelty, the outdoor camping gear company, provides affiliates up to 10% on a tiered commission structure. It’s all based on the competition within your vertical.

The cost per action formula is a very low-risk method for advertisers, as they only pay for the desired actions after they occur; unlike paid traffic, for example, where you just pay to get people on your site through ads.

The cost per action for an advertiser can be determined by dividing the total cost of the marketing campaign by the number of successful actions taken.

Let’s look at our pretend company, EasyCooking, as an example.

If EasyCooking spends $1,000 on a marketing campaign and gains 25 successful conversions on a signup form for a recipe ebook, the cost per action is $40.

While the cost per action varies by industry, Google AdWords reports the average cost per action across all industries is $48.96.

  • The automotive industry has the lowest CPA at $33.52.
  • Technology has the highest CPA at $133.52.

The top 10 percent of advertisers boast CPAs up to five times better than the average.

Want more insights like this?

We’re on a mission to provide businesses like yours marketing and sales tips, tricks and industry leading knowledge to build the next house-hold name brand. Don’t miss a post. Sign up for our weekly newsletter.SUBSCRIBE

What are the Benefits of CPA Marketing?

CPA marketing is very profitable when you target the right audience (as an affiliate) and connect with quality influencers (as a business).

Compared to other ecommerce marketing channels, the cost per action formula offers a number of benefits, including:

1. Easy to set up.

CPA marketing is easy to launch: you only need a website and a CPA network.

It takes very little capital upfront to use this marketing technique.

When you partner with a trusted CPA affiliate network, there’s no guesswork as to how to get started.

By using your own website and choosing a CPA offer, you can begin getting traffic from affiliate sites almost immediately.

2. Pay After the Sale.

You’re not paying for traffic that doesn’t convert.

If an affiliate’s referrals continuously offer low-rate conversions, diversify your affiliates and shift your focus to a more successful influencer.

3. Low Risk.

Because no payment is made to the publisher unless a referred visitor converts to a customer or completes a specific task, the risk is low for ecommerce businesses.

There are tools like Mentionlytics that help you monitor how the affiliate is marketing your brand or product, but cost per acquisition marketing doesn’t call for an immense investment of time or capital.

4. High ROI.

Affiliate marketing generates 16 percent of all online marketing.

CJ by Conversant’s Affiliate Customer Insights reveals that customers spend more money when making a purchase off an affiliate’s recommendation.

This means these types of marketing campaigns drive a better quality of traffic and offers a better value than most traffic sources.

Affiliate marketing produces:

  • 58% higher average customer revenue.
  • 31% higher per customer order average.
  • 21% higher average order value (AOV).

Plus, the more sales you drive, the higher your commissions can be. For instance, the BigCommerce affiliate program starts at a 200% bounty payment and goes higher based on sales volume.

5. Expand Marketing Reach.

CPA marketing gives you scale and distribution.

You get to scale your brand message faster and more consistently to the largest possible audience.

Whether your brand is in fashion, electronics, home and garden, pet supplies, beauty, or almost anything else, most business verticals use CPA marketing.

Take Bliss, a skincare and beauty product line, for example.

Their affiliate program provides a 10% CPA payout on all sales.

Now beauty influencers, bloggers, and media sites have the tools to easily promote them, receive a 10% commission on all sales, and expand their affiliate marketing reach.

In every vertical, there’s almost always an affiliate website available for partnerships through a CPA affiliate network.

Spread your brand awareness by reaching the affiliate’s audience—a group you may have never otherwise reached.

CPA Marketing Tips & Best Practices

CPA affiliate marketing is not a “set it and forget it” method.

You must invest the time to cultivate a relationship with your CPA affiliates to create a strong conversion funnel to keep improving your conversion rates.

To drive success through your CPA marketing strategy, try these tips:

1. Consider hiring an Affiliate Manager.

To get the most out of your CPA marketing efforts, you need a dedicated in-house resource – a person who can recruit new CPA affiliates, engage with website owners, send them new promotions, and drive consistent revenue for your site.

Affiliate Managers can provide help for affiliates by taking the following actions:

  • Review affiliate offers and provides insight into strategic changes.
  • Offer insight on what types of affiliate links or ads to use to optimize conversion.
  • Provide tips on content that will effectively promote the merchant’s products.
  • Send product updates and new creative to CPA affiliates.
  • Provide commission bonuses and incentives for high-performing CPA affiliates.

Affiliate Managers can provide help for advertisers by taking the following actions:

  • Connect you with and recruit the top-performing affiliates in your niche.
  • Brainstorm new promotional ideas for particular products.
  • Send consistent brand messages and product updates to the CPA network.
  • Negotiate contracts with affiliates, oversee ROI, and compare your affiliate program to others to stay competitive.
  • Guide you with creatives that partner well with the best affiliate programs and websites.
  • Deal with taxes and set up your accounting services.

2. Avoid CPA networks with bad reviews.

The downside to CPA marketing (as with any online money-making opportunity) is the questionable networks that have shady practices.

Before you jump on board with any CPA affiliate marketing network, read the reviews.

Odigger offers network reviews so you know which are worth your time and which to avoid.

Click on the Network Reviews tab and search for the one you’re interested in to see what others have to say.

cpa marketing odigger

Image Source

Keep in mind that no network will have a 100 percent satisfaction rating, so one or two complaints shouldn’t scare you off.

The most popular negative reviews topics include:

  • Lack of payment (please note that even highly reputable CPA marketing networks may withhold payment for specific reasons, so review the network’s policies before signing on).
  • Unhelpful affiliate managers.
  • Difficulty signing up for network or using the platform.

3. Utilize Native Advertising.

The days of embedding ugly, in-your-face banners across the header of your website are over.

It doesn’t take blaring advertisements to convert customers.

In fact, native ads, or those that resemble your website’s color, layout, and theme, are among the marketing trends to watch in 2020.

  • Nonsocial native spending will grow more than 80 percent this year to $8.71 billion.
  • Seventy-seven percent of all mobile display ad dollars will be spent on native placements.
  • eMarketer predicts native advertising will make up nearly 60 percent of display spending in 2018 in the US.

Integrating your advertising into a high-quality web design will offer more conversions, as native ads result in two times more visual focus than banner ads.

cpa marketing cnn

Image Source

The Top CPA Affiliate Networks

As we discussed earlier, CPA affiliate networks with bad reviews should be avoided, but there are some bright spots when it comes to reputable networks.

Platforms that provide knowledgeable affiliate managers, numerous offers, and competitive payouts are the ones to try.

Reputable CPA affiliate networks include:

1. MaxBounty.

Max Bounty offers trained affiliate managers who focus on a merchant’s marketing needs.

There are nearly 20,000 affiliates on the platform, and the affiliate managers are knowledgeable of which partners will be the best fit for businesses and affiliate marketers.

The affiliates are vetted and offer high-quality traffic to the merchant’s site.

Newbies to MaxBounty have access to a plethora of training material and the program offers weekly payouts.

2. Clickbooth.

Clickbooth has been around since 2002 and places a strong focus on making its program easy and innovative for merchants.

Clickbooth claims its artificial intelligence technology can provide up to 25 percent increased earnings per click (EPC) for affiliate partners.

There are no costs to join Clickbooth as an advertiser.

Advertisers can view traffic performance from each individual affiliate, and if they desire, can manage budgets, payouts, schedules, and campaigns themselves or allow the Clickbooth team to handle the work.

3. Peerfly.

Launched in 2009, Peerfly is a small affiliate marketing company.

It was ranked as the second best CPA network in 2016 and made the top five for 2018.

PeerFly offers to match or pay even more than any other affiliate network.

The network offers free training for affiliates and payouts weekly, bi-weekly, or monthly through PayPal, Amazon gift cards, checks, bank wire, Payoneer, and Bitcoin.

4. Admitad.

Admitad has more than 520,000 publishers and more than 1,200 advertisers.

This network was launched in 2009 in Germany and hosts international offers, giving it a large footprint across ecommerce businesses.

Admitad boasts a client-oriented approach with personalized training and other learning options.

Affiliates only need a $10 minimum for payouts and can be paid via PayPal, epayments, and wire transfer.

The network offers anti-fraud technologies, cross-device tracking, and deep linking options.

5. W4.

W4 reviews publisher applications before approving their accounts.

The publishers can boost their revenue by referring others to this network.

W4 has a dedicated support team to help affiliates and merchants and offers a rewards program for the highest-earning affiliates.

CPA Marketing Trends

Following the hottest CPA marketing trends in 2020 will increase your revenue and help create a strategic approach for next year’s digital marketing plan.

  • CPA marketing is expected to expand to developing countries in 2020 and beyond.
  • CPA marketing should have a focus on copy rather than pop-ups and headlines.
  • Influencer marketing will begin to overlap into CPA marketing, giving many new ecommerce businesses even more reason to join CPA affiliate networks.
  • Ecommerce businesses will shift a portion of their budget from traditional marketing (PPC, social media, and banner ads) to affiliate and performance marketing.

Reliable CPA affiliate marketing networks will continue to increase transparency and offer the data-driven information that clients demand.

Executive Summary

CPA marketing is the next step in digital marketing that ROI-minded marketers are looking for.

It’s a fast-paced and optimization-friendly cooperative tactic that puts real business results at the forefront.

It’s a way to scale and distribute your brand message while building strong relationships with partner websites.

This customizable, easy-to-launch strategy is also a win for the affiliates, as they can choose offers that mirror their own brand and website, allowing them to monetize content on their site with banners and contextual links.

If you want to expand your website’s reach, maintain a strong return on investment, and feel a real business impact, incorporate CPA marketing into your strategic plans.

Want more insights like this?

We’re on a mission to provide businesses like yours marketing and sales tips, tricks and industry leading knowledge to build the next house-hold name brand. Don’t miss a post. Sign up for our weekly newsletter.SUBSCRIBE

CPA Markeing

Top Offers
E-mail
US Facebook group add this and E-mail.

https://sites.google.com
And
Facebook group post
Word users cash, info, how,
Link set

Facebook Group List and US

1*https://m.facebook.com/groups/Halifax.BSTGA.NS/permalink/2935287189897749/


2*https://www.facebook.com/groups/vancouverbuysellfast/permalink/3045063375614647/CPA Markeing


3*https://www.facebook.com/groups/1617426645011853/


4*https://www.facebook.com/groups/davaobuyandsell/permalink/3150038465076370/


5*https://www.facebook.com/groups/1644316275808641/


6*https://www.facebook.com/groups/657111714360795/


7*https://www.facebook.com/groups/vancouverbuysellfast/permalink/3045063375614647/

Copy

মানুষের অতীত ঘটনা ও কার্যাবলীর অধ্যয়নই ইতিহাসঃ ইতিহাসের কিছু কুখ্যাত স্বৈরশাসক

কোন রাষ্ট্রে যখন এক ব্যক্তির ক্ষমতার মাধ্যমে সকল কাজ সম্পন্ন হয় তাই স্বৈরশাসন। আর যিনি তা সম্পনন্ন করেন তিনি স্বৈরশাসক। স্বৈরশাসক দেশের জনগণ, সংবিধান, আইনের রীতিনীতি অগ্রহ্য করে অগণতান্ত্রিক বা জোর করে ক্ষমতা গ্রহণ করেন,এবং তার একক নির্দেশনায় দেশকে এবং দেশের সকল রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে তার অধীনস্থ্ করে রাখে। এই স্বৈরশাসকদের কিছু সামরিক শক্তি দিয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকেন, কেউ আবার টিকে থাকেন তথাকথিত গণতন্ত্রের আবরণে। বর্তমান বিশ্বের অধিকাংশ দেশ গণতন্ত্র এবং সমাজতন্ত্রের নামে একপ্রকার স্বৈরতন্ত্রিক মনোভাব পোষণ করে শাসনকার্য পরিচালনা করছে। যেটাকে Democracy (গণতন্ত্র) ও Communism (সমাজতন্ত্র) এর খোলস ব্যাবহার করে এক প্রকার Absolutism তথা পরোক্ষ স্বৈরতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা চালু আছে । যেখানে রাষ্ট্রের বড় বড় সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নাগরিকদের মতামতের গ্রহণযোগ্যতা খুবই নগন্য। স্বৈরাচারী শাসকরা ধরার বুকে অসাম্য ও অন্যায়ের দাবানলে দ্বগ্ধ করে বণী আদমকে পদপিষ্ট করে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে চরম নিষ্ঠুরতম পথ বাছাই করে নেয়। ফেরাউন ছিলেন প্রাচীন দুনিয়ার নিষ্ঠুরতম স্বৈরশাসক। তিনি নিজেকে পুরো দুনিয়ার মালিক বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন-আনা রাব্বুকুমুল আলা। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেছে নমরুদসহ অনেকে। ক্ষমতার উত্তাপ সবাই সহ্য করতে পারে না। তাই ক্ষমতার উত্তাপে সবাইকে জ্বালিয়ে ছারখার করে ফেলতে চায়। তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে খুব কম মানুষ। আধুনিক বিশ্বব্যবস্থায় নতুন করে অ্যাডলফ হিটলার স্বৈরতন্ত্রের সূচনা করেন। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করে নানা দেশ নানা ভাবে স্বৈরতন্ত্রের শিকলে আবদ্ধ করে দুনিয়াকে বসবাসের অযোগ্য করে তুলছে নব্য স্বৈরশাসকরা। কেউ ঘোষিত স্বৈরশাসক আবার কেউ বা গণতন্ত্রের ছদ্মাবরণে স্বৈরশাসক। স্বৈরশাসকদের শাসনে মানবতার অপমৃত্যু ঘটে। মুক্তিকামী মানুষ ফুঁসে উঠে। শুরু হয় শাসক ও শোষিতের লড়াই। কোথাও সমাজতান্ত্রিক স্বৈরশাসক কোথাও বা তথাকথিত নির্বাচিত স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে। যার শেষ পরিণতি হয় ভয়াবহ। ইতিহাস শুধু বিখ্যাত মানুষদেরই মনে রাখে না, সেই সাথে কুখ্যাত মানুষদেরও মনে রাখে। আজ আমি সামুর পাঠকদের জন্য ইতিহাসের কয়েকজন স্বৈরশাসকের কথা তুলে ধরছি।

হিটলার
নিষ্ঠুরতার তালিকায় নিঃসন্দেহে সবার আগে থাকবে জার্মানির আডল্ফ হিটলারের নাম৷ অ্যাডলফ হিটলার ছিলেন জার্মানির সর্বকালের সেরা স্বৈরশাসক। ফ্যাসিবাদের জনক হিটলারের রাজ্য জয় ও বর্ণবাদী আগ্রাসনের কারণে লাখ লাখ মানুষকে প্রাণ হারাতে হয়। ৬০ লাখ ইহুদিকে পরিকল্পনা মাফিক হত্যা করা হয়। ইহুদি নিধনের এই ঘটনা ইতিহাসে হলোকস্ট নামে সবাই জানে। ১৯৪৫ সালে যুদ্ধের শেষ দিনগুলোতে হিটলার বার্লিনেই ছিলেন। রেড আর্মি যখন বার্লিন প্রায় দখল করে নিচ্ছিল সেরকম একটা সময়ে তিনি ইভা ব্রাউনকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর ২৪ ঘণ্টা পার হওয়ার আগেই তিনি ফিউরার বাংকারে সস্ত্রীক আত্মহত্যা করেন। তার ক্ষমতা আর দাম্ভিকতা তাকে শেষ রক্ষা করতে পারেনি।

মেঙ্গিস্তু হাইলে মারিয়াম
ইথিওপিয়ার এই সমাজতান্ত্রিক স্বৈরশাসক বিরোধীদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ নির্যাতন চালান৷ ১৯৭৭ থেকে ১৯৭৮— এই বছরেই পাঁচ লাখ মানুষ হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে৷ ক্ষমতা থেকে উৎখাতের পর গণহত্যার অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ তবে মারিয়াম পালিয়ে যান জিম্বাবোয়েতে৷ 

তৈমুর লং
তৈমুর ছিলেন ১৪শ শতকের একজন তুর্কী-মোঙ্গল সেনাধ্যক্ষ। তিনি পশ্চিম ও মধ্য এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চল নিজ দখলে এনে তিমুরীয় সম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার কারণেই তিমুরীয় রাজবংশ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। তার সাম্রাজ্যের বিস্তৃতি ছিল আধুনিক তুরস্ক, সিরিয়া, ইরাক, কুয়েত, ইরান থেকে মধ্য এশিয়ার অধিকাংশ অংশ যার মধ্যে রয়েছে কাজাখস্তান, আফগানিস্তান, রাশিয়া, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, কিরগিজিস্তান, পাকিস্তান, ভারত এমনকি চীনের কাশগর পর্যন্ত। তৈমুরের সৈন্যবাহিনী ছিল বিশ্বের ত্রাস। রাজ্য জয়ের যুদ্ধে সব জায়গাতেই ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালাতেন তৈমুর ও অনেক জনপদ বিরান করে ফেলা হতো। সাবজাওয়ার রাজ্যে, যা বর্তমানে আফগানিস্তান, সেখানে তৈমুরের নির্দেশে টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছিল জীবিত একজন পুরুষের ওপর আরেকজনকে রেখে সিমেন্ট, বালি এবং পানি ‍মিশ্রিত করে। ইরানের ইসপাহানে বিদ্রোহের শাস্তি দিতে জনসাধারণকে গণহত্যার আদেশ দিয়েছিলেন এবং ৭০ হাজার মাথার সমন্বয়ে মিনার তৈরি করেছিলেন।

চেঙ্গিস খান
বিশ্বের ইতিহাসে মোঙ্গল সম্রাট চেঙ্গিস খান একজন ভয়ংকর যোদ্ধা হিসেবে পরিচিত। ত্রয়োদশ শতাব্দীতে বিশ্বের প্রায় এক-চতুর্থাংশ জায়গা দখল করে নিয়েছিলেন চেঙ্গিস খান। এক সাধারণ গোত্রপতি থেকে নিজ নেতৃত্বগুণে বিশাল সেনাবাহিনী তৈরি করেছিলেন। ইতিহাসে তিনি অন্যতম বিখ্যাত সেনাধ্যক্ষ ও সেনাপতি। তাকে মঙ্গোল জাতির পিতা বলা হয়ে থাকে। তবে বিশ্বের কিছু অঞ্চলে চেঙ্গিস খান অতি নির্মম ও রক্তপিপাসু বিজেতা হিসেবে চিহ্নিত। বীভৎস ধ্বংসলীলা ও নিষ্ঠুরতার মধ্য দিয়ে তার প্রতিটি আক্রমণ ও বিজয় পরিচালিত হয়েছিল। একের পর এক রাজ্য দখল করতে তার নির্দেশে সেনারা যে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল, এতে ঝরে যায় কয়েক কোটি প্রাণ। কোনো দেশ দখল করার পর তিনি পরাজিত সম্রাটের কাউকেই বাঁচিয়ে রাখতেন না। এমনকি শিশুদেরও না।

জোসেফ স্টালিন
নির্মমতার দিক থেকে যে সব শাসক ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিয়েছেন তাদের মধ্যো জোসেফ স্টালিন অন্যতম। রুশ ভাষায় ‘স্টালিন’ মানে হচ্ছে ‘লৌহ মানব’। স্টালিন একজন রুশ সাম্যবাদী রাজনীতিবিদ পশ্চিমারা যাকে প্রচন্ড একগুয়ে, দাম্ভিক, চতুর স্বৈরশাসক উপাধি দিয়েছে সেই তিনি এক নাগারে ৩১ বছর (১৯৪১ সালের ৬ মে থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত) শাসন করেছেন পুরো সোভিয়েত সাম্রাজ্য। যে সব শাসক ঐতিহাসিকভাবে খ্যাতি পেয়েছেন তাদের মধ্যেই স্টালিন রাজনৈতিক ক্ষমতা অপব্যবহারে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন। তার আদেশ পালনে লাখ লাখ কৃষককে অভুক্ত রেখে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছিল। নিজের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে কমিউনিস্ট পার্টির শত্রু সন্দেহে অন্তত ২০ লাখ মানুষকে হত্যা করেন।

মাও সে তুং
মাও-কে বলা যেতে পারে আধুনিক চীনের রূপকার৷ তার বিরুদ্ধেও রয়েছে বহু মানুষকে হত্যার অভিযোগ৷ ১৯৫৮ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের অনুসরণে অর্থনৈতিক মডেল দিয়ে উন্নয়নের কথা বলেন৷ হত্যা করা হয় সাড়ে চার কোটি মানুষকে৷ ১০ বছর পর সাংস্কৃতিক বিপ্লবের নামে আরো প্রায় তিন কোটি মানুষকে হত্যার অভিযোগও রয়েছে মাও-এর বিরুদ্ধে৷। ১৯৪৯ সালে সমাজতন্ত্রী চীনের প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৯৭৬ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি চীন শাসন করেন। ১৯৭৬ সালের৯ সেপ্টেম্বর (বয়স ৮২ বছর বয়সে চীনের বেইজিংয়ে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। 

বেনিতো মুসোলিনি
বেনিতো মুসোলিনি ছিলেন দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ কালে ইতালির সর্বাধিনায়ক। ইতালির এই একনায়ক ১৯২২ সাল থেকে ১৯৪৩ সালে তার ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পুর্ব পর্যন্ত সমগ্র রাষ্ট্রের ক্ষমতাধর ছিলেন। ১৯২২ সালে তিনি রোম অভিযান করে দখলের মাধ্যমে ইতালির ৪০তম প্রধানমন্ত্রী হন। ইটালির রাজা ভিক্টর তৃতীয় ইমানুয়েল বিনা প্রতিবাদে তার হাতে ক্ষমতা তুলে দেন। মুসোলিনি ৭০০০-এর বেশি ইহুদিকে ইতালি থেকে বহিষ্কার করেছিলেন। এদের মধ্যে প্রায় ৬০০০ ইহুদিকে পরে হত্যা করা হয়েছিল। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধকালে জার্মান একনায়ক অ্যাডলফ হিটলারের একান্ত বন্ধুতে পরিনত হন মুসোলিনি। ১৯৪৩ সালে সিসিলিতে ক্ষমতাচ্যুত হলে তাকে বন্দী করা হয়। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে হিটলারের নির্দেশে জার্মান সেনাদের একটি চৌকশ দল মুক্ত করে মুসোলিনিকে। ১৯৪৫ সালের ২৭ এপ্রিল সুইজারল্যান্ডে পালানোর সময় ইতালির একটি ছোট্ট গ্রামে কমিউনিস্ট প্রতিরোধ বাহিনীর বাহিনীর হাতে ধরা পরে এবং পরে তাকে হত্যা করা হয়।

ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কো
১৯৩৬ থেকে ১৯৭৫ সময়কাল পর্যন্ত স্পেনের স্বৈরশাসক ছিলেন। এছাড়াও, ১৯৪৭ থেকে ১৯৭৫ মেয়াদকালে স্পেনীয় রাজতন্ত্রের প্রতিনিধি ছিলেন তিনি। স্পেনের গৃহযুদ্ধের সময় জেনারেল ফ্রাঙ্কো ফ্যাসিবাদী ইতালি ও নাজি জার্মানির মদদপুষ্ট জাতীয়তাবাদী বাহিনীর প্রধান হিসেবে স্পেনের নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করেন। ফলে জাতীয়তাবাদীরা ১৯৩৯ সালে বিজয়ী হয় ও ফ্রাঙ্কো এল কদিলো বা স্পেনের নেতা নির্বাচিত হয়ে আমৃত্যু দেশ শাসন করে ইউরোপের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী স্বৈরশাসকের মর্যাদা পান। তবে ইতিহাসে তিনি সর্বাপেক্ষা বিতর্কিত মতবাদের জন্য চিহ্নিত হয়ে আছেন।স্পেনের গৃহযুদ্ধে জয়ী হয়ে ১৯৩৯ সালে ক্ষমতায় আসেন জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কো৷ গৃহযুদ্ধ ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে অন্তত দেড় লাখ বেসামরিক মানুষকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে৷ যুদ্ধের পরও কমপক্ষে ২০ হাজার বেসামরিক মানুষকে হত্যার অভিযোগও রয়েছে৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অক্ষশক্তির অন্যসব শাসকের পতন ঘটলেও ফ্রাঙ্কো ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৭৫ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত৷ ১৯৭৫ সালের ২০ নভেম্বর স্পেনের মাদ্রিদে মৃত্যুবরণ করেন।

নেপোলিয়ান
ফ্রান্সের নেপোলিয়ান, তার বিশাল সাম্রাজ্যের বিস্তার ছিলো মাদ্রিদ থেকে মস্কো পর্যন্ত, সম্রাট হন তিনি ফ্রান্স এবং অর্ধ পৃথিবীর। পৃথিবীর মানুষ তাকে মনে রাখবে একজন রাষ্ট্রনায়ক হিসাবে। কিন্তু কিছু মানুষ তাকে বেশিদিন রাজত্ব করতে দেয়নি এবং তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। একটু ইতিহাসের পাতা থেকে ঘুরে আসলে দেখা যাবে, ফরাসী জাতি সারা বিশ্বে একটি সম্মানিত জাতি, ইউরোপের কেন্দ্রবিন্দু। আর ফ্রান্সের এই সফলতার একমাত্র নায়ক নেপোলিয়ান। নিজের দেশে সম্রাট ছিলেন মর্যাদাবান। কিন্তু বাইরের দেশে তার রূপ ছিলো ভিন্ন। সম্রাটের সাম্রাজ্যবাদী শক্তি অন্য দেশের জন্য হুমকি বলে মনে করা হত। তাই তারা তাকে ভাল দৃষ্টিতে দেখতে পারেনি। তাই সম্রাটের বিরোধী দলগুলো জোট বাঁধে নেপোলিয়ানের বিরুদ্ধে। নিজ দেশের জনমতকে উপেক্ষা করে তার সম্রাজ্য সাম্প্রসারণের প্রধান শত্রু ব্রিটেন, ক্রোয়েশিয়া ও রাশিয়াকে ধ্বংস করে দেশ দখলের নিমিত্তে নেপোলিয়ান ৫ লাখ সৈন্য নিয়ে রাশিয়া আক্রমণ করেন। কিছু দেশ তার আয়ত্বে চলে আসে। রাশিয়া, ব্রিটেন ও ক্রোয়েশিয়া নেপোলিয়নের বেপরোয়া সম্রাজ্য সম্প্রসারণ ঠেকাতে চুক্তিবদ্ধ হয়। শক্র বাহিনীর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আক্রমণে নেপোলিয়ান পরাজিত হয়ে পড়েন এবং এক সময় তিনি রাজত্ব হারান। ক্ষমতাধর নেপোলিয়নের একনায়কতন্ত্রের মসনদ তাকে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে অপদস্থ ও অপমানিত করে স্বৈরশাসকদের তালিকায় যুক্ত করেছে। ক্ষমতান্ধতা তার অভূতপূর্ব জনকল্যাণকর কাজসমূহকে ম্লান করে দেয়।

পল পট
খেমাররুজদের সংগঠক এবং নেতা ছিলেন পল পট। তার নেতৃত্বে খেমাররুজরা ১৯৭৫-৭৯ সাল পর্যন্ত কম্বোডিয়ার শাসন ক্ষমতায় ছিল। তাদের শাসনামলের মাত্র চার বছরে তারা কম্বোডিয়ায় যে পরিমাণ গণহত্যা চালায়, তা পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে ঘৃণ্য এবং নৃশংসতম গণহত্যার একটি বলে পরিচিত। সেই কারণে খেমাররুজদের কুখ্যাত নেতা পল পটকে ইতিহাসের অন্যতম ভয়ঙ্কর, নৃশংস হত্যাকারী এক স্বৈরশাসক বললে খুব একটা বাড়িয়ে বলা হয় না। খেমার রুজ আন্দোলনের নেতা ছিলেন পল পট৷ ক্ষমতায় আরোহণের পরবর্তী ১০ বছরে ৪০ লাখ মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয় তাকে৷ বেশিরভাগের মৃত্যু হয় শ্রম ক্যাম্পে অনাহারে অথবা কারাগারে নির্যাতনের ফলে৷ ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত কম্বোডিয়ার বনে পল পট গেরিলাদের উপস্থিতি ছিল৷নব্বইযের দশকের মাঝামাঝি সময়ে কম্বোডিয়ার নবগঠিত সরকার খেমাররুজদের নিশ্চিহ্ন করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করে। ধীরে ধীরে খেমাররুজদের সংখ্যা আরও কমতে থাকে এবং পল পটের কাছের বন্ধুদের অনেকেই মারা যায় অথবা আত্মসমর্পণ করে। ১৯৯৬ সালে পল পট খেমাররুজদের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন এবং নিজের সৈন্যদের দ্বারাই অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। কম্বোডিয়ার আদালত তার অনুপস্থিতিতেই তার মৃত্যুদন্ডাদেশ দেয়। খেমাররুজরাও তার লোকদেখানো বিচার করে এবং তাকে যাবজ্জীবন গৃহবন্দীত্বের সাজা প্রদান করে।১৯৯৮ সালে খেমাররুজরা পল পটকে কম্বোডিয়ান সরকারের কাছে হস্তান্তর করতে সম্মত হয়। সম্ভবত এ কারণেই ৭২ বছর বয়সী খেমাররুজদের পরাজিত, বন্দী নেতা পল পট আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। মৃত্যুর পর কম্বোডিয়ার সরকার তার মৃতদেহের ময়নাতদন্ত করতে চাইলে খেমাররুজরা তাতে বাধা দেয়। তারা পল পটের মৃতদেহ পুড়িয়ে সে ছাই ছড়িয়ে দেয় উত্তর কম্বোডিয়ার বনাঞ্চলে, যেখানে প্রায় ২০ বছর ধরে পল পট তার বাহিনীকে টিকিয়ে রেখেছিলেন। তার মৃত্যুর মধ্য দিয়েই শেষ হয় কুখ্যাত এক স্বৈরশাসকের জীবনের আখ্যান।

বাশার আল আসাদ
সিরিয়ার বাশার আল আসাদ গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচিত হয়ে বিরোধী সকল মতকে উপেক্ষা করে স্বীয় মতকে চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে আসাদ বিরোধীরা প্রতিবাদ করে। শুরু হয় তার দমন-পীড়ন। এমন সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সাম্রাজ্যবাদীরা তাদের স্বার্থ হাসিল করার জন্য বিরোধীদের উস্কাতে থাকে এবং আসাদ সরকারকে পরাস্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় অস্ত্র ও অর্থ যোগান দিয়ে যাচ্ছে। এর ফলশ্রুতিতে সিরিয়াতে আসাদ সরকার ও বিরোধী জোট এক ভয়াবহ সংঘাতে লিপ্ত হয়েছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন যদি আসাদ ও তার বিরোধী জোট সমস্যা সমাধানে না পৌঁছে তাহলে দেশটিতে এক ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় ঘটবে এবং সিরিয়ার অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে পশ্চিমা বিশ্ব যে ভাবে মাথা ঘামাচ্ছে তাতে এর অবস্থা ইরাকের চাইতেও ভয়াবহ হবে। প্রতিনিয়ত সরকার ও বিরোধীদের সংঘর্ষে বেসামরিক বহু হতাহতের ঘটনা ঘটছে। এর সমাধানে আসাদের লক্ষ্যণীয় ভূমিকা না থাকায় দেশাভ্যন্তরে আসাদের বিরুদ্ধে জনগণ ফুঁসে উঠছে আবার অন্যদিকে বহির্বিশ্বও মাতব্বরি করছে। এতে স্পষ্ট যে আসাদের স্বৈরনীতিই তাকে অপদস্ত করে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ক্ষমতাচ্চ্যুত করবে।

ইয়াহিয়া খান
১৯৬৬ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দায়িত্ব পান ইয়াহিয়া খান৷ সে বছরই স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের কাছ থেকে পাকিস্তানের শাসনভার গ্রহণ করেন তিনি৷ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় তার আদেশেই পাকিস্তান সেনাবাহিনী তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তানে হত্যাযজ্ঞ চালায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ হত্যা ও দুই লাখ নারীকে ধর্ষণ করে পাকিস্তানি বাহিনী৷ পরবর্তীতে বাংলাদেশ গণহত্যা নামে পরিচিত এই নৃশংস ঘটনার জন্য দায়ী করা হয় তাকে। এই যুদ্ধে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর ইয়াহিয়া খান জুলফিকার আলী ভুট্টোর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেন। ইয়াহিয়া খান ১০ই আগস্ট, ১৯৮০ পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে মৃত্যুবরণ করেন।

ফ্রাঁসোয়া দুভেলিয়ে
১৯৫৭ সালে হাইতির ক্ষমতায় বসেন দুভেলিয়ে৷ হাজার হাজার বিরোধী নেতা-কর্মীদের হত্যার নির্দেশ দেন তিনি৷ কালো জাদু দিয়ে মানুষকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখেন, এমন দাবিও করতেন তিনি৷ হাইতিয়ানদের কাছে ‘পাপা ডক’ নামে খ্যাত ছিলেন এই স্বৈরশাসক। ১৯৭১ সালে মৃত্যুর পর তার ১৯ বছর বয়সি ছেলে জ্যঁ ক্লদ দুভেলিয়ে স্বৈরশাসক হন৷

অগাস্তো পিনোশে
চিলির সামরিক বাহিনীর প্রধান অগাস্তো পিনোশে দেশটির সমাজতান্ত্রিক সরকারকে উচ্ছেদ করে ক্ষমতা দখল করেন ১৯৭৩ সালে৷ ক্ষমতায় আসার পর দেশ থেকে বামপন্থা নির্মূলের লক্ষ্যে হাজার হাজার বিরোধী কর্মীকে হত্যা নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে পিনোশের বিরুদ্ধে৷চিলির সাবেক সামরিক শাসক জেনারেল অগাস্তো। পিনোশের শাসনামলে যেসব মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছিল বলে তালিকাভুক্ত হয়েছে, তাদের চেয়ে অনেক বেশি লোক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা তদন্তে গঠিত একটি কমিশন এ তথ্য পাওয়ার কথা দাবি করেছে। কমিশনের পরিচালক মারিয়া লুইসা সেপুলভেদা বলেন, তাঁরা আরও নয় হাজার ৮০০ ব্যক্তিকে শনাক্ত করেছেন, যাঁদের রাজনৈতিক বন্দী হিসেবে আটক করে নির্যাতন করা হয়েছিল। এ নিয়ে নির্যাতনের শিকার মানুষের সংখ্যা দাঁড়াল ৪০ হাজার ৮০ জনে।

রবার্ট মুগাবে
জিম্বাবুয়ের রবার্ট মুগাবে, ১৯৮০ সালে দেশটি ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে মুগাবে শাসন ভার নিয়েছেন। ৩৩ বছর ধরে তার শাসনই চলে আসছে। নতুন সংবিধানের অধীনে প্রথম নির্বাচনে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট মুগাবে ৬১ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়লাভ করে। যদিও বিরোধীরা এ নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন বলে দাবি করেছেন। দেশটিতে আবার সরকারবিরোধী আন্দোলন ও সহিংসতার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা। ১৯৯৬ সালের দিকে জিম্বাবুয়ের সাধারণ মানুষের মধ্যে মুগাবের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ব্যাপক অসন্তোষ দেখা দেয়। উচ্চ মুদ্রাস্ফীতি, শ্বেতাঙ্গদের জমি কোনো ক্ষতিপূরণ ছাড়াই বাজেয়াপ্ত করা, জিম্বাবুয়েকে সাংবিধানিকভাবে একদলীয় রাষ্ট্রে পরিণত করা ইত্যাদি কারণ তাকে স্বাধীন জিম্বাবুয়ের নায়ক থেকে ধীরে ধীরে খলনায়কে পরিণত করে।একদা শক্ত হাতে দেশ চালানো এ নেতা ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ সালে সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মুগাবের শুরুটা ছিল জনপ্রিয় নেতা হিসেবে, কিন্তু ক্ষমতার অন্ধ প্রকোষ্ঠে কোথায় যেন সেই জনপ্রিয়তা হারিয়ে তিনি পরিণত হয়েছিলেন একনায়কে। যে জনগণের স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছিলেন যৌবনে, তারাই তার বার্ধক্যে স্বৈরাচারীর তকমা এঁটে বিদায় জানায়।

হোসনী মোবারক 
মিসরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলীর পর হোসনী মোবারক সে দেশের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী শাসক। আরব বিশ্বে লম্বা সময় দেশ শাসন করছেন অনেকে। হোসনী মোবারক তাদের অন্যতম। ১৯৮১ সালের ৬ অক্টোবর সেনাবাহিনী এক সদস্য কর্তৃক তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সা’দাত নিহত হওয়ার পর হোসনী মোবারক ক্ষমতায় আসেন। জাতীয় নির্বাচনে পার্লামেন্ট অনুমোদিত মাত্র একজন প্রার্থী অংশ নিয়েছিলেন সেই প্রার্থী ছিলেন হোসনী মোবারক। ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার দায়ে বিশ্বজুড়ে তিনি নিন্দিত। মিসরে গণজাগরণের মাধ্যমে তাকে লাঞ্ছিত হয়ে ক্ষমতাচ্যুত হতে হয়। আর বর্তমান মিসরের রাজনৈতিক উত্তপ্ততার জন্য তাকেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা দায়ী করছেন।

সাদ্দাম হোসেন
ইরাকের স্বৈরাচারী একনায়ক সাদ্দাম হোসেনের পতন হয় ২০০৩ সালে। সে সময় ইরাকে বহু অস্থিরতা, অনিশ্চয়তা ও রক্তক্ষয় দেখা গেছে। সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর তার হত্যাকা- নিয়ে মূল্যায়নের শেষ নেই। বলা হয়ে থাকে একনায়তান্ত্রিক শাসন ও অন্যান্য দেশের কূটনৈতিক সম্পর্ককে গুরুত্ব না দেয়ায় তার বিরুদ্ধে ক্ষেপে ওঠে পশ্চিমা বিশ্ব। আর তাই তাকে জনমত নিয়ে জনসম্মুখে মৃত্যুদ- দেয়া হয়। বিদেশী প্রভুদের যতই হস্তক্ষেপ থাকুক না কেন জনগণ যদি তার সাথে থাকত তাহলে হয়তবা এই পরিণতি হত না। সাদ্দামের জনবিচ্ছিন্ন বেপরোয়া শাসননীতিতে মার্কিনীরা যেমন তাকে ক্ষমতাচ্যুৎ করতে সচেষ্ট হয় একি ভাবে ইরাকী জনগণও তার বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করে। তার স্বৈরনীতির শেষ ফল হিসেবে ২০০৬ সালে মার্কিন সেনারা তাকে টেনেহিঁচড়ে গর্ত থেকে বের করে এবং ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলায়। এ ধরনের শাসকরা তাদের স্বৈরনীতির কারণেই লাঞ্ছিত হয় বা মৃত্যুমুখে পতিত হয় শুধু তাই নয় বরং একটি জাতিকেও মেরুদ-হীন করে অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে ঠেলে দেয়। 

ইদি আমিন
উগান্ডার স্বৈরাচারী কসাই ইদি আমি।আফ্রিকার দেশ উগান্ডার ক্ষমতায় সাত বছর ছিলেন ইদি আমিন৷ ‘দ্য বুচার অব উগান্ডা’ নামে সমধিক পরিচিত ইদি আমিন দাদা আফ্রিকার ইতিহাসে অন্যতম বর্বর ও স্বৈরাচারী একনায়ক। ১৯৭০ এর দশকে উগান্ডায় সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় আরোহণ করেন এবং আট বছরের শাসনামলে ১ লক্ষের অধিক মানুষকে হত্যা, গুম, নির্যাতন, নির্বাসন কিংবা ফাঁসি দেন এই উগান্ডান কসাই। লিবিয়ায় দশ বছর কাটানোর পর ১৯৮৯ সালে সৌদি আরবে চলে যান ইদি আমিন। এতে আরো একবার প্রমাণ হয়ে যায় যে, স্বৈরাচারী শাসক যত শক্তিশালীই হোক, তার পতন অনিবার্য, তার শেষটা হয় করুণভাবে। বরং নিজের কর্মকাণ্ডের জন্য তারা চিরকাল মানুষের ঘৃণার পাত্র হয়ে থাকেন। তবে এই সংখ্যাটি অনেক হিসেবে ৫ লক্ষও ছাড়িয়েছে!উৎখাত হওয়ার পর সৌদি আরবে পালিয়ে গিয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বিলাসী জীবনযাপন করেছেন এই একনায়ক৷সেখানেই নির্বাসন জীবনে ২০০৩ সালের ১৬ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন ‘বুচার অব উগান্ডা’ নামে কুখ্যাত এই একনায়ক। 

কিম ইল সুং
কিম ইল সুং উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে তার অধিকার প্রয়োগ অনেক সময়-ই স্বৈরাচার হিসেবে বর্ণিত হয়, তিনি সর্বব্যাপী নিজেকে আর্চনীয় ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। তার দায়িত্ব পালনের সময়, ৬ জন দক্ষিণ কোরীয় রাষ্ট্রপতি, ৭ জন সোভিয়েত রাষ্ট্রনায়ক, ১০ জন মার্কিন রাষ্ট্রপতি, ১০ জন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী, ২১ জন জাপানী প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রক্ষমতায় পালাবদল করে দায়িত্ব পালন করেছে। উত্তর কোরিয়ার এই নেতাই দেশটিতে কিম বংশের শাসন চালু করেন৷ ১৯৫০ সালে উত্তর কোরিয়া দখল করে দক্ষিণ কোরিয়ায় অভিযান চালালে শুরু হয় কোরিয়ান যুদ্ধ৷ এই যুদ্ধে মার্কিন সেনা এবং জাতিসংঘের সেনারাও জড়িয়ে পড়ে৷ এ যুদ্ধে উভয় পক্ষে মারা যান ১০ লাখেরও বেশি মানুষ৷১৯৯৪ সালের ৮ জুলাই কোরিয়ার পিয়ং ইয়াংয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

মুয়াম্মার গাদ্দাফি
৪২ বছর ধরে লিবিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন মুয়াম্মার গাদ্দাফি৷ হাজার হাজার মানুষকে, বিশেষ করে গণতন্ত্রকামীদের নির্বিচারে হত্যা ও নারীদের ধর্ষন, যৌন নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে তার শাসনামলে৷লিবিয়ার মুয়াম্মার গাদ্দাফি জনপ্রিয় ‘ব্রাদারলি লিডার হলেও তিনি মূলত একনায়ক, স্বৈরশাসক হিসেবেই পরিচিত। দীর্ঘ ৪২ বছর তিনি এক হাতে শাসন করেছেন উত্তর আফ্রিকার দেশ লিবিয়া। দেশ-বিদেশে সুনামের পাশাপাশি তাকে নিয়ে বিতর্কেরও শেষ নেই। গাদ্দাফি ফিলিস্তিনের ‘প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন’র একজন ভক্ত হলেও পশ্চিমাবিরোধী নীতির কারণে গাদ্দাফিকে পশ্চিমারা সব সময়ই নেতিবাচক চোখে দেখেছে। কূটনৈতিক অঙ্গনেও তার প্রতি দৃষ্টি তেমনই। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান নিজেই গাদ্দাফিকে ‘মধ্যপ্রাচ্যের পাগলা কুকুর’ বলে অভিহিত করেন। তারা একাধিকবার গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চেষ্টা চালায়। সর্বশেষ বিদ্রোহীরা তার বাব আল আজিজিয়া প্রাসাদ দখল করে নেয়। সেখান থেকে তার আগেই পালিয়ে যান মুয়াম্মার গাদ্দাফি ও তার পরিবারের সদস্যরা। এর মধ্য দিয়েই মূলত গাদ্দাফির পতন ঘটে। তারপরও তার অনুগতরা লড়াই চালিয়ে যেতে থাকে। সর্বশেষ তারা তার জন্মশহর সির্তে অভিযান চালায়। সেই অভিযানেই গুলিবিদ্ধ হন গাদ্দাফি। দীর্ঘদিন ক্ষমতাসীন থাকার সুবাদে তার মাঝে স্বৈরতান্ত্রিকতা জেঁকে বসে। এমন সুযোগেই জেনারেল গাদ্দাফির পতনের জন্য তার কাছের লোকরাই শত্রুদের সাথে হাত মিলায়। ২০১১ সালে এক অভ্যুত্থানে তাকে উৎখাত ও হত্যা করা হয়৷ তারপর থেকে গৃহযুদ্ধ চলছে দেশটিতে৷

জিয়াউর রহমান
পৃথিবীর ইতিহাসে নিষ্ঠুর স্বৈরশাসক অবৈধভাবে ক্ষমতা গ্রহণ করে দীর্ঘদিন যাবত দেশ পরিচালনা করেন। যাদের মধ্যে বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের নামও রয়েছে। জার্মানির বিখ্যাত গণমাধ্যম ডয়চে ভেলে তার নাম প্রকাশ করেছে। জিয়াউর রহমান ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি আবু সাদাত সায়েম এঁর উত্তরসূরি হিসেবে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৮১ সালের ৩০ মে পর্যন্ত রাষ্ট্র পরিচালনা করেন। জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তিনি সেনাবাহিনীতে তার বিরোধিতাকারীদের নিপীড়ন করতেন। অনেক উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তা জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন। বিপদের সমূহ সম্ভবনা জেনেও জিয়া চট্টগ্রামের স্থানীয় সেনাকর্মকর্তাদের মধ্যে ঘঠিত কলহ থামানোর জন্য ১৯৮১ সালের ২৯শে মে চট্টগ্রামে আসেন এবং সেখানে চট্টগ্রামের সার্কিট হাউসে থাকেন। তারপর ৩০শে মে গভীর রাতে সার্কিট হাউসে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে জিয়া নিহত হন। 

হু,মো এরশাদ 
এরশাদ সুনিশ্চিতভাবে স্বৈরশাসক ছিলেন। একনাগাড়ে সবচেয়ে বেশিদিন দেশ পরিচালনা করে অবশেষে আন্দোলনের মুখেই পদত্যাগে বাধ্য হন তিনি। সাবেক সেনা শাসক হিসাবে সামরিক শাসন জারি করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের কারণেই এইচ এম এরশাদের পতন হয়েছিল। যার বিচার বাংলাদেশের আদালতে হয়নি। বরং তিনি সংসদ সদস্য হিসাবে এদেশে গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে দুই যুগ দাপিয়ে বেড়িয়েছেন। আন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতা হারানোর পর এরশাদ গ্রেফতার হলে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না-আসা পর্যন্ত কারারূদ্ধ থাকেন। বিএনপি সরকার তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে। তার মধ্যে কয়েকটিতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হন এবং সাজাপ্রাপ্ত হন। । ছয় বছর অবরুদ্ধ থাকার পর ৯ জানুয়ারি ১৯৯৭ সালে তিনি জামিনে মুক্তি পান। শারীরিক অসুস্থতার দরুন ২০১৯ সালের ২৬ জুন তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ৪ জুলাই তাকে নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। তিনি ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী

মা

১.জগতের যতো সুখটুকু আছে
এনে দিয়েছ আমারই কাছে
অতঃপর তুমি লুকায়ে কত
দুঃখ করেছ বরণ;
তোমার সকল আমার জন্য
বিলিয়ে দিয়ে হয়েছ ধন্য
বিশ্বমাঝে অমূল্য তাই
তোমার দুটি চরণ।

২.সুঁইয়ের টানে সম্মুখে যায় মা
পেছন দিকে আঁচল টানে ছেলে
স্বপ্ন বোনে কাঁথার ভাঁজে ভাঁজে
সূর্য ওঠে আঁধার ঠেলে ঠেলে।

৩.গামছায় বেঁধে খাবার এনে দিয়েছে বাবার হাতে
সবটুকু খাও একটি ভাতও থাকে না যেন পাতে;
কতোটা খেয়াল বাবার জন্য কতোটা আদর যত্ন
বাবার বুকে গোপন আবাসে মেয়েরা আজব রত্ন!

আহলান সাহলান

আহলান সাহলান মাহে রামাদানঃ রোযা প্রত্যেক ঈমানদার নর-নারীদের জন্য ফরয

২৪ শে এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৪১এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে : 

আহলান সাহলামন মাহে রামাদান।বাংলাদেশের আকাশে পবিত্র রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে আগামীকাল শনিবার (২৫ এপ্রিল) থেকে শুরু হলো সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। আজ দিবাগত রাতে এশার নামাজের পরে তারাবি নামাজের মধ্যদিয়ে শুরু হবে সিয়াম সাধনা ও তাকওয়া অর্জনের মাস রামাদান। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এবারে এক ভিন্ন আমেজে শুরু হচ্ছে পবিত্র কোরআন শরিফ নাজিলের এই মাসটি। পবিত্র রমজান মাসের এই উৎসবেও পড়েছে করোনার করাল ছায়া। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যেই দোরগোড়ায় পবিত্র রমজান। শত শত বছর ধরে চর্চা করে আসা এই দেশের মুসলিমরা রোযার রাখার পূর্বে তারাবি নামাজ পড়তে অভ্যস্ত। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারা বিশ্বেই মসজিদে নামাজ পড়া বন্ধ রয়েছে। শুধু নিজেকে রক্ষা নয়, সেই সঙ্গে নিজের পাশে থাকা মুসলিম ভাইকে রক্ষার জন্যই এই ব্যবস্থাপনা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন। আগামীকাল শনিবার থেকে বাংলাদেশে শুরু হবে মুসলিমদের জন্য সবচাইতে পবিত্র মাস রমযান। আর এই মাসকে ঘিরে আবারো বিতর্ক শুরু হয়েছে মসজিদে নামাজ পড়ার বিষয়ে। করোনা সংক্রমণ থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ১০ জন মুসল্লি ও দু’জন হাফেজসহ মোট ১২ জন রমজান মাসে মসজিদগুলোতে এশা ও তারাবির নামাজ আদায়ের সুযোগ পাবেন বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ। ইসলামিক ফাউন্ডেশনও বলছে, স্টাফ ছাড়া অর্থাৎ খতিব, ইমাম, মোয়াজ্জিন, খাদেমরা ছাড়া কেউ মসজিদে তারাবি নামাজ আদায় করতে পারবেন না। ঘরেই নামাজ আদায় করতে হবে। নভেল করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় পবিত্র রমজান মাসে তারাবির নামাজ মসজিদের পরিবর্তে ঘরে পড়ার জন মুসল্লিদের আহ্বান জানিয়েছে সরকার। অন্যথায় স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর ব্যবস্থা নেবে।শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) সকালে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (প্রশাসন) দেলোয়ারা বেগম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা বলা হয়েছে।করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি মোকাবেলায় দুই পবিত্র মসজিদ মসজিদুল হারাম ও হারামাইন শরিফাইনে সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে তারাবির নামাজ। মক্কার মসজিদুল হারাম ও মদিনার মসজিদে নববীতে ১০ রাকাত তারাবির নামাজ আদায়ের অনুমতি দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ। বিশ রাকাতের স্থলে তারাবি হবে পাঁচ সালামে মোট দশ রাকাত। দুই পবিত্র মসজিদে ইতিকাফও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এর আগে মুসল্লিদের তারাবি, ইফতার ও ঈদের নামাজও ঘরে আদায়ের পরামর্শ দিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। বেতরের নামাজে কুনুতের দোয়া সংক্ষেপ তবে অর্থবহ করে উপস্থাপন করা হবে

রামাদান, কল্যাণ ও বরকতের মাস; রহমত, মাগফিরাত এবং জাহান্নামের অগ্নি থেকে মুক্তি লাভের মাস রোযা রাখার মাস। মহান আল্লাহ এ মাসটিকে বহু ফযীলত ও মর্যাদা দিয়ে অভিষিক্ত করেছেন। তবে এই রোযা কবে থেকে চালু হয়েছিল তার বিশদ বিবরণ পাওয়া খুবই মুশকিল। আল্লাহ তা’আলা পবিত্র কোরআনে বলেন,
” হে ঈমানদারগণ! তোমদের উপর রোযা ফরয করে দেয়া হয়েছে, যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর ফরয করা হয়েছিল, যাতে তোমরা মুত্তাকী হতে পার ।’’ (সূরা আল-বাকারাহঃ ১৮৩)
এ আয়াত দ্বারা বোঝা যায় যে, মুহাম্মদ (স.)-এর পূর্ববর্তী উম্মতগণের ওপরও রোজা ফরজ ছিল।
(ফাতহুল বারী ৪র্থ খণ্ড ১০২-১০৩ পৃষ্ঠা) বর্ণিতঃ হযরত আদম (আঃ) যখন নিষিদ্ধ ফল খেয়েছিলেন এবং তারপর তাওবাহ করেছিলেন তখন ৩০ দিন পর্যন্ত তাঁর তাওবাহ কবুল হয়নি। ৩০ দিন পর তার তাওবাহ কবুল হয়। তারপর তাঁর সন্তানদের উপরে ৩০টি রোজা ফরজ করে দেয়া হয়।
মুসলমানদের জন্য সিয়াম পালন তথা রোযা রাখা ফরয এবং ইসলামের একটি অন্যতম রুকন। পবিত্র রামাদান মাসে যেসব দায়িত্ব ও কাজ শরীয়ত কর্তৃক অর্পিত হয়েছে কিংবা যা পালনে শরীয়ত আমাদের উদ্বুদ্ধ করেছে ও যা বর্জন করতে নির্দেশ দিয়েছে। তা নিষ্ঠার সাথে পালন করতে হবে। রামাদান মাসে শরীয়ত যে নির্দেশ দিয়েছে সেগুলো হলোঃ রমাদান মাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজই হল সিয়াম। সিয়াম হল ফজরের উদয়লগ্ন থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নিয়্যাতসহ পানাহার ও যৌন মিলন থেকে বিরত থাকা।
১) রামাদান আল-কুরআনের মাসঃ আল্লাহ এই মাসকে কুরআন নাযিলের মর্যাদাপূর্ণ মাস হিসেবে চয়ন করেছেন। তিনি বলেন-রামাদান মাস – এতে কুরআন নাযিল হয়েছে।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ১৮৫)
২) পবিত্র এ মাসে জান্নাতের দ্বারসমূহ উন্মুক্ত রাখা হয়, জাহান্নামের দ্বারসমূহ রুদ্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তান ও দুষ্ট জিনদের শৃংখলিত করে রাখা হয়।
৩) এ মাসে রয়েছে লাইলাতুল ক্বদেরর ন্যায় বরকতময় রজনী, শান্তিময় এ রজনী, ঊষার আবির্ভাব পর্যন্ত। (সূরা আল-ক্বদরঃ ৩-৫) মহান আল্লাহ বলেন-লাইলাতুল ক্বদর হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।এ রাত্রে ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হন প্রত্যেক কাজে, তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে।
৪) এ মাস দো‘আ কবুলের মাসঃ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘‘(রামাদানের) প্রতি দিন ও রাতে আল্লাহর কাছে বান্দার দো‘আ কবুল হয়ে থাকে এবং বহু বান্দা জাহান্নাম থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত হয়ে থাকে। সহীহ সনদে ইমাম আহমদ কতৃক বর্ণিত, হাদীস নং ৭৪৫০)। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে, তারা যেন এ মাসে রোযা পালন করে।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ১৮৫)। রোযার গুরুত্ব আরো প্রকটিত হয় সে সব ফযীলতের দ্বারা, যাদ্বারা একে বিশেষত্ব দান করা হয়েছে। সে সবের মধ্যে রয়েছেঃ
১. রোযার পুরস্কার আল্লাহ স্বয়ং নিজে প্রদান করবেনঃ
একটি হাদীসে কুদসীতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-আল্লাহ বলেন, ‘‘বনী আদমের সকল আমল তার জন্য, অবশ্য রোযার কথা আলাদা, কেননা রোযা আমার জন্য এবং আমিই এর পুরস্কার দিব।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫, ৫৫৮৩ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬০)
২. রোযা রাখা গোনাহের কাফফারা স্বরূপ এবং ক্ষমালাভের উপায়ঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সাওয়াবের আশায় রামাদান মাসে রোযা রাখবে, তার পূর্বের সকল গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯১০ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৮১৭)
৩. রোযা জান্নাত লাভের পথঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-জান্নাতে একটি দরজা রয়েছে যাকে বলা হয় ‘রাইয়ান’ – কিয়ামতের দিন এ দরজা দিয়ে রোযাদারগণ প্রবেশ করবে। অন্য কেউ এ দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না….. রোযাদারগণ প্রবেশ করলে এ দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে আর কেউ সেখান দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৭৯৭ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬৬ )
৪. রোযাদারের জন্য রোযা শাফায়াত করবেঃ
উত্তম সনদে ইমাম আহমাদ ও হাকেম বর্ণনা করেন যে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-‘‘রোযা এবং কুরআন কিয়ামতের দিন বান্দার জন্য শাফায়াত করবে। রোযা বলবে, হে রব! আমি তাকে দিবসে পানাহার ও কামনা চারিতার্থ করা থেকে নিবৃত্ত রেখেছি।
অতএব, তার ব্যাপারে আমাকে শাফায়াত করার অনুমতি দিন…..।’’ (মুসনাদ, হাদীস নং ৬৬২৬, আল-মুস্তাদরাক, হাদীস নং ২০৩৬)
৫. রোযাদারের মুখের দুর্গন্ধ আল্লাহর কাছে মিসকের সুগন্ধির চেয়েও উত্তমঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যার হাতে মুহাম্মাদের প্রাণ তার শপথ! রোযাদারের মুখের গন্ধ কিয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে মিসকের চেয়েও সুগন্ধিময়।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮৯৪ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬২)
৬. রোযা ইহ-পরকালে সুখ-শান্তি লাভের উপায়ঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-রোযাদারের জন্য দু’টো খুশীর সময় রয়েছে।
একটি হলো ইফতারের সময় এবং অন্যটি স্বীয় প্রভু আল্লাহর সাথে মিলিত হওয়ার সময়।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫ ও সহীহ মুসলিম, হদীস নং ২৭৬৩)
৭. রোযা জাহান্নামের অগ্নি থেকে মুক্তিলাভের ঢাল স্বরূপঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি আল্লাহর রাস্তায় একদিন রোযা রাখে, আল্লাহ তাকে জাহান্নাম থেকে সত্তর বৎসরের দূরত্বে নিয়ে যান।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ২৬৮৫ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৭৬৭ )
ইমাম আহমাদ বিশুদ্ধ সনদে বর্ণনা করেন – রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘রোযা ঢাল স্বরূপ-যদ্বারা বান্দা নিজেকে আল্লাহর আযাব থেকে রক্ষা করতে পারে, যেভাবে তোমাদের কেউ একজন যুদ্ধে নিজেকে রক্ষা করে।’’ (মুসনাদ, হাদীস নং ১৭৯০৯)
সিয়ামের সাথে সংশ্লিষ্ট আমল সমূহঃ
১. রোযার নিয়্যাতঃ
রাতেই রোযার নিয়্যাত করতে হবে। সুনান আন-নাসাঈ গ্রন্থে বিশুদ্ধ সনদে বর্ণিত হয়েছে যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘যে ব্যক্তি ফজর উদয়ের পূর্বে, রাতেই রোযার নিয়্যাত করেনা, তার রোযা হবে না।’’ (সুনান আন-নাসাঈ, হাদীস নং ২৩৩২)
২. দেরী করে সেহেরী খাওয়াঃ
সেহেরী খাওয়া একটি বরকতময় বৈশিষ্ট্য যা আল্লাহ এ উম্মাতকে দান করেছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘আমাদের রোযা ও আহলে কিতাবের রোযার মধ্যে পার্থক্য হলো সেহেরী খাওয়া।’’ (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৪)। সেহেরী বরকতময় হওয়ার প্রমাণ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বাণী-‘‘তোমরা সেহেরী খাও, কেননা সেহেরীতে রয়েছে বরকত।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮২৩ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৩ )। দেরী করে সেহেরী খাওয়ার দলীল হল, আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু যায়েদ বিন সাবেত রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণনা করেন,‘আমরা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সেহেরী খেয়েছি। অত:পর তিনি নামাযে দাঁড়ালেন।’’ আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু তখন জিজ্ঞাসা করলেন, আযান ও সেহেরীর মধ্যে কতটুকু সময়ের পার্থক্য ছিল? যায়েদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বললেন, ‘‘পঞ্চাশটি আয়াত পরিমাণ।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮২১ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৬ )
৩. তাড়াতাড়ি ইফতার করাঃ
সূর্য অস্ত যাওয়া নিশ্চিত হলে তাড়াতাড়ি ইফতার করা রোযাদারের জন্য মুস্তাহাব। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘মানুষ ততক্ষণ পর্যন্ত কল্যাণের উপর থাকবে, যতক্ষণ পর্যন্ত তারা অনতিবিলম্বে ইফতার করবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮৫৬ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৬০৮)
৪. কি দিয়ে ইফতার করতে হবেঃ
আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন-নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ‘রুতাব’ (শুকনা নয় এমন) খেজুর দিয়ে নামাযের আগে ইফতার করতেন, রুতাব পাওয়া না গেলে শুকনা খেজুর দিয়ে ইফতার করতেন। তাও পাওয়া না গেলে তিনি কয়েক ঢোক পানি পানে ইফতার করতেন।’’ (উত্তম সনদে ইমাম আহমাদ, হাদীস নং ১২৬৭৬ ও আবু দাউদ, হাদীস নং ২৩৫৬)
৫. রোযাদারকে ইফতার করানোঃ
সহীহ সনদে তিরমিযী ও আহমাদ বর্ণনা করেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি কোন রোযাদারকে ইফতার করায়, সে উক্ত রোযাদারের সাওয়াবের কোনরূপ ঘাটিত না করেই তার সমপরিমাণ সওয়াব লাভ করবে।’’ (সুনান তিরমিযী, হাদীস নং ৮০৭ ও মুসনাদ আহমাদ, হাদীস নং ১৭০৩৩)
যে সকল আমলের মাধ্যমে মু’মিন ব্যক্তি রামাদান মাসে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারে, তন্মধ্যে কিয়ামুল লাইল সবচেয়ে উত্তম। কিয়ামুল লাইল তারাবীহ, তাহজ্জুদ এবং রাতের যে কোন নফল নামায এর অন্তর্ভূক্ত। কিয়ামুল লাইল ছিল নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও তার সাহাবীদের নিয়মিত আমল। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন-‘‘কিয়ামুল লাইল ত্যাগ করো না। কেননা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা ত্যাগ করতেন না। অসুস্থ হলে কিংবা অলসতা বোধ করলে তিনি বসে নামায পড়তেন।’’ (মুসনাদ আহমাদ, হাদীস নং ২৬১১৪ ও সুনান আবি দাঊদ, হাদীস নং ১৩০৭)। রামাদানে কিয়ামুল লাইলের আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। তাই নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি রামাদান মাসে ঈমানের সাথে এবং সওয়াবের আশায় (রাতের নামাযে) দাঁড়ায় তার পূর্ববর্তী সকল গোনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯০৫ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৮১৫)।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘ফরয নামাযের পর সর্বোত্তম নামায হচ্ছে রাতের নামায”। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং: ২৮১২)। রাতের নামাযের প্রশংসায় আল্লাহ বলেন-‘‘রহমানের বান্দাহ তারাই, যারা পৃথিবীতে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং মূর্খ ব্যক্তিরা যখন তাদেরকে সম্বোধন করে কথা বলে, তখন তারা বলে, ‘সালাম’ এবং যারা রাত্রিযাপন করে তাদের পানলকর্তার উদ্দেশ্যে সেজদাবনত হয়ে ও দন্ডায়মান হয়ে’’। (সূরা আল-ফুরকান: ৬৩-৬৪) আল্লাহ অন্যত্র বলেন-‘‘রাতের কিয়দংশে তারা নিদ্রা যেত এবং রাতের শেষ প্রহরে তারা ক্ষমা প্রার্থনা করত।’’ (সূরা আয-যারিয়াত: ১৭-১৮)
রামাদান মাসে কুরআন তেলাওয়াতে ফজিলতঃ
রামাদান মাস কুরআন নাযিলের মাস। এমাসে কুরআন তেলাওয়াত করা এবং এর মর্ম উপলব্ধি করায় অন্যান্য মাসের চেয়ে বেশী নেকী পাওয়া যায়। অর্থ না বুঝে, চিন্তাভাবনা না করে অন্তরে আল্লাহ ভীতি ও বিনম্রভাব সৃষ্টি না করে কবিতার মত কুরআন আবৃত্তি করে যাওয়া আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া ঠিক নয়। কেননা আল্লাহ নিজেই বলেন-‘‘এটি একটি বরকতময় কিতাব, যা আমি আপনার প্রতি অবতীর্ণ করেছি, যাতে মানুষ এর আয়াতসমূহ অনুধাবন করে এবং বোধশক্তি সম্পন্ন ব্যক্তিগণ গ্রহণ করে উপদেশ।’’ (সূরা সোয়াদ: ২৯) আল্লাহ তালা আরো বলেন-“সুতরাং যে আমার দেয়া হিদায়াতের পথ অনুসরণ করবে, সে পথভ্রষ্ট হবে না এবং দু:খ কষ্টে পতিত হবে না।’’ (সূরা ত্বা-হা: ১২৩)।
এ মাসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিবরীলের সাথে কুরআন পাঠ করতেন। তাঁর সীরাত অনুসরণ করে প্রত্যেক মু’মিনের উচিত এ মাসে বেশী বেশী কুরআন তেলাওয়াত করা, বুঝা এবং আমল করা। ইবনু আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন-“জিবরীল রামাদানের প্রতি রাতে এসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সাক্ষাৎ করতেন এবং তাকে নিয়ে কুরআন পাঠ করতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩০৪৮)
যে ব্যক্তি কুরআন পাঠ করে এবং সে অনুযায়ী আমল করে, তার ব্যাপারে আল্লাহ এ নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, সে দুনিয়ায় ভ্রষ্ট হবে না এবং আখিরাতে দুর্ভাগা – হতভাগাদের অন্তর্ভুক্ত হবে না।
উসমান রাদিয়াল্লাহু আনহু রামাদানে প্রতিদিন একবার কুরআন খতম করতেন। সালাফে সালেহীন নামাযে ও নামাযের বাইরে কুরআন খতম করতেন। রামাদানের কিয়ামুল লাইলে তাদের কেউ তিনদিনে, কেউ সাতদিনে এবং কেউ দশদিনে কুরআন খতম করতেন।
রামাদান মাসে দান খয়রাত ও সদকা প্রদানঃ
পবিত্র রামাদান মাসে আল্লাহর রাস্তায় বেশী বেশী দান ও সদকা করা আল্লাহর রাস্তায় দান-সদকা ও ব্যয় করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ইবাদাত। এ মাসে সামর্থবান ব্যক্তিবর্গ এ ইবাদাত পালন করে সে ব্যাপারে ইসলাম ব্যাপক উৎসাহ প্রদান করেছে। কেননা রামাদান মাসে এ ইবাদাতের তাৎপর্য ও গুরুত্ব আরো বহুলাংশে বৃদ্ধি পায়। ইমাম বুখারী ইবনে আববাস রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণনা করেন যে, “রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সকল মানুষের চেয়ে বেশী দানশীল ছিলেন।
আর রামাদান মাসে যখন জিবরীল তার সাথে সাক্ষাতে মিলিত হতেন তখন তিনি আরো দানশীল হয়ে উঠতেন”। জিবরীলের সাক্ষাতে তিনি বেগবান বায়ুর চেয়েও বেশী দানশীল হয়ে উঠতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৩০৪৮)
রামাদান মাসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দানশীলতা বহুগুণে বৃদ্ধি পাওয়ার কারণ মূলত তিনটিঃ
১। রামাদান মাসে দান-সদকাসহ সকল উত্তম আমলের সাওয়াব বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। কুরআনের বহু আয়াতে আল্লাহর রাস্তায় ব্যয়ের প্রতি উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে।
আল্লাহ বলেন-‘‘কে সে, যে আল্লাহকে করযে হাসানা প্রদান করবে? অত:পর তিনি তার জন্য তা বহুগুণে বৃদ্ধি করবেন।’’ (সূরা আল-বাকারাহ : ২৪৫)
২। “যারা নিজেদের ধনসম্পদ আল্লাহর পথে ব্যয় করে, তাদের উপমা একটি শস্যবীজ, যা সাতটি শীস উৎপাদন করে, প্রত্যেক শীষে একশত শস্যদানা । আর আল্লাহ যাকে ইচ্ছা বহুগুণে বৃদ্ধি করে দেন।আর আল্লাহ দানশীল সর্বজ্ঞ।’’ (সূরা আল-বাকারাহ: ২৬১)
‘‘দেখ, তোমরাই তো তারা, যাদেরকে আল্লাহর পথে ব্যয় করার আহবান জানানো হচ্ছে। অথচ তোমাদের কেউ কেউ কৃপণতা করছে। যারা কৃপণতা করছে, তারা নিজেদের প্রতিই কৃপণতা করছে। আল্লাহ অভাবমুক্ত এবং তোমরা অভাবগ্রস্ত।’’(সূরা মুহাম্মাদ: ৩৮)
৩। রামাদানের প্রতি রাতে জিবরীলের সাক্ষাতে তিনি ভীষণভাবে দান করতে অনুপ্রাণিত হতেন। যেমন সহীহ বুখারীর বর্ণিত হাদীসে বলা হয়েছে।
রামাদান মাসে উমরা পালনের ফজিলতঃ
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘রামাদান মাসে উমরা করা হজ্জের সমতুল্য’’ অথবা ‘‘আমার সাথে হজ্জ করার সমতুল্য’’। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং১৬৯০ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১২৫৬)
ইতেকাফঃ রামাদান মাসের শেষ দশদিন ইতেকাফে বসা অতি উত্তম ইবাদাত। শুরুতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের প্রথম দশদিন ইতেকাফে বসেন। এরপর লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে মাঝের দশদিন ইতেকাফে বসেন। এরপর যখন লাইলাতুল ক্বদর শেষ দশদিনে হওয়া স্পষ্ট হয়ে গেল, তখন থেকে তিনি শেষ দশদিন ইতেকাফে বসতে লাগলেন। অত:পর তার মৃত্যুর পর তার স্ত্রীগণ ইতেকাফে বসেন। হাদীসে এসেছে, “রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের প্রথম দশদিন ইতেকাফ করেন। (সাহাবারা বলেন) আর আমরাও তার সাথে ইতেকাফ করলাম। এরপর জিবরীল আসলেন এবং বললেন, যা আপনি অনুসন্ধান করছেন তা আপনার সামনে রয়েছে। এরপর তিনি মাঝের দশদিন ইতেকাফ করলেন। (সাহাবারা বলেন)আমরাও তার সাথে ইতেকাফ করলাম। এরপর জিবরীল আসলেন এবং বললেন, যা আপনি অনুসন্ধান করছেন তা আপনার সামনে রয়েছে। তারপর বিশ রামাদান নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খুতবা দিলেন এবং বললেন, যে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে ইতেকাফ করেছে সে যেন ফিরে আসে…..”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৭৮০)
রামাদানের শেষ দশদিনে লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে ব্যাপৃত থাকাঃ এ সম্পর্কে আরো বহু হাদীস রয়েছে যার সারকথা হলো – লাইলাতুল ক্বদর রামাদানের শেষ দশদিনের যে কোন রাত্রে হতে পারে। তবে বেজোড় রাত্রিসমুহের যে কোন একটিতে হুওয়ার সম্ভাবনা বেশী। অনেক উলামার মতে – সবচেয়ে বেশী সম্ভাবনাময় হল ২৭ তম রাত্রি। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘‘যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং সওয়াবের আশায় ক্বদরের রাত্রিতে (নামাযে) দাঁড়ায়, তার পূর্ববর্তী সকল গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হল”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০২)
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের শেষ দশ রাতে নিজে লাইলাতুল ক্বদরের অনুসন্ধানে ব্যাপৃত থাকতেন এবং পরিবার পরিজনকে জাগিয়ে দিতেন। ইমাম মুসলিম আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণনা করেন-‘‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদানের শেষ দশদিনে আল্লাহর ইবাদাতে এতটা পরিশ্রম করতেন যা তিনি অন্য সময় করতেন না”। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৮৪৫) সহীহ বুখারী ও মুসলিমের বর্ণনায় আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন-‘‘যখন রামাদানের শেষ দশদিন এসে যেত, তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পরনের কাপড় মজবুত করে বাঁধতেন। (অর্থাৎ দৃঢ়তার সাথে প্রস্তুতি নিতেন) এবং নিজে রাত্রে জাগতেন এবং পরিবার পরিজনকেও জাগাতেন”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৯২০ ও সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৮৪৪) তিনি সাহাবাদেরকেও লাইতুল ক্বদর অনুসন্ধান এ ব্যাপৃত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেন-“তোমরা শেষ দশদিনের বেজোড় রাতে এ রাত্রি তালাশ করো”। (সুনান আত-তিরমিযী, হাদীস নং ৭৯২)
রামাদান মাসে বেশী বেশী দো‘আ, যিকর এবং ইস্তেগফার করার ফজিলতঃ
রামাদান মাস দো‘আ কবুল হওয়ার খুবই উপযোগী সময়, যেমন প্রবন্ধের শুরুতে একটি হাদীসের বর্ণনায় বলা হয়েছে। রামাদানের দিনগুলোতে পুরো সময়টাই ফযীলতময়। তাই সকলের উচিত এ বরকতময় সময়ের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করা- দো‘আ, যিকর ও ইসস্তেগফারের মাধ্যমে। তাই পবিত্র রামাদান মাসে সকল প্রকার ইবাদতে নিজেকে ব্যাপৃত রাখা উত্তম। সালাফে সালেহীনও নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অনুকরণে এ মাসকে অধিক গুরুত্ব দিতেন এবং সকল ইবাদাতের জন্য অবসর হয়ে যেতেন। এমন কি ইমাম মলেক রাহেমাহুল্লাহ ও ইমাম যুহরী রাহেমাহুল্লার ন্যায় ব্যক্তিবর্গও শিক্ষাদান ও ফাতওয়ার মত গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছেড়ে বিশেষ ইবাদাত যা ইতিপূর্বে বর্ণিত হয়েছে – তার জন্য নিজেদের নিয়োজিত রাখতেন।
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রামাদান মাসে অন্য মাসের চেয়েও বেশী বেশী ইবাদাত করতেন। আল্লামা ইবনুল কাইয়েম রহ. বলেন, ‘‘রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ ছিল রামাদান মাসে সকল ধরনের ইবাদাত বেশী বেশী করা। তিনি ছিলেন সবচেয়ে দানশীল এবং রামাদানে আরো বেশী দানশীল হয়ে যেতেন, কেননা এ সময়ে তিনি সদকা, ইহসান ও কুরআন তেলাওয়াত, নামায, যিকর ও ইতেকাফ ইত্যাদি সকল প্রকার ইবাদাত অধিক পরিমাণে করতেন। তিনি রামাদানে এমন বিশেষ ইবাদাত সমূহ পালন করতেন যা অন্য মাসগুলোতে করতেন না। (যাদুল মাআ‘দ ১/৩২১)
এমাসের বিশেষ সতর্কতাঃ
রামাদান মাস ফযীলতের মাস এবং আল্লাহর ইবাদাতের প্রশিক্ষণ লাভের মাস হওয়ায় এ মাসে সর্বপ্রকার গোনাহের কাজ পরিত্যাগ করা অধিক বাঞ্ছনীয়। কেননা রামাদান মাসে সৎকাজের সওয়াব ও নেকী বহুগুণে বৃদ্ধি পায়, তাই রামাদানের সম্মান ও ফযীলতের কারণে এ মাসে সংঘটিত যে কোন পাপের শাস্তি অন্য সময়ের তুলনায় ভয়াবহ হবে এটাই স্বাভাবিক। তাই পবিত্র এ মাসে শরীয়ত সকল প্রকার পাপ কাজ বর্জন করতে নির্দেশ দিয়েছে। শরীয়তের পক্ষ থেকে মূলত: ছোট-বড় সকল গোনাহ ও পাপ সর্বদা বর্জন করার নির্দেশ এসেছে। এজন্যেই রোযাদারদের উচিত তাকওয়া বিরোধী সকল প্রকার মিথ্যা কথা ও কাজ পরিপূর্ণভাবে বর্জন করা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘যে ব্যক্তি (রোযা রেখে) মিথ্যা কথা ও সে অনুযায়ী কাজ করা বর্জন করে না তবে তার শুধু খাদ্য ও পানীয় বর্জন করায় আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই”। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৪) ‘‘মিথ্যা কথা ও তদনুযায়ী কাজ’’ কথাটি দ্বারা মূলত: রোযা অবস্থায় উম্মতের সকলকে পাপাচারে লিপ্ত হওয়ার ব্যাপারে সাবধান করা হয়েছে। আর ‘‘আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই’’ কথাটি দ্বারা রোযা অসম্পূর্ণ হওয়ার, কিংবা কবুল না হওয়ার অথবা রোযার সওয়াব না হওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করা হয়েছে।
অন্য আরেকটি হাদীসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন-‘‘তোমাদের কেউ রোযার দিনে অশ্লীল কথা যেন না বলে এবং শোরগোল ও চেঁচামেচি না করে। কেউ তাকে গালমন্দ করলে বা তার সাথে ঝগড়া করলে শুধু বলবে, আমি রোযাদার ।’’ (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৮০৫)
উপরোক্ত হাদীস দু’টোর আলোকে সারকথায় আমরা বলতে পারি যে, আমাদের ঈমান, আমল ঠিক রেখে ইসলামী বিরোধী সকল কাজ বিশেষভাবে রামাদানে এবং আমভাবে সর্বদাই বর্জন করতে হবে। তাহলে আমাদের সিয়াম সাধনা হবে অর্থবহ এবং এ সাধনার মূল লক্ষ্য তাকওয়া অর্জন করা হবে সহজসাধ্য।
উপসংহারে বলা যায় ত্বাকওয়া অর্জনের এ মুবারক মাসে মুমিনদের উপর অর্পিত হয়েছে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব, সৃষ্টি হয়েছে পূণ্য অর্জনের বিশাল সুযোগ এবং প্রবৃত্তিকে নিয়ন্ত্রণ করে মহান চরিত্র অর্জনের সুন্দর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা। মুমিনদের উপর এ মাসের অর্পিত দায়িত্ব পালন এবং সুবর্ণ সুযোগের সদ্ব্যবহার করে আজ সারা বিশ্বের মুসলিমদের উচিত চারিত্রিক অধ:পতন থেকে নিজেদের রক্ষা করা, নেতিয়ে পড়া চেতনাকে জাগ্রত করা এবং সকল প্রকার অনাহুত শক্তির বলয় থেকে মুক্ত হয়ে হক প্রতিষ্ঠার প্রতিজ্ঞাকে সুদৃঢ় করা, যাতে তারা রিসালাতের পবিত্র দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারে এবং কুরআন নাযিলের এ মাসে কুরআনের মর্ম অনুধাবন করতে পারে, তা থেকে হিদায়াত লাভ করতে পারে এবং জীবেনের সর্বক্ষেত্রে একেই অনুসরণের একমাত্র মত ও পথ রূপে গ্রহণ করতে পারে।

মহান আল্লাহ আমাদেরকে পবিত্র রামাদান মাসের সকল ফজিলত ও বরকত দান করুন এবং তার সকল আদেশ নির্দেশ মেনে তাকওয়া অর্জন নসিব করুন। আমিন-

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী

আজ মালয়িশিয়াতে কেউ করোনা ভাইরাসে মারা যায়নি।

আজ মালয়েশিয়াতে কেউ করোনা ভাইরাসে মারা যায়নি

২০ শে এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:৩৩এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে : 

ব্রিফিং করছেন মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মহাপরিচালক Datuk Dr Noor Hisham Abdullah

১৮ মার্চ ২০২০ তারিখে লকডাউন ঘোষণা করার পর থেকে আজ এই প্রথম মালয়েশিয়াতে COVID 19 এর সব চেয়ে ভালো খবর এসেছে। নতুন রোগী রেকর্ডভুক্ত হয়েছে মাত্র হয়েছে মাত্র ৩৬ জন । 

আর সব চেয়ে ভালো খবর হলো আজকে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত কেউ মারা যায়নি। তার মানে এপ্রিল মাসে এই প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কেউ মারা যায়নি। 

রাজধানী পুত্রাজায়াকে মালয়েশিয়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয় এ তথ্য প্রকাশ করেন। মহাপরিচালক মহোদয়ের ইতোমধ্যেই মালয়েশিয়াতে হিরো অফ দা আওয়ার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে ফেলেছেন। চীনের একটি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক তাঁকে পৃথিবীর তিন জন আদর্শ ডাক্তারের এক জন হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। 

আজকে চতুর্থ দিন যাতে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ২ ডিজিটে সীমাবদ্ধ থাকল এবং আজকের সংখ্যাটি বিগত দিনগুলোর (লক ডাউন এর তারিখ থেকে শুরু করলে ) মধ্যে সর্বনিম্ন। 

ভাইরাস মালয়েশিয়াতে আসার পর থেকে এ পর্যন্ত সর্বমোট রোগী রেকর্ডভুক্ত হয়েছে ৫,৪২৫ জন। এদের মধ্য থেকে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন ৩, ২৯৫ জন। 

এর মানে এই যে, বর্তমানে ২,০৪১ জন রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে মাত্র ৪৫ জন রোগী ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট বা আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের মধ্যে ২৮ জনের ভেন্টিলেশন লাগছে। 

এ পর্যন্ত সর্বমোট ৮৯ জন রোগী মারা গেছেন। 

মোট পজিটিভ কেসকে বিবেচনায় নিলে মালয়েশিয়াতে রিকভারি রেট হচ্ছে ৬০.৭৪%। 

আজ মালয়েশিয়াতে লক ডাউন এর ৩৪ তম দিন অতিবাহিত হচ্ছে। জনসাধারণকে ঘরে অবস্থান করার জন্য সরকার থেকে কঠোরভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তৃতীয় দফায় ঘোষিত লকডাউন আগামী ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। 

Create your website with WordPress.com
Get started
%d bloggers like this: